শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৩ আশ্বিন ১৪২৭

মহিমান্বিত লাইলাতুল কদর আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২০ মে ২০২০, বুধবার ১০:৪৩ এএম

মহিমান্বিত লাইলাতুল কদর আজ

ঢাকা: মাহে রমজানের ২৬ তারিখ। আজ দিবাগত রাত পবিত্র লাইলাতুল কদর। এ লাইলাতুল কদর গোটা মানবজাতির জন্য একটা পুণ্যময় রজনী। বছর ঘুরে ফিরে এসেছে আমাদের মাঝে, আল্লাহ পাক যে একটি রাত ইবাদত-বন্দেগিতে হাজার মাসের চেয়েও অধিক সওয়াব অর্জনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, সে গৌরবময় সম্মানিত ও মহিমান্বিত রজনী। কদরের রাত হাজার মাসের চেয়েও শ্রেষ্ঠ রজনী। মহান আল্লাহ এ রজনীর গুরুত্ব বোঝানোর জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ সুরা অবতীর্ণ করেছেন। পবিত্র কোরআনুল কারিমে মহান আল্লাহ ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয়ই আমি কোরআন অবতীর্ণ করেছি কদরের রাতে। আর আপনি কি জানেন কদরের রাত কি? কদরের রাত হাজার মাসের চেয়েও শ্রেষ্ঠ। সে রাতে ফেরেশতার রুহ [জিবরাইল (আ.)] অবতীর্ণ হন, প্রত্যেক কাজে তাদের প্রতিপালকের অনুমতিক্রমে। শান্তিই শান্তি সেই রাত, ফজরের সূচনা পর্যন্ত।’ (সুরা : কদর, আয়াত : ১-৫)

‘লাইল’ ও ‘কদর’ দুটি শব্দই আরবি। ‘লাইল’ শব্দের অর্থ রাত। আর ‘কদর’ শব্দের অর্থ সম্মান। পূর্ণাঙ্গ অর্থ হলো সম্মানিত রাত। তবে কদর শব্দের অর্থ আরবি ভাষা বিশেষজ্ঞদের মতে, মাহাত্ম্য, তাকদির, আদেশ ইত্যাদিও হতে পারে। লাইলাতুল কদরকে শবেকদরও বলা হয়। ‘শব’ শব্দটি ফারসি। এর অর্থও রাত। 

২৭ রমজানের প্রস্তুতির তারাবিহর পর থেকে মুমিন মুসলমান সারারাত জেগে লাইলাতুল কদর লাভে ইবাদত-বন্দেগিতে রত থাকে। মর্যাদার এ রাতে রাসুলে আরাবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জন্য উপহার স্বরূপ পবিত্র কুরআনের বাণী সুরা আলাকের প্রথম পাঁচ নাজিল হয়। আল্লাহ বলেন-
اقْرَأْ بِاسْمِ رَبِّكَ الَّذِي خَلَقَ - خَلَقَ الْإِنسَانَ مِنْ عَلَقٍ - اقْرَأْ وَرَبُّكَ الْأَكْرَمُ - الَّذِي عَلَّمَ بِالْقَلَمِ - الَّذِي عَلَّمَ بِالْقَلَمِ
অর্থ : (হে রাসুল! আপনি) পড়ুন! আপনার পালনকর্তার নামে যিনি সৃষ্টি করেছেন। সৃষ্টি করেছেন মানুষকে জমাট রক্ত থেকে। পাঠ করুন, আপনার পালনকর্তা মহা দয়ালু, যিনি কলমের সাহায্যে শিক্ষা দিয়েছেন, শিক্ষা দিয়েছেন মানুষকে যা সে জানত না। (সুরা আলাক : আয়াত ১-৫)

মহিমামণ্ডিত মর্যাদার এ রাতের বর্ণনায় আল্লাহ তাআলা স্বতন্ত্র সুরা নাজিল করেছেন। আল্লাহ বলেন-
'আমি একে নাযিল করেছি শবে-কদরে। শবে-কদর সমন্ধে আপনি কি জানেন? শবে-কদর হল এক হাজার মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ। এতে প্রত্যেক কাজের জন্যে ফেরেশতাগণ ও রূহ অবতীর্ণ হয় তাদের পালনকর্তার নির্দেশক্রমে। এটা নিরাপত্তা, যা ফজরের উদয় পর্যন্ত অব্যাহত থাকে।‘ (সুরা কদর)

সে কারণেই মুসলিম উম্মাহ হাজার মাসের সেরা রাত লাইলাতুল কদর পালনে বুধবার দিবাগত রাত ইবাদত বন্দেগিতে রত থাকবে। তারাবিহ, নফল নামাজ, তাহাজ্জুদ, সালাতুল তাসবিহ, জিকির-আজকার, দোয়া-দরূদ পাঠ করবে। গোনাহ মাফ ও রহমত লাভে অস্রু বিসর্জন দেবে।

লাইলাতুল কদর কোরআন নাজিলের রাত। আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করেছেন, ‘হা-মিম! শপথ সুস্পষ্ট কিতাবের। নিশ্চয়ই আমি তা (কোরআন) অবতীর্ণ করেছি এক বরকতময় রজনীতে। নিশ্চয়ই আমি সতর্ককারী। এ রাতে প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত অনুমোদিত হয়।’ (সুরা : দুখান, আয়াত : ১-৪)

