রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬

মাংসের দাম কমলেও সবজির দামে ঊর্ধ্বগতি

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার ১২:১৩ পিএম

মাংসের দাম কমলেও সবজির দামে ঊর্ধ্বগতি

ঢাকা : সপ্তাহের ব্যবধানে রাজধানীর বাজারগুলোতে সব ধরনের শাক-সবজির দাম এখনও চড়া ভাব রয়েছে। তবে কেজিপ্রতি ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত কমেছে লেয়ার ও ব্রয়লার মুরগি। ইলিশের পাশাপাশি বাজারে অন্য মাছের দামও কমেছে। এছাড়া নিম্নমুখী রয়েছে ডিম ও চালের বাজারও।

শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর কারওয়ান বাজারের খুচরা বাজার, মহাখালী কাঁচাবাজার, শান্তিনগর বাজার ঘুরে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

এসব বাজারে শাক-সবজির খুচরা দাম স্থিতিশীল রয়েছে। গত সপ্তাতে বাজারে প্রতিকেজি টমেটো ১০০ থেকে ১২০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। পটল প্রতিকেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকা, ঝিঙা ৪০ থেকে ৫০ টাকা, উস্তে ৬০ টাকা, করলা ৬০ টাকা, কাঁকরোল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, বেগুন ৫০ থেকে ৬০ টাকা, ঢেড়স ৩০ থেকে ৪০ টাকা, শসা (হাইব্রিড) ৩৫ থেকে ৫০ টাকা, দেশি শসা ৫০ থেকে ৭০ টাকা, কচুর ছড়া ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কচুর লতি ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পেঁপে ৩০ থেকে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি পিস বাঁধাকপি ও ফুলকপি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, লাউ ৪০ থেকে ৫০ টাকা, জালি কুমড়া প্রতি পিস ৩০ থেকে ৪৫ টাকা, কলার হালি ৩০ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

প্রতি আঁটি লালশাক ১০ থেকে ১৫ টাকা, মুলা ১৫ থেকে ২০ টাকা, লাউ শাক ২০ থেকে ৩০ টাকা, কুমড়া শাক ২০ থেকে ৩০ টাকা, পুঁইশাক ২০ থেকে ২৫ টাকা, কলমি শাক ১০ থেকে ১৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কারওয়ান বাজারের খুচরা কাঁচামাল বিক্রেতা জামাল বলেন, কাঁচামালের বাজার প্রতিদিনই ওঠা-নামা করে। দাম বাড়লে আমাদেরও বাড়তি দামে বিক্রি করতে হয়। শুক্রবার পণ্যের সরবরাহ বেশি হওয়ায় দামও কমেছে।

একই কথা বলেন, শান্তিগরের সবজি বিক্রেতা হৃদয়। তিনি বলেন, বাজারে মালামাল বেশি এলে দাম কমে, কম থাকলে দাম বাড়ে। এখন পাইকারি বাজারে মালের দাম কমায় খুচরা বাজারেও দাম কমেছে।

মাছ ব্যবসায়ী শফিকুল বলেন, এসব বাজারে এক কেজি ওজনের ইলিশ প্রতিকেজি ১১০০ টাকা, ৯০০ গ্রাম ১ হাজার টাকা, ৭০০ গ্রাম ৮০০ টাকা, ৫০০ গ্রাম ওজনের মাছের কেজি ৬৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া, প্রতিকেজি বাইন (বড়) ৪০০ টাকা, আকারভেদে প্রতিকেজি কাতলা ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, রুই ১৮০ থেকে ২৫০ টাকা, মৃগেল ২০০ থেকে ২৩০ টাকা, কাচকি ২৪০ টাকা, চিংড়ি (হরিনা) ৪০০ টাকা, বাগদা ৩৫০ থেকে ৪৫০ টাকা, গলদা ৪০০ থেকে ৭০০ টাকা, তেলাপিয়া ১০০ থেকে ১৩০ টাকা, পাঙ্গাস ১২০ থেকে ১৪০ টাকা, কই মাছ ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা, শিং মাছ ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা দরে বিক্রি করতে দেখা গেছে।

তবে, বাজারে আগের মতো চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ, রসুন, আদা। দেশি রসুন প্রতিকেজি ১৭০ থেকে ২০০ টাকা, ভারতীয় ১৯০ টাকা থেকে ২০০, আদা ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা, দেশি পেঁয়াজ ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ৪০ থেকে ৪৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

মুরগির দাম নিম্নমুখী হলেও অপরিবর্তিত রয়েছে গরুর মাংসের দাম। এসব বাজারে গরুর মাংস ৫৫০ টাকা, খাসির মাংস ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশি মুরগি ৫০০ গ্রাম ওজনের প্রতি পিস ২০০ থেকে ২১০ টাকা, সোনালি মুরগি ৫০০ গ্রাম প্রতি হালি ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা, ব্রয়লার প্রতিকেজি ১১৫ থেকে ১২০ টাকা, লেয়ার (সাদা) ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা, লেয়ার (লাল) ১৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

চালের দামও কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা পর্যন্ত কমেছে। এসব বাজারে মিনিকেট চাল ৪৫ থেকে ৪৬ টাকা, আটাশ চাল ৩৫ থেকে ৩৮ টাকা, চিনিগুঁড়া ৯০ থেকে ৯৫ টাকা, কাটারিভোগ ১০০ টাকা, আতপ কাটারি ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, নাজির ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, পোলাও ৭৫ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে দেখা গেছে।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue