বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৮ ফাল্গুন ১৪২৫

বিএনপির নির্বাচনী প্রচারণা

জোবায়দা আউট শর্মিলা ইন

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার ০২:০৫ পিএম

জোবায়দা আউট শর্মিলা ইন

ঢাকা : বিএনপির নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় অংশ নিতে শেষ পর্যন্ত খালেদা জিয়ার পুত্রবধূ প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথিকেই বেছে নেওয়া হলো। পাসপোর্ট জটিলতার কারণে আপাতত তারেক রহমানের স্ত্রী যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত ডা. জোবায়দা রহমান আপাতত দেশে ফিরতে পারছেন না। সিঁথির প্রচারণায় অংশ নেবার বিষয়ে বেগম খালেদা জিয়ারও সম্মতি রয়েছে বলে জানা গেছে।

বিএনপির একাধিক সূত্র জানায়, কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার হয়ে পরিবারের পক্ষে মানবিক আবেদন ভোটারদের মাঝে তুলে ধরতে প্রথমত ডা. জোবায়দা রহমানকে প্রচারণার মাঠে রাখার ইচ্ছে ছিল বিএনপি হাইকমান্ডের। আর বিষয়টি নিয়ে ঢাকা থেকে প্রথমে যোগাযোগ করেন তাবিথ আউয়াল। এ বিষয়ে তারেক রহমানকে বেশ কয়েকটি যুক্তিও তুলে ধরেন তাবিথ আউয়াল। আর এতে করে সম্মতিও মিলে তারেকের।

কিন্তু আয়োজন চূড়ান্ত করা হলেও যুক্তরাজ্যে রাজনৈতিক আশ্রয়ের কারণে বর্তমানে তারেক এবং জোবায়দা কারোরই পাসপোর্ট হাতে নেই। শেষ পর্যন্ত পরিবর্তন করা হয় সিদ্ধান্ত। খালেদা জিয়ার সম্মতিতে শর্মিলা রহমান সিঁথিই থাকবেন নির্বাচনী প্রচারণার মাঠে। ইতোমধ্যে সিঁথি কারাগারে বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তাকে এ বার্তা দেন স্বয়ং খালেদা জিয়া।

খালেদা জিয়ার পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ফেরার অবস্থায় যুক্তরাজ্যে রয়েছেন এবং খালেদা জিয়া কারা অন্তরীণ। এই সংকটকালীন মূর্হুতে অনেকটা হ-য-ব-র-ল অবস্থায় নির্বাচনে অংশ নেয় বিএনপি। কিন্তু দলের এই সংকটকালে খালেদা জিয়ার পরিবারের কেউ দলের পাশে নেই। বিএনপির তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের মনোবল বাড়াতে আপাতত রাজনীতির মাঠে সক্রিয় থাকবেন শর্মিলা রহমান সিঁথি।

বিএনপির একাধিক সূত্র জানায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৮টি বিভাগীয় সমাবেশে দলের পক্ষে প্রচার কাজ চালাবেন খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠ পুত্রবধূ শর্মিলা রহমান সিঁথি। আর এসব বিষয়ে বিএনপি মহাসচিবসহ বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতার সঙ্গেও বৈঠক করেছেন শর্মিলা রহমান।

যুক্তরাজ্য থেকে তারেক রহমানের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানায়, জোবায়দা এবং শর্মিলা দুজনেই রাজনৈতিক সচেতন। দলের নেতা-কর্মীদের মাঝেও দুজনের যথেষ্ট গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে, তাই বিএনপির পক্ষে খালেদা জিয়ার পরিবারের হয়ে এবং খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি ত্বরান্বিত করতেই শর্মিলা রহমান সিঁথিকে বেছে নেওয়া হয়েছে। তারা জানান, যেহেতু সিঁথির নামে কোনো হয়রানিমূলক মামলা নেই, তাকেই উপযুক্ত মনে করে বিএনপি।

সূত্রটি জানায়, প্রচারণার কাজ শুরু হলেই মাঠে থাকবে খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠ পুত্রবধূ। আর এজন্য জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এবং জাতীয়তাবাদী যুবদলের সমন্বয়ে একটি চৌকস টিম গঠন করা হয়েছে। এদিকে, বিষয়টি যাতে ইতিবাচক ভাবে দেখা হয়, সেজন্য ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেনকেও এ বিষয়ে অবগত করা হয়েছে।

সোনালীনিউজ/এমটিআই