শনিবার, ০৪ এপ্রিল, ২০২০, ২০ চৈত্র ১৪২৬

সিদ্ধিরগঞ্জে সিলিন্ডার বিস্ফোরণ 

মায়ের ১২ ঘণ্টা পর ছেলের মৃত্যু, আশঙ্কাজনক অবস্থায় নাতি

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার ০১:২১ পিএম

মায়ের ১২ ঘণ্টা পর ছেলের মৃত্যু, আশঙ্কাজনক অবস্থায় নাতি

ঢাকা : নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে গ‌্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ হয়ে মায়ের মৃত্যুর ১২ঘণ্টা পর মারা গেলেন ছেলে কিরণ মিয়া (৪৫)। এই ঘটনায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে নাতি। এছাড়া বার্ন ইউনিটে ভর্তি পরিবারের বাকি ৫ সদস্য।

সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ১টায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি। তার শরীর ৭০ ভাগ বার্ন ছিল। 

এর আগে সোমবার বেলা ১১টায় কিরণ মিয়ার মা নূরজাহান বেগম (৬০) মারা যান। তিনিও ঢামেক হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। আগুনে তার শরীরের শতভাগ পুড়ে গিয়েছিল। 

জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক পার্থ শংকর পাল বলেন, কিরণের ছেলে আবুল হোসেন ইমনকে (২২) বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার শরীরের ৪৫ শতাংশ পুড়ে গেছে।

এছাড়া কিরণের ছোট ভাই হীরণ মিয়া (২৮),  কিরণের আরেক ছেলে আপন মিয়া (১০), হীরণের স্ত্রী মুক্তা (২১), তাদের মেয়ে ইলমা (৩) ও কিরণের ভাগ্নে কাউছার (১৬) ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন।

এদিকে  জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন জানান, দগ্ধদের প্রত্যেকের শ্বাসনালী পুড়ে যাওয়ায় কেউ আশঙ্কামুক্ত নয়। 

সোমবার ভোর ৫টার দিকে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার সাইনবোর্ড এলাকার সাহেবপাড়া ফারুকের বাড়ির চারতলা ভবনের নিচতলায় গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণের এ ঘটনা ঘটে। রাতে রান্নার পরে গ্যাসের চুলার সুইচ বন্ধ না করেই ঘুমিয়ে পড়েন তারা। ভোরবেলা উঠে ম্যাচ জ্বালাতেই জমে থাকা গ্যাসের কারণে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে তারা দগ্ধ হয়। পরে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ আল আরেফিন জানান, ওই বাড়ির নিচ তলায় পরিবারটি ভাড়া থাকে। বাসার লাইনের গ্যাসে বেশি চাপ না থাকায় বাসায় সিলিন্ডার গ্যাসও ব্যবহার করতো পরিবারটি।

সোনালীনিউজ/এএস

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue