বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭

প্রতিজ্ঞা পালন শেষে ৭৮৭ দিনপর বাসায় ফিরলেন রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২৬ মার্চ ২০২০, বৃহস্পতিবার ০৩:২০ পিএম

প্রতিজ্ঞা পালন শেষে ৭৮৭ দিনপর বাসায় ফিরলেন রিজভী

ঢাকা : ‘প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছিলেন যতদিন না দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি না পাবেন ততদিন তিনি কার্যালয়ের থাকবেন। ’ এনিয়ে দলের ভেতরে বাইরের নানা সমালোচনার পরও কেন্দ্রীয় কার্যালয় ছেড়ে যাননি বিএনপির সিনিয়র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।  তবে তিনি সরকারের নির্বাহী আদেশে ৭৭৭ দিন পর বুধবার খালেদা জিয়া মুক্তি পান। প্রতিজ্ঞা অনুযায়ী রিজভীও ৭৮৭ দিন পর নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন।

বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) দুপুরের দিকে রিজভী আহমেদ নিজের ব্যবহৃত নানা জিনিস ও বইপত্র নিয়ে কার্যালয় ছেড়ে মোহাম্মদপুরের বাসায় যান।  এখন থেকে দলীয় প্রয়োজনে যতটুকু সময় দরকার ততটুকু সময় কার্যালয়ে থাকবেন তিনি।

রাজনৈতিক উত্তাপের মধ্যে ২০১৮ সালের ৩০ জানুয়ারি নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অবস্থান নেন রিজভী। দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মামলার বিচারাধীন থাকাবস্থায় সেসময় রাজনৈতিক পরিবেশ ছিল উত্তেজনাপূর্ণ। ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় রায়ের দিন ধার্য করেছিলেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫। সেদিন আদালত খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সাজা হয়। ওইদিনই পুরনো ঢাকার সাবেক পরিত্যক্ত কেন্দ্রীয় কারাগারে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়।

রায়ের ঠিক আগের দিন গুলশানে নিজ কার্যালয়ে সর্বশেষ সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন খালেদা জিয়া। তখনই সবার মধ্যে আশঙ্কা হয় সাজা হলে পরে নেতাকর্মীরা আরো চাপের মধ্যে পড়বেন। সেই আশঙ্কা কার্যালয়ে অবস্থান নেয়া রিজভী নিজে থেকেই প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন যে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত দলীয় কার্যালয়েই অবস্থান নেবেন তিনি।

একপর্যায়ে দলীয় কার্যালয়ের তৃতীয় তলায় ছোট একটি রুমে (সাড়ে ৪ বাই সাড়ে ৯ ফুট) কক্ষে রাত্রিযাপন শুরু করেন তিনি। সেখানে নিয়মিত দলীয় নেতাকর্মীরা তার সঙ্গে কুশল বিনিময় ও প্রয়োজনীয় কাজের জন্য যাতায়াত করতেন। একসময় তা অনেকটা ‘সেকেন্ড হোম’ হিসেবে রূপ নেয়।

নেতাকর্মীরাও অনেকে এটাকে রিজভী আহমেদ নিজের ঘর বানিয়ে ফেলছেন বলেও সমালোচনা করতেন। দেখতে দেখতে ৭৮৭ দিন কার্যালয়ে পার করেন রিজভী।

জানা গেছে, কার্যালয়ে অবস্থান শুরুর পর থেকে তিনি এখানেই রাত্রিযাপন করেছেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে একাধিকবার কার্যালয় থেকে হুট করে বের হয়ে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে ঝটিকা মিছিল করেছেন তিনি। পরে আবার এখানেই ফিরে এসেছেন।

মিছিল করতে গিয়ে একাধিকবার হামলার শিকারও হয়েছেন রিজভী ও তার সঙ্গে থাকা নেতাকর্মী। সম্প্রতি হামলার শিকার হয়ে হাসপাতালে থাকতে হয়েছিল তাকে।

কার্যালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, আহত হয়ে কয়েকদিন হাসপাতালে থাকা ছাড়া পুরো সময় রিজভী আহমেদ কার্যালয়েই রাত্রিযাপন করেছেন।

দলীয় কার্যালয় ছেড়ে যাওয়ার সময় কার্যালয়ের কর্মকর্তা কর্মচারীরা তাকে বিদায় জানান।  তারা রিজভীর জন্য বিশেষভাবে দোয়া ও শুভকামনা করেন।

বহুদিন পর দলীয় কার্যালয় হতে চলে যাওয়ার সময় রিজভী বলেন, আমি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলাম যে, চেয়ারপারসন মুক্ত না হন ততদিন পর্যন্ত দলীয় কার্যালয়েই থাকবো। কষ্ট করে থেকেছি। এই সময়ের মধ্যে আমি দলের হয়ে বিভিন্ন কার্যক্রমে সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত থেকেছি।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue