বুধবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬

বাবরি মসজিদ রায়ের দিনেই করিডোর খুলে দিল পাকিস্তান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৯ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার ০৯:৩৬ পিএম

বাবরি মসজিদ রায়ের দিনেই করিডোর খুলে দিল পাকিস্তান

ঢাকা: পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতীয় শিখ তীর্থযাত্রীদের জন্য করতারপুর করিডোরের উদ্বোধন করেছেন। শনিবার (৯ নভেম্বর) পাঞ্জাব প্রদেশের নরোয়াল জেলায় গুরুদ্বার দরবার সাহিবে করিডোরটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন তিনি। গুরু নানকের ৫৫০ তম জন্মবার্ষিকীর আগে ভারতীয় শিখ তীর্থযাত্রীদের জন্য বিশেষ উপহার হিসেবে করিডোরটি খুলে দিচ্ছে ইমরান সরকার। 

এর মাধ্যমে ভারতীয় শিখ তীর্থযাত্রীরা ভিসা ছাড়া পাকিস্তানের অভ্যন্তরে থাকা ওই উপাসনালয়ে যেতে পারবেন। প্রত্যাশার চেয়ে কম সময়ে করিডোরটি নির্মিত হওয়ায় উচ্ছাস প্রকাশ করে ইমরান খান বলেন, একবছর আগে করতারপুরের বিষয়টি আমি গুরুত্বের সঙ্গে উপলদ্ধি করি। মাত্র ১০ মাসের এত অল্প সময়ে আমার সরকার করিডোরটি বানাবে, তা আমার ধারণায় ছিল না।

এসময় ভারত থেকে আগত তীর্থযাত্রীদের গুরুনানকের ৫৫০তম জন্মবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানান পাক প্রধানমন্ত্রী। ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ, পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরেন্দ্র সিংহ, কংগ্রেস বিধায়ক নভজ্যোত সিংহ সিধু, বিজেপি এমপি সানি দেওল, ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হরদীপ পুরি, হরসিমরত কউরসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে শনিবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি গুরুদাসপুরে এই করিডোরের উদ্বোধন করেন। 

এরপর বিকালে পাকিস্তানের প্রান্ত থেকে সে দেশের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সেটিকে উন্মুক্ত ঘোষণা করেন। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ধন্যবাদ জানিয়ে করতারপুর করিডোরের উদ্বোধন করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শনিবার মোদির উপস্থিতিতে পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের নরোয়াল জেলায় গুরুদ্বার দরবার সাহিবের উদ্দেশে ভারত থেকে রওনা দেয় ৫৫০ জন তীর্থযাত্রীদের একটি দল।

শিখ তীর্থযাত্রীদের পাকিস্তান রওনা দেয়ার আগে করিডোর গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সহযোগিতার জন্য ইমরান খানকে ধন্যবাদ জানান নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, ‘ভারতীয়দের আবেগকে সম্মান জানানোর জন্য পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ধন্যবাদ জানাই। গুরুনানকের ৫৫০তম জন্মবার্ষিকীর আগে করিডোরের উদ্বোধন হওয়ায় আমরা খুব খুশি। ’

এদিকে শনিবার সকালেই ভারতের প্রধানবিচারপতি রঞ্জন গগৈর নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের বেঞ্চে বাবরি মসজিদ মামলার রায় ঘোষণা করে। রায়ে মসজিদটির জায়গায় হিন্দুদের মন্দির নির্মাণের রায়ের পাশাপাশি নতুন একটি মসজিদ নির্মাণে শহরের গুরুত্বপূর্ণ জায়গা জমি বরাদ্দেরও নির্দেশ দিয়েছেন ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। নতুন ওই করিডোরটি পাঞ্জাবের ডেরা বাবা নানক মাজারকে করতারপুরের দরবার সাহিবের সঙ্গে সংযুক্ত করবে, যা পাকিস্তানের পাঞ্জাবপ্রদেশের নরওয়াল জেলায় অবস্থিত আন্তর্জাতিক সীমারেখা থেকে মাত্র চার কিলোমিটার দূরে।

এটিই সেই জায়গা, যেখানে শিখ ধর্মের প্রতিষ্ঠাতা গুরু নানক দেব তার জীবনের শেষ ১৮ বছর কাটিয়েছেন বলে বিশ্বাস করা হয়। শিখ তীর্থযাত্রীদের কথা বিবেচনা করে গত বছরের শেষদিক থেকেই এই করিডোর বানানোর কাজ শুরু হয়েছিল।

শিখ মতবাদের উৎপত্তি পাঞ্জাবে; ১৯৪৭ সালে ওই অঞ্চলটি ভারত পাকিস্তানের মধ্যে ভাগ হয়ে যায়। মতবাদটির উদ্ভাবকখ্যাত গুরু নানক ষোড়শ শতকে ভারতীয় সীমান্ত থেকে সাড়ে ৪ কিলোমিটার দূরের এ গুরুদুয়ারা দরবার সাহিবেই মারা যান বলে অনুমান তার অনুসারীদের। এ ধারণার উপর ভিত্তি করেই সেখানে শিখদের এ উপাসনালয় গড়ে উঠেছে।

মূল উপাসনালয়টি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পর ১৯২৫ সালে সেটি ফের নির্মাণ করা হয়। ২০০৪ সালে পাকিস্তান সরকার সেটি পুনঃসংস্কার করে। গত বছর থেকে এ উপাসনালয় ও এর আশপাশসহ মোট ৪২ একর জমিতে জাদুঘর, লাইব্রেরি, ডরমেটরি, লকার রুম, ইমিগ্রেশন পয়েন্টসহ বেশকিছু স্থাপনা নির্মাণে কাজ শুরু হয়। গুরুদুয়ারা দরবার সাহিব করতারপুর উপাসনালয়টির অবস্থান শিখদের কাছে গুরুদুয়ারা জনম আস্তানার পরেই। এটিও পাকিস্তানেই অবস্থিত।

সোনালীনিউজ/এমএএইচ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue