রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

ব্যাংকঋণের সুদহার কমাতে নতুন নির্দেশনা

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২১ মে ২০১৯, মঙ্গলবার ০২:৩৬ পিএম

ব্যাংকঋণের সুদহার কমাতে নতুন নির্দেশনা

ঢাকা : যেসব ব্যাংক ৯ শতাংশ সুদে ঋণ দেবে না, সেসব ব্যাংক আমানত হিসেবে সরকারি তহবিলের অর্থ পাবে না বলে নির্দেশনা দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। ব্যাংকঋণের সুদহার কমানোর জন্য এই নতুন নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। এমনকি যারা ইতোমধ্যে ৯ শতাংশে ঋণের সুদহার নামিয়ে আনতে পারেনি, সেসব ব্যাংকও এ সুবিধা পাবে না।

সোমবার (২০ মে) অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে এমন কঠোর নির্দেশনা দিয়ে আদেশ জারি করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে- নিজস্ব তহবিলের অর্থ, ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ৬ শতাংশের বেশি হারে আমানত রাখা যাবে না।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা যায়, সুদের হার কমিয়ে আনার জন্য সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্পষ্ট নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও নানা সুযোগ-সুবিধা নিয়েও ব্যাংকগুলো এতদিন তা কার্যকর করেনি। কয়েকটি সরকারি ব্যাংক নির্দেশনা মানলেও বেসরকারি ব্যাংকগুলো উল্টো সুদের হার বাড়িয়ে দিয়েছে। বেসরকারি ব্যাংকগুলো নানা অজুহাতে সুদহার শুধু বাড়ায়নি, গ্রাহকদের ওপর নানা ধরনের চার্জও আরোপ শুরু করে।

জানা গেছে, নানা রকম হিডেন চার্জে সাধারণ গ্রাহকদের নাভিশ্বাস উঠেছে। বিশেষ করে সৎ ও প্রকৃত উদ্যোক্তা, ভোক্তা ঋণগ্রহীতারা ঋণের আষ্টেপৃষ্ঠে বাঁধা পড়ে যাচ্ছে। অথচ সুদহার কমানোর ঘোষণা ব্যাংক মালিকরাই ঘটা করে দিয়েছিলেন। সে জন্য তারা বেশ কয়েকটি সুবিধাও সরকারের কাছ থেকে আদায় করে নেন।

ব্যাংকগুলো যেসব সুবিধা সরকারের কাছ থেকে আদায় করেছে, সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- সরকারি আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখা, সিআরআর এক শতাংশ কমানো, ঋণ আমানতের হার (এডিআর) সমন্বয়সীমার সময় বাড়ানো এবং রেপো রেট ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ থেকে ৬ শতাংশ করা।

সরকারের কাছ থেকে এসব সুবিধা নেওয়ার পরও ব্যাংকগুলো সিঙ্গেল ডিজিটে সুদহার আরোপ করেনি; বরং নতুন নতুন অজুহাত দাঁড় করিয়ে সুদহার বাড়িয়েছে, যা কর্মসংস্থান ও প্রবৃদ্ধির পরিপন্থি বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে দেওয়া প্রজ্ঞাপনে যা রয়েছে-

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের উপসচিব জেহাদ উদ্দিনের সই করা প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় সরকার থেকে প্রাপ্ত তহবিল, সরকারি, আধাসরকারি প্রতিষ্ঠান, স্বায়ত্তশাসিত ও আধাস্বায়ত্তশাসিত সংস্থার মোট নিজস্ব তহবিলের অর্থ ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ৬ শতাংশের বেশি হারে আমানত রাখা যাবে না। প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, যেসব ব্যাংক ২০১৮ সালের ২ আগস্ট প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে, তারা এ সুবিধা প্রাপ্য হবে না। নির্দেশনাটি জারির সময় থেকেই কার্যকর হয়েছে।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নির্দেশনাটি বাস্তবায়ন হলে শিল্প-বাণিজ্যে গতি আসবে। বর্তমানে জ্বালানি সংকটসহ অন্যান্য সমস্যা মোকাবেলার পর বাড়তি সুদ পরিশোধ করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন গ্রাহকরা। গত বছর কয়েকটি ব্যাংক সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে নামানোর ঘোষণা দিলেও কার্যত তা ছিল ‘শুভঙ্করের ফাঁকি’।

এ অবস্থাকে ব্যাংকগুলোর ‘ডাকাতি কারবার’ বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

বিষয়টি নিয়ে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী গণমাধ্যমকে বলেছেন, উদ্যোক্তা তৈরিতে বাংলাদেশ ব্যাপক সম্ভাবনাময়। কিন্তু উচ্চসুদহার ও জ্বালানি সংকটে এখানে ব্যবসাশিল্প গড়া অনেক চ্যালেঞ্জ হয়ে পড়ে। বেসরকারি ব্যাংক মালিকদেরও শিল্প-কারখানা রয়েছে। তথাপি তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েও ব্যাংক ঋণের সুদ হার কমায়নি।

সরকারের সর্বশেষ এ উদ্যোগ দেশে শিল্প বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে জানান এই অর্থনীতিবিদ। তিনি একই সঙ্গে সুদের ‘সিম্পল রেট’ বাস্তবায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেন, যা অর্থমন্ত্রী ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue