বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

‘জিয়া স্বাধীনতার ঘোষক’ ওয়াশিংটনে আ.লীগের বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান পণ্ড

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২৪ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার ০১:০০ পিএম

‘জিয়া স্বাধীনতার ঘোষক’ ওয়াশিংটনে আ.লীগের বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান পণ্ড

ঢাকা : সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে ‘স্বাধীনতার ঘোষক’ বলায় পণ্ড হয়েছে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে শনিবার রাতে অনুষ্ঠিত বিজয় দিবসের এক অনুষ্ঠানে এই ঘটনা ঘটে। ওয়াশিংটন ডিসি এলাকার পার্শ্ববর্তী ভার্জিনিয়ায় অঙ্গরাজ্যের একটি অডিটরিয়ামে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ‘বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি’ (বাগডিসি)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান অনুষ্ঠান চলাকালীন সময় একটি অডিও বাজানো হয়, যার মাধ্যমে বাংলাদেশের ইতিহাস বিকৃত করার অপচেষ্টা করা হয়েছে। স্বাধীনতার সপক্ষের আদর্শের অনুসারী হিসেবে, বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির এ ধরনের চেষ্টায় অনকেই ক্ষুদ্ধ হন। এ ঘটনার প্রতিবাদে অনুষ্ঠানের বাকি অংশ উপস্থাপনা করতে অস্বীকৃতি জানিয়ে অনুষ্ঠান ত্যাগ করেন উপস্থাপক ও ভয়েস অব আমেরিকার সাংবাদিক শতরূপা বড়ুয়া।

অনুষ্ঠানের উপস্থাপনায় ছিলেন সাংবাদিক শতরূপা বড়ুয়া ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামীম চৌধুরী। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন ওয়াশিংটন ডিসি আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ আলমগীর।

এ ঘটনার পর শতরূপা বড়ুয়া তার ফেসবুকে লেখেন, ‘আজকের অনুষ্ঠানে একটি অডিও বাজানো হয়, যার মাধ্যমে বাংলাদেশের ইতিহাস বিকৃত করার অপচেষ্টা করা হয়েছে। স্বাধীনতার সপক্ষের আদর্শের অনুসারী হিসেবে, বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের এধরনের বিকৃতির ঘৃণ্য অপচেষ্টা আমাকে স্তম্ভিত করেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে আমি অনুষ্ঠানের বাকি অংশ উপস্থাপনায় অস্বীকৃতি জানিয়ে চলে আসি।’

প্রবাসী লেখক-সাংবাদিক-মুক্তিযোদ্ধা হারুন চৌধুরী জানান, বাগডিসির এ অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে সামরিক স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমানকে বাংলাদেশের প্রথম প্রেসিডেন্ট এবং স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে প্রচার করা হয়। এতে উপস্থিত মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। প্রতিবাদের মুখে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান পণ্ড হয়ে যায়।

অনুষ্ঠানের অতিথি ও স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের শিল্পী রথীন্দ্রনাথ রায় বলেন, সুপরিকল্পিতভাবে ইতিহাস বিকৃত করার মতো পরিক্রমায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন সবাই। অধিকাংশ মানুষই অনুষ্ঠান বর্জন করেছেন। এ অবস্থায় আয়োজকরা প্রকাশ্যে ক্ষমা প্রার্থনার পর অনুষ্ঠানে আমি সঙ্গীত পরিবেশন করেছি।

এ প্রসঙ্গে ‘বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন’ যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি খন্দকার মনসুর বলেন, যারা এমন অপকর্মের সঙ্গে জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করতে হবে। ইতোমধ্যে বাগডিসি কর্তৃপক্ষ আমাকে নিশ্চিত করেছেন যে কার্যকরি কমিটির বৈঠক ডেকে সংশ্লিষ্টদের বহিষ্কার করা হবে। সামাজিকভাবে ওদেরকে চিহ্নিত করা হবে।

এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ জানিয়েছেন আরিফুর স্বপন, আরিফুর রহমান, সুয়েব চৌধুরী, মোস্তাফিজুর রহমান ও আলাউদ্দিন আহমেদ, শিব্বীর আহমেদ, জি আই রাসেল,  জীবক বড়ুয়া, আবুল কালাম আজাদ, আকতার হোসাইন, মুজিবুর রহমান খান, জুয়েল বড়ুয়া, আবুল শিকদার, যুগ্ম সচিব দেওয়ান আলী বিজয়, হারুনুর রাশিদ, জাহিদ হোসেন, সমন্বয়কারী আমান উল্লা, আলতাফ হোসাইন, প্রচার সম্পাদক মীর রফিক, উপদেষ্টা সাদেক এম খান, আলাউদ্দীন আহমেদ ও মোহাম্মদ সিরাজুল হক। 

এদিকে বাগডিসিকে জাতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনার মাধ্যমে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছেন স্থানীয় বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।

সোনালীনিউজ/এএস

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue