বুধবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৯, ৬ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬

জিপিকে দুই সপ্তাহের সময় দিলেন আদালত

আদালত প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ৩১ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার ০৭:২২ পিএম

জিপিকে দুই সপ্তাহের সময় দিলেন আদালত

ঢাকা : প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, এদেশে ব্যবসা করাটা সহজ। যখন টাকা-পয়সার ব্যাপার আসে, তখন আদালতে এসে একটা আবেদন করে স্থগিতাদেশ নিয়ে টাকা দেয়া হয় না। গড়িমসি করা হয়। মামলাগুলো করাই হয় যেন টাকা দিতে না হয়। এসব মামলার কারণে অর্থঋণ আদালতগুলোয় প্রায় ১ লাখ কোটি টাকা আটকে আছে। ব্যবসা করবেন টাকা দেবেন না, তা হয় না।

বেসরকারি মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোনের (জিপি) কাছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) দাবি করা সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা আদায়ের মামলার শুনানিতে জিপির আইনজীবীদের করা সময় আবেদনের শুনানিতে বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বেঞ্চ এই মন্তব্য করেন।

পরে টাকা দেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানাতে জিপিকে দুই সপ্তাহের সময় দেন আদালত।

আদালতে বিটিআরসির পক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। জিপির পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এএম আমিন উদ্দিন ও ফজলে নূর তাপস।

জিপির আইনজীবী এএম আমিন উদ্দিন আদালতকে বলেন, ‘অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে এক বৈঠকে ১০০ কোটি টাকা দেয়া নিয়ে আলোচনা চলছিল। সেই পরিপ্রেক্ষিতে ওই টাকা দেব।’

তখন আদালত বলেন, ‘সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা পাবে, আর আপনি বলছেন ১০০ কোটি। ওইখানে কমপ্রোমাইজ করবেন আর আদালতে এসে মামলা করবেন, সেটা হতে পারে না।’

জবাবে আমিন উদ্দিন বলেন, ‘তারা সিদ্ধান্ত না মানায় আদালতে এসেছি। টাকা দেব না, একথা তো কখনও বলিনি।’

এসময় জিপির আরেক আইনজীবী শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘বিটিআরসির দাবি করা টাকার ভিত্তি আছে কি না, সেটা আদালতের দেখা দরকার। একটা বহুজাতিক কোম্পানি এদেশে ব্যবসা করতে এসেছে। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড না হলে বিদেশি বিনিয়োগ আসবে না। এর আগে জিপি ২ হাজার ১০০ কোটি টাকা দিয়েছে।’

এসময় বিটিআরসির পক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ‘আদালতের নির্দেশে গ্রামীণফোন ওই টাকা দিয়েছে। আর অডিটের মাধ্যমে সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার হিসাব এসেছে। গ্রামীণফোন তখন তো কোনো আপত্তি করেনি।’

এ পর্যায়ে আদালত গ্রামীণফোনের আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেন, ‘বিটিআরসির দাবি করা সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার মধ্যে আপাতত কত টাকা দিতে পারবে, তা জানাতে জিপিকে দুই সপ্তাহের সময় দেয়া হল। এর মধ্যে না জানালে আদেশ দেয়া হবে।’ এরপর আদালত আগামী ১৪ নভেম্বর এ মামলার আদেশের জন্য দিন ধার্য করেন।

প্রসঙ্গত, গত ২ এপ্রিল সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা দিতে জিপিকে চিঠি দেয় বিটিআরসি। ওই চিঠির বিরুদ্ধে ঢাকার নিম্ন আদালতে মামলা করে নিষেধাজ্ঞা চায় জিপি। গত ২৮ আগস্ট আদালত মামলা খারিজ করে দেন। পরে ওই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করে জিপি। হাইকোর্ট বিটিআরসির চিঠির কার্যকারিতা স্থগিতের নির্দেশ দেন। এর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে যায় বিটিআরসি।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue