বুধবার, ০৮ এপ্রিল, ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৬

পদ্মায় ফেলা হচ্ছে মৃত গবাদীপশু ও কুকুর-বিড়াল

রাজশাহী প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৪ মার্চ ২০২০, বুধবার ০৩:৩০ পিএম

পদ্মায় ফেলা হচ্ছে মৃত গবাদীপশু ও কুকুর-বিড়াল

রাজশাহী : রাজশাহীর পদ্মা নদীতে অবাধে ফেলা হচ্ছে মৃত গবাদীপশু ও কুকুর-বিড়াল থেকে শুরু করে পশু-পাখি। এতে করে নদীর পানি ও পরিবেশ দুষিত হচ্ছে। তবে কোন পক্ষকেই এ নিয়ে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না।

পর্যটকদের দাবি, নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষকে সচেতন করা থেকে শুরু করে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সমন্বিত উদ্যোগে এই পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ সম্ভব।

মঙ্গলবার সরেজমিনে রাজশাহী সংলগ্ন পদ্মার তীর ঘুরে দেখে যায়, নদীর তীরে বেশ কয়েক জায়গায় মৃত প্রাণী ফেলে রাখা হয়েছে। প্রাণীগুলো পচে-গোলে তা থেকে পুরো এলাকায় দুর্গন্ধ সৃষ্টি হচ্ছে। কাকসহ অন্যান্যা প্রাণী এসে সেই মৃত প্রাণীর দেহ ঠুকরে ঠুকরে খাচ্ছে। দেহগুলো এভাবে দিনের পর দিন নদীর ধারে পড়ে থাকছে, নয়তো পানিতে ভাসছে। যার ফলে র্দুগন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে পাড়সহ আশপাশের এলাকায়।

তীরের লালনশাহ মুক্ত কঞ্চের দক্ষিণে বিশাল পদ্মার মনোরম দৃশ্য উপভোগ করতে আসা সাবরিনা আক্তার জানান, রাজশাহীতে বিনোদন কেন্দ্র বলতে প্রথমেই আমরা পদ্মা নদীকেই চিনি। সকল শ্রেণী পেশার মানুষ পরিবার নয়তো বন্ধুবান্ধব নিয়ে এই নদীর বিশালতা উপভোগ করতে আসেন। তবে নদীর পানিতে বিভিন্ন প্রাণীর মৃত দেহ দেখে গা গুলিয়ে আসে, র্দুগন্ধে তীরের আশপাশে বসা যায়না। শেষ পর্যন্ত বিনোদনটাই মাটি হয়ে যায়। তাছাড়া এসব পরিবেশের জন্যও ক্ষতিকর।

একই অভিযোগ করে টি-বাঁধ এলাকায় স্বপরিবারে বেড়াতে আসা লিয়াকত আলী বলেন, আশপাশের এলাকার মানুষ তাদের পোষ্য প্রাণী নদীর তীরে এনে ফেলে যায়। আবার অনেক সময় সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত প্রাণীগুলোও নদীতে ফেলা হয়। এভাবে না ফেলে মৃত প্রাণীগুলো মাটি চাপা দিলে পরিবেশ ও নদী দুইই রক্ষা পায়।

এবিষয়ে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি লিয়াকত আলী বলেন, জেলা প্রশাসনসহ স্থানীয় পুলিশ প্রাশাসন, পানি উন্নয়ন বোর্ড, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) ও নদী সংলগ্ন উপজেলার প্রশাসনগুলো যদি সমন্বিতভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করে তবে এই অবস্থা থেকে বের হওয়া সম্ভব।

তিনি আরো বলেন, এমন অনেক বিষয় যা আমাদের নিজেদের জন্যই ক্ষতিকর তা নিয়ে নদী তীরবর্তী এলাকাগুলোতে সচেতনতামূলক প্রচারণার চালানো প্রয়োজন। এমনটা করা গেলে নদীর পরিবেশ সুন্দর করা সম্ভব।

সোনালীনিউজ/এএস

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue