শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯, ৩ কার্তিক ১৪২৬

পরীক্ষায় ফেল করেছেন আশরাফুল!

ক্রীড়া ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০১ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার ০৫:৩৭ পিএম

পরীক্ষায় ফেল করেছেন আশরাফুল!

ঢাকা: বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) এবার শর্ত বেঁধে দিয়েছে, জাতীয় লিগ খেলতে হলে ফিটনেসের পরীক্ষায় (বিপ টেস্ট) ‘১১’ পেতে হবে। সেই পরীক্ষার প্রথম পর্ব শেষ হলো মঙ্গলবার (১ অক্টোবর)। এই পরীক্ষায় বেশির ভাগ ক্রিকেটারই উত্তীর্ণ হয়েছেন। তবে ‘ফেল’ করেছেন অনেক তারকা ক্রিকেটার। এর মধ্যে আছেন মোহাম্মদ আশরাফুল। শুধু আশরাফুল নন ‍ফেল করাদের তালিকায় আছেন আব্দুর রাজ্জাক, নাসির হোসেন, ইলিয়াস সানিদের মতো ক্রিকেটাররাও। এদের কেউই বিপ টেস্টে ১০ পেরোতে পারেননি। বেশিরভাগই ৯-এর ঘরে আটকে গেছেন। 

আশরাফুল পেয়েছেন ৯.৭। তবে তিনি আশা করছেন আগামী এক সপ্তাহে আরও উন্নতি করার। আশরাফুল সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন,‌ ‘আমি ৯.৭ পেয়েছি। সাত-আট দিন অনুশীলন করলে আশা করি আরও উন্নতি করতে পারব। তবে এই উদ্যোগ ইতিবাচক, এটিই হওয়া উচিত। আজ বেশির ভাগই ১০.৫ থেকে ১১ দিয়েছে। এই উন্নতিটা হয়েছে ফিটনেসের এই বাধ্যবাধকতার থাকার কারণেই।’

নির্বাচক হাবিবুল বাশারও খুশি খেলোয়াড়দের ফিটনেসের উন্নতি নিয়ে, ‘এটা গতবারও ছিল, এবার আগে থেকেই বলা হয়েছে। তবে মানদণ্ডটা আগের বারের চেয়ে বাড়ানো হয়েছে। বাড়ানোর কারণেই একটু আলোচনা হয়েছে। তবে বেশির ভাগ খেলোয়াড়ই এটাকে ইতিবাচকভাবে নিয়েছে। এটা আমাদের ক্রিকেটের জন্যই ভালো। ঢাকার বাইরের ফল আমরা এখনও পাইনি, তবে ঢাকায় যারা দিয়েছে তাদের ৯৬ ভাগই পাশ করেছে।’

মঙ্গলবার যারা বিপ টেস্টে ১১ পাননি তাদের সামনে সুযোগ থাকছে। যতক্ষণ না এই মানদণ্ড অর্জিত না হয়েছে ততক্ষণ ক্রিকেটারদের ব্লিপ টেস্ট দিতে হবে। হাবিবুল বলছেন,‌ ‘এ সুযোগটা সবার জন্যই থাকছে। যতক্ষণ সে ওই লেভেলে পৌঁছাতে না পারছে আমরা তার বিপ টেস্ট নেব। দ্বিতীয়বার, তৃতীয়বার যতবার লাগে নেব। আমরা যদি বলে দিতাম যে লক্ষ্যটা এমনি এমনি দেওয়া, সে ক্ষেত্রে এতটা গুরুত্ব দিত না ক্রিকেটাররা। এখন কী হলো সবাই অন্তত একটা পর্যায়ে গিয়েছে, চেষ্টা করেছে। বুঝতে পেরেছে যে তাদের উন্নতি করতে হবে।’

সোনালীনিউজ/আরআইবি/এমএএইচ