লাইলাতুল কদরের গুরুত্ব অপরিসীম। হাজার মাস ইবাদত করে যে সওয়াব হয়, কদরের এক রাতের ইবাদতে তার চেয়ে বেশি সওয়াব হয়। লাইলাতুল কদরের মর্যাদা সম্পর্কে রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যখন লাইলাতুল কদর উপস্থিত হয় তখন জিবরাইল (আ.) ফেরেশতাদের একটি বিরাট দল নিয়ে পৃথিবীতে আগমন করেন এবং বসা ও দাঁড়ানো যেকোনো অবস্থায় আল্লাহর জিকিরে মগ্ন বান্দাদের অভিবাদন জানান এবং তাদের প্রতি আল্লাহর রহমত বর্ষণের জন্য দোয়া করেন।’ (মিশকাতুল মাসাবিহ, হাদিস ২০৯৬)

সর্বাধিক হাদিস বর্ণনাকারী আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেছেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি লাইলাতুল কদরে ঈমানের সঙ্গে সওয়াবের আশায় নামাজ পড়ে, তার অতীতের সব গুনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হয়।’ (বুখারি, হাদিস ২০১৪)

আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) বলেছেন, ‘রমজানের শেষ দশ দিন শুরু হলে রাসুল (সা.) লাইলাতুল কদর পাওয়ার জন্য পরিপূর্ণ প্রস্তুতি নিতেন। রাত জাগতেন এবং নিজের পরিবার-পরিজনকেও জাগাতেন।’ (বুখারি, হাদিস ২০২৪)

লাইলাতুল কদরের সঠিক তারিখ নিয়ে মতভেদ রয়েছে। হাদিসে এসেছে, উবাদা ইবনে সামিত (রা.) বলেন, একবার নবী (সা.) আমাদের লাইলাতুল কদর সম্পর্কে সংবাদ দেওয়ার উদ্দেশ্যে ঘর থেকে বের হলেন। তখন দুজন মুসলিম ঝগড়া করছিল। অতঃপর (বিবাদ নিরসনের পর) রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘আমি তোমাদের লাইলাতুল কদরের সংবাদ দেওয়ার জন্য বের হয়েছিলাম, তখন অমুক অমুকের ঝগড়া-বিবাদের কারণে নির্দিষ্ট তারিখের জ্ঞান আমার অন্তর থেকে উঠিয়ে নেওয়া হয়েছে। সম্ভবত এটি তোমাদের জন্য কল্যাণকর। সুতরাং তোমরা এ রাতকে ২৯, ২৭ ও ২৫ তারিখের রজনীতে অনুসন্ধান করো। (বুখারি, হাদিস ২০২৩)

অন্য হাদিসে রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘রমজানের শেষ ১০ দিনে বিজোড় রাতে তোমরা লাইলাতুল কদর অন্বেষণ করো।’ (বুখারি, হাদিস ২০১৭)

তবে হাদিসে এ রাতের কিছু বৈশিষ্ট্য এসেছে। সেই রজনী চন্দ্রালোকিত রজনীর মতো উজ্জ্বল, পরিষ্কার, নীরব ও নাতিশীতোষ্ণ হবে। সকাল পর্যন্ত কোনো তারকা খসে পড়বে না। পরের দিন সকালের সূর্যকিরণ পূর্ণিমার চাঁদের মতো উষ্ণতাহীন হবে। (মুসনাদ আহমাদ, হাদিস ২২৭৬৫)

লাইলাতুল কদরের আমল সম্পর্কে আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেছেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বললাম, হে আল্লাহর রাসুল! আমি যদি লাইলাতুল কদর পেয়ে থাকি তাহলে সে রাতে কী দোয়া করব? জবাবে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, তুমি বলবে, ‘আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুউন তুহিব্বুল আফওয়া ফাঅফু আন্নি।’

অর্থাৎ হে আল্লাহ! নিশ্চয়ই আপনি ক্ষমাশীল, আপনি ক্ষমা করা পছন্দ করেন। সুতরাং আমাকে ক্ষমা করে দিন। (তিরমিজি, হাদিস ৩৫১৩)

এই রাতে কোরআন নাজিল হয়েছে। তাই এ রাতে বেশি বেশি করে কোরআন তিলাওয়াত করুন। কোরআন তিলাওয়াতের সওয়াব সম্পর্কে রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোরআনের একটি অক্ষর পাঠ করবে, সে ব্যক্তি এর বদলে একটি নেকি লাভ করবে। আর একটি নেকি হলো ১০ নেকির সমান।’ (তিরমিজি, হাদিস ২৯১০)

হাদিসে আরো এসেছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, তোমরা কোরআন পড়ো। কেননা কোরআন কিয়ামতের দিন পাঠকারীদের জন্য সুপারিশ করবে। (মুসলিম, হাদিস ৮০৪)

মর্যাদার এ রাতটি অন্যান্য বছর দেশের সব মসজিদে যথাযোগ্য মর্যাদায় উৎসব মুখর পরিবেশ ও আয়োজনে পালন করা হলেও এবার মহামারি করোনার কারণে তা অনেকটা স্বল্প পরিসরে রাষ্ট্রীয় বিধি-নিষেধের কারণে নিরাপত্তার বিবেচনায় ঘরে ঘরেই ইবাদতে নিয়োজিত থাকবে মুমিন মুসলমান।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে পবিত্র লাইলাতুল কদর লাভে এ রাতে যার যার নিরপত্তা ও সুস্থতার মাধ্যমে যথাযথভাবে আদায় করার তাওফিক দান করুন। লাইলাতুল কদরের ইবাদত-বন্দেগির উসিলায় মহামারি করোনা ও ঘূর্ণিঝড় আম্ফান থেকে ব্যক্তি পরিবার দেশ জাতি ও পুরো বিশ্বকে হেফাজত করুন।

সোনালীনিউজ/এএস