বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর, ২০২০, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭

‘ভণিতা করতে পারি না’

বিনোদন প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার ০১:২২ পিএম

‘ভণিতা করতে পারি না’

ঢাকা : অভিনেত্রী অর্চিতা স্পর্শিয়া। বিজ্ঞাপন ও ছোট পর্দায় কাজের মধ্য দিয়ে দর্শকপ্রিয়তা পান তিনি। বিশেষ করে খণ্ডনাটকে তার উপস্থিতি ছিল উল্লেখ করার মতো।

ফের নতুন ছবিতে কাজ করতে যাচ্ছেন অর্চিতা স্পর্শিয়া। নির্মাতা অনন্য মামুনের ‘নবাব এলএলবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। এফডিসিতে ছবিটির শুটিং ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে।

অভিনেত্রী জানান, বিগত ছয় মাস বই পড়া, সিনেমা দেখা কিংবা টুকিটাকি গৃহাস্থালী কাজ ছাড়া আর কিছুই করেননি। গত মে মাসের মাঝামাঝি থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুটিং শুরু হলেও তিনি কোনো নাটক বা সিনেমায় অভিনয় করেননি। অনন্য মামুনের ছবি দিয়েই ব্যস্ততা শুরু হতে যাচ্ছে তার। কিন্তু করোনার দিন এখনো পুরো শেষ হয়নি, ফলে অভিনয়ে ফিরলেও স্পর্শিয়া কিছুটা উদ্বিগ্ন। ‘সবকিছু তো এখন চলছে। যদিও করোনা নিয়ে মনের মধ্যে এক ধরনের ভয়ও রয়েছে!’

অভিনেত্রীর মনে এমন শঙ্কা থাকলেও ‘নবাব এলএলবি’ ভালো একটি ছবি হবে এ নিয়ে কোনো দ্বিধা নেই তার। অকপটে বলেন, ‘ছবিটির স্ক্রিপ্ট ব্যতিক্রম। গল্পটি বেশ ভালো লেগেছে তাই অভিনয় করছি। ভালো একটি ছবি হবে।’ চলচ্চিত্রে অর্চিতা স্পর্শিয়ার পথচলা শুরু হয়েছিল ২০১৭ সালে। সেটাও ছিল অনন্য মামুনেরই পরিচালিত ছবি ‘বন্ধন’। দেখতে দেখতে ছোট পর্দা ছেড়ে সিনেমাতেই থিতু হতে চলেছেন। একে একে অভিনয় করেছেন ‘আবার বসন্ত’, ‘ইতি, তোমারই ঢাকা’, ‘কাঠবিড়ালী’, ‘মানুষের বাগান’ ছবিগুলোতে। যদিও করোনা মহামারীর কারণে আটকে আছে নূরুল আলম আতিকের ছবি ‘মানুষের বাগান’।

বর্তমান চলচ্চিত্র পরিস্থিতি নিয়ে স্পর্শিয়া বলেন, ‘এখনো ভালো ভালো ছবি হচ্ছে। অনেক প্রতিভাবান অভিনয়শিল্পীরা বিভিন্ন ধরনের কাজ করছেন।’ ছবি ভালো হলেও অন্যদিকে দিন দিন বন্ধ হয়ে যাচ্ছে প্রেক্ষাগৃহ, এই প্রেক্ষিতে স্পর্শিয়ার অভিমত, ‘পৃথিবীর কোথাও তো এখন আর সিনেমা হল নেই। এমনকি হলিউড কিংবা বলিউডে হলের অপেক্ষায় কেউ বসেও নেই। নেটফ্লিক্স, ডিজনি হটস্টার, হইচইয়ের মতো ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের দিকেই ঝুঁকছেন সবাই। তাই প্রেক্ষাগৃহে বন্ধ হয়ে গেলেও সিনেমার যে খুব বেশি ক্ষতি হবে এমনটা নয়। কিন্তু সিনেমা হলে সিনেমা দেখার যে ঐতিহ্য বা আনন্দ সেটা হারিয়ে যাবে।’ অনন্য মামুনের ‘নবাব এলএলবি’ও মুক্তি পাবে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম আইফ্লিক্সে। এ ছবি অনলাইনে মুক্তি পেলেই হয়তো বোঝা যাবে কোন পথে হাঁটতে যাচ্ছে ভবিষ্যতের সিনেমাশিল্প।

এদিকে ‘নবাব এলএলবি’তে স্পর্শিয়ার সঙ্গে রয়েছেন শাকিব খান, মাহিয়া মাহি ও রাশেদ মামুন অপুসহ অনেকেই। স্পর্শিয়া বলেন, ‘তাদের সঙ্গে কাজ করতে পারাটাই আসলে আমার জন্য আনন্দের। তাদের অভিনয়ও আমার খুব ভালো লাগে। সেজন্য নিজেকেও তাদের পাশে ফুটিয়ে তুলতে হোমওয়ার্ক চালিয়ে যাচ্ছি। প্রতিদিন পরিচালকের সঙ্গে চরিত্র নিয়ে বসছি। আগের চেয়ে নিজেকে যেন আরো ভালোভাবে পর্দায় উপস্থাপন করতে পারি তার প্রস্তুতি নিচ্ছি।’ কিন্তু আপনার চরিত্রটি কী? এ নিয়ে দর্শকদের কৌতূহল রয়েছে। ‘আমরা এখনই তা প্রকাশ করতে চাচ্ছি না। দর্শকরা আরো কিছুদিন অপেক্ষায় থাক। এ চরিত্রে চমক রয়েছে।’ রহস্যময় সেই চরিত্রটি নিয়ে এ কথাই বললেন স্পর্শিয়া।

এ ছবিতে শাকিব খান ও মাহিয়া মাহি অভিনয় করছেন আইনজীবীর চরিত্রে, তাহলে স্পর্শিয়া কি এই ছবিতে কোনো ভুক্তভোগীর চরিত্রে কাজ করছেন? নাকি কোনো মাফিয়া গার্ল? সেই রহস্য রেখেই আপাতত শুরু হয়েছে ছবিটির শুটিং।

বর্তমানে অভিনয়ে জনপ্রিয় হলেও নিজেকে আরো পরিপক্ব করতে চান স্পর্শিয়া। তিনি বলেন, নিজের মধ্যে এখনো নায়িকা নায়িকা ভাব কাজ করে না। তবে কষ্ট করে একটি কাজ করেছি, সেটা বড়পর্দায় আসছে। আমার অভিনয় দর্শকের ভালো লাগবে নাকি খারাপ লাগবে সেটা নিয়েই বেশি ভাবছি। এর বেশি কিছু নয়। একজন অভিনেত্রী হিসেবে সব সময় চাই মানুষ আমার কাজ পছন্দ করুক।

চরিত্রের মধ্যে বৈচিত্র্য আর অভিনয়ের জায়গা আছে কি না তা-ই দেখে অভিনয় করেন এ তারকা। গল্প মনের মতো হলে ওই নাটকে কাজ করেন। স্পর্শিয়া বলেন, ‘এমনিতেও আমার বই পড়ার অভ্যাস আছে। ফলে ধৈর্য নিয়ে চিত্রনাট্য পড়তে অসুবিধা হয় না। তাই আমাকে কেউ উল্টাপাল্টা বুঝিয়ে কাজ করাতে পারে না। আবার নিজের ভালো না লাগলে সে কাজটিও করি না।’

অভিনয়ের পাশাপাশি ইউটিউবে নিজের চ্যানেলেও উপস্থাপনা করেন। এক্ষেত্রে তার নিজস্ব একটি দল আছে বলে জানান।

বড় পর্দায় অভিনয়ের সঙ্গে ছোট পর্দার অভিনয়ে বিস্তর ফারাক বলে মন্তব্য করেন স্পর্শিয়া। তিনি বলেন, ‘সিনেমায় অনেক সময় দিতে হয়। নাটকে যেমন চিত্রনাট্য পড়লাম, কসটিউম গুছালাম তারপর চলে গেলাম শুটিংয়ে। দুদিন শুটিং করেই কাজ শেষ। কিন্তু সিনেমার বিষয়টি তো আলাদা। এখানে প্রতিটি কাজ অনেক ভেবেচিন্তে করতে হয়। একটি সিনেমা করার জন্য দুই থেকে তিন মাসের প্রস্তুতি থাকে। শুটিংয়ের পরেও ডাবিংসহ নানা কাজ করতে হয়। সে কারণে দীর্ঘদিন নাটকে নেই। নাটক আর সিনেমা একই সঙ্গে চালিয়ে যেতে চাই না। যেকোনো একটিতে ভালোভাবে কাজ করতে চাই। আর এখন যেহেতু সিনেমা করছি। সামনে আরো কয়েকটি সিনেমার কাজ আছে। সবমিলিয়ে শিগগিরই নাটকে কাজ করার পরিকল্পনা নেই।’

চলচ্চিত্রে অভিনয়ের ব্যাপারে স্পর্শিয়া বলেন, ‘কতটুকু প্রস্তুত হয়েছি, সেটা বলতে পারব না। তবে প্রতিনিয়ত নিজেকে প্রস্তুত করছি। এমন নয় যে, আমি পুরোপুরি নাচগানে ভরপুর চলচ্চিত্র করছি বা করব। আমার অভিনয় করার সুযোগ আছে, ভালো গল্প এবং ভালো কিছু দিতে পারব এমন চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে চাই। তবে বাণিজ্যিক ছবিতে খুব বেশি অভিনয় করতে চাই না। কারণ এ ধরনের চলচ্চিত্রে অভিনয়টা ঠিক উপভোগ করি না।’

টিভি পর্দায় ২০১১ সালে ‘অরুণোদয়ের তরুণ দল’ নাটকের মাধ্যমে অভিনয় শুরু করেন স্পর্শিয়া। পেছন ফিরে তাকানো হয়ে ওঠেনি আর। পরে ২০১৩ সালে ‘ইম্পসিবল-৫’ নাটকের মাধ্যমে দর্শকদের হূদয়ে স্থান পান। রীতিমতো তারকা বনে যান। সে জনপ্রিয়তার পালে হাওয়া লাগে বিটিভিতে প্রচারিত নাটক ‘উজান গাঙের নাইয়া’ প্রচারের পর। এখন তো পুরোদস্তুর নায়িকা।

নিজের ব্যাপারে এ তারকা বলেন, ‘আমার মধ্যে লুকোচুরি বলে কিছু নেই। কথায় কথায় সব বলে দেওয়া লোক আমি। কখনো নিজের গোপন কিছু রাখিনি। ভালোকে ভালো, খারাপকে খারাপ মুখের ওপরই বলে দেওয়া শিখেছি। এ জন্য স্পর্শিয়াকে পড়া সহজ। পড়তেও পারেন সবাই। মিডিয়ায় আমার খুব একটা কাছের বন্ধু নেই। যারা আছেন তারা আমাকে ভালোভাবেই চেনেন। আমার কথায় তারা অনেক সময় বিরক্তও হন। বিরক্ত হলেও সমর্থন করেন। কারণ আমি সঠিকটা বলি। ভণিতা করতে পারি না।’

সোনালীনিউজ/এমটিআই