মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০১৯, ৪ আষাঢ় ১৪২৬

বাংলাদেশের হয়ে পাকিস্তানি সমর্থককে একহাত নিলেন আকাশ চোপড়া

ক্রীড়া ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৯ মে ২০১৯, রবিবার ০৭:৫০ পিএম

বাংলাদেশের হয়ে পাকিস্তানি সমর্থককে একহাত নিলেন আকাশ চোপড়া

ছবি সংগৃহীত

ঢাকা: বিশ্বকাপ সমাগত। কোন চার দল খেলবে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে? এখনই অঙ্ক কষা শুরু হয়েছে। চায়ের দোকানি থেকে আমজনতা সবাই যেন একেকজন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ। বসে নেই সাবেক ক্রিকেটাররাও। তারাও বেছে নিচ্ছেন তাদের সেমিফাইনালের চার দল। অনেক সাবেকদের চোখ বলছে, এবার বিশ্বকাপের চার সেমিফাইনালিস্ট দল হলো, ভারত, অস্ট্রেলিয়া,  ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড।কেউ আবার নিউজিল্যান্ডকে বাদ দিয়ে রাখছেন দক্ষিণ আফ্রিকাকে।

কোনও ক্রিকেট তারকা আবার পাকিস্তানকে সেমিফাইনাল খেলার যোগ্য দল হিসেবে বেছে নিচ্ছেন। এখনও পর্যন্ত বাংলাদেশ বিশ্বকাপের শেষ চারে খেলতে পারে বলে জানায়নি কেউ। তবে ভারতের  সাবেক ক্রিকেটার তথা ধারাভাষ্যকার আকাশ চোপড়া বাংলাদেশের সম্ভাবনা দেখছেন। তিনি সেটাই লিখেছিলেন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে। আর তাতেই তিনি পাকিস্তানি সমর্থকদের রোষের মুখে পড়েন।

বিশ্বকাপে তিনি কোন দলগুলোকে সেমিফাইনালে দেখছেন? এরই বিশ্লেষণ ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করেছিলেন আকাশ চোপড়া। বাংলাদেশ দলের বেশ প্রশংসাই করেন তিনি। ভারত, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার পর চতুর্থ দল হিসেবে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে খেলার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করেন আকাশ চোপড়া। যুক্তি হিসেবে তিনি বলেন, '২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু গত বছর ওরা এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠেছে। বাংলাদেশকে কখনওই খাটো করে দেখা উচিত নয়।'

পাকিস্তানের বদলে বাংলাদেশকে তিনি বিশ্বকাপের শেষ চারে রেখেছিলেন। এই ব্যাপারটাকেই ভালোভাবে নেয়নি পাকিস্তানি সমর্থকরা। আকাশ চোপড়াকে খোঁচা দিয়ে মুনিব নামের এক পাকিস্তানি সমর্থক লিখেছেন, ‘হাসি পেল এমন কথা শুনে। বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে নাকি খেলবে বাংলাদেশ! হাহাহা।’

এর পরই মাশরাফিদের পাশে দাঁড়িয়ে জবাব দেন আকাশ চোপড়া। পাকিস্তানি সমর্থককে তিনি পাল্টা লেখেন, ‘আপনাদের মতো কারও বাংলাদেশকে নিয়ে হাসা উচিত নয়। তারা অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছে। গত এশিয়া কাপেও ফাইনাল খেলেছে। এই দুই টুর্নামেন্টে পাকিস্তান কোথায় শেষ করেছে? সবাইকে সম্মান দেওয়াটা এবার শেখা উচিত। আপনার জন্য ভালোবাসা রইল।’

সোনালীনিউজ/আরআইবি/জেডআই