মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই, ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

ঢামেকের জরুরী সেবা বন্ধ, ফিরে যাচ্ছে রোগী

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২৯ অক্টোবর ২০১৭, রবিবার ০৫:৩০ পিএম

ঢামেকের জরুরী সেবা বন্ধ, ফিরে যাচ্ছে রোগী

ঢাকা: ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সব সেবা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। রোগীর মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্বজনদের সঙ্গে ডাক্তারদের মারামারির ঘটনায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এতে সেবা নিতে আসা রোগীরা ফিরে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। রোববার (২৯ অক্টোবর) বিকেলে ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই বাচ্চু মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি বলেন, হাসপাতাল পরিচালকের কক্ষে ডাক্তার ও স্বজনদের নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। ওখান থেকে সিদ্ধান্ত আসার পর হয়তো আবারো জরুরি বিভাগ খুলে দেয়া হবে।

হাসপাতাল সূত্রে জানাযায়, শনিবার রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঢামেক হাসপাতালের সিসিইউ-২ তে ভর্তি হন নওশাদ নামের একজন রোগী। রবিবার (২৯ অক্টোবর) বেলা ১১টার দিকে মারা যান তিনি। তার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে রোগীর স্বজনদের ডাক্তারদের তর্ক শুরু হয়। এক পর্যায়ে স্বজনরা ডাক্তারদের উপর চড়াও হন। এ সময় তাদের আঘাতে একজন ডাক্তার ও দুই আনসার সদস্য আহত হন। আহত ডাক্তারের নাম শামীমুর রহমান ও আনসার সদস্যরা হলেন বাদল হালদার ও শাহ আলম। ঢামেক হাসপাতালের ২ নম্বর ভবনের তৃতীয় তলায় এ ভাঙচুর ও মারধরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার প্রতিবাদে ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগ বন্ধ করে রেখেছে ডাক্তাররা। বেলা ২টা ১০ থেকে জরুরি বিভাগ বন্ধ থাকায় রোগীরা আসলেও তাদের ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। ফলে চিকিৎসা বঞ্চিত হয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে অন্য রোগীদের।

এদিকে হাসপাতালের ডাক্তার, স্টাফ ও আনসার সদস্যরা মিলে রোগীর স্বজনদেরও মারধর করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে তাদের দুই জনকে শাহবাগ থানায় পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে ও একজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আটক দু’জন হলেন মাকসুদ ও রিয়াদ।

আমিনুল ইসলাম নামে নিচ তলায় থাকা রোগীর এক স্বজন জানান, রোগী মারা যাওয়ার পর স্বজনরা অবহেলার অভিযোগ করেন। এক পর্যায়ে ডাক্তারদের গায়ে হাত তোলেন। পরে হাসপাতালের আনসার, ডাক্তার ও স্টাফরা মিলে রোগীর স্বজনদের আটকে রেখে মারধর করে।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/এআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue