রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬

বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধান কিনছেন জেলা প্রশাসক

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৯ মে ২০১৯, রবিবার ০৯:৫৮ পিএম

বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধান কিনছেন জেলা প্রশাসক

হবিগঞ্জ: বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রকৃত কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনছেন জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ ও খাদ্য অফিসের কর্মকর্তারা। হবিগঞ্জের বানিয়াচং থেকে ধান ক্রয় শুরু করেন তিনি।

রোববার (১৯ মে) বিকেলে সদর উপজেলার ৩নং দক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নের দোয়াখানী গ্রামের হাজী আহমদ উল্লার বাড়ি থেকে শুরু হয় আনুষ্ঠানিক এই ধান ক্রয় কার্যক্রম। এ দিন ৬ জন কৃষকের কাছ থেকে ১৫০ মণ ধান কেনা হয়। প্রতি কেজি ধান কেনা হয় ২৬ টাকা দরে।

উপজেলা খাদ্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, কৃষকরা যাতে ধানের দাম পায় ও প্রকৃত কৃষক যাতে সরকারের কাছে ধান বিক্রি করতে পারে সেজন্য উপজেলা প্রশাসন থেকে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার যাছাই-বাছাই করে কৃষকদের তালিকা প্রস্তুত করে দিয়েছেন। এবার এ উপজেলা থেকে ১ হাজার ৯০ মেট্রিক টনের বেশি ধান কেনা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন খন্দকার বলেন, দেশে কৃষকরা ঠিকমতো ধানের দর পাচ্ছেন না। তাই বানিয়াচংয়ের গ্রামে গ্রামে গিয়ে প্রকৃত কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনা হচ্ছে। যাতে করে কৃষকরা প্রকৃত দাম পান। সরাসারি কৃষকদের তালিকা করে দেয়া হয়েছে। একজন কৃষক কমপক্ষে আধা টন ধান সরকারকে দিতে পারবেন।

ধান বিক্রি করতে আসা দোয়াখানী গ্রামের কৃষক মোশাররফ ও শের আলী বলেন, সিন্ডিকেটের কারণে তারা সরকারি গোডাউনে ধান দিতে পারেন না। তবে এবার গ্রামে এসে ধান কেনায় তারা সহজেই ধান বিক্রি করতে পারবেন। এতে কৃষকরা হয়রানি হবে না। ২৬ টাকা কেজি ধান বিক্রি করে তাদের লাভ থাকছে। তবে ধান কেনার পরিমাণ আরও বাড়ানোর দাবি করেন তারা।

কৃষক নায়েব আলী ও সামাদ মিয়া জানান, কমপক্ষে প্রতিটি উপজেলা থেকে ২ থেকে ৩ হাজার মেট্রিক টন ধান কেনা উচিত। তাতে কৃষকরা কিছুটা লাভবান হতো। এত অল্প ধান কেনায় সব কৃষক এ সুবিধা পাবে না। তারপরও উপজেলা প্রশাসন থেকে যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে তা কৃষকদের জন্য ভালো হবে।

উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা খালেদ হোসাইন বলেন, প্রকৃত কৃষকদের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। এসব কৃষকদের কাছ থেকে ধান কেনা হবে। কোনো ফড়িয়া বা দালালের কাছ থেকে ধান কেনার কোনো সুযোগ নেয়।

জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ বলেন, কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে। সরকার কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাই প্রকৃত কৃষকদের বাছাই করে তাদের কাছ থেকে প্রতিটি ইউনিয়ন থেকে ধান কেনা হবে। কোনোভাবেই কোনো সিন্ডিকেট ধান দিতে পারবে না। বেশি সংখ্যক কৃষক যাতে ধান বিক্রি করতে পারে সে জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রতিটি ইউনিয়ন থেকে কমপক্ষে ৪০ জন কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি ধান ক্রয় করা হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকার, সহকারি কমিশনার (ভূমি) সাব্বির আহমেদ আকুঞ্জি, উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা খালেদ হোসাইন, জেলা টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি প্রদীপ দাস সাগর, জেলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি শাকিল চৌধুরী, প্রেসক্লাব সেক্রেটারি তোফায়েল রেজা সোহেল, সাংবাদিক ফোরামের সেক্রেটারি রায়হান উদ্দিন সুমন প্রমুখ।

সোনালীনিউজ/এমএইচএম

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue