সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৬ আশ্বিন ১৪২৭

যে কারণে সাত কোম্পানির আইপিও আবেদন বাতিল করলো বিএসইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৯ আগস্ট ২০২০, রবিবার ০৮:০৩ পিএম

যে কারণে সাত কোম্পানির আইপিও আবেদন বাতিল করলো বিএসইসি

ফাইল ছবি

ঢাকা: প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) অনুমোদনের ক্ষেত্রে কোনো ছাড় না দেয়ার নীতি গ্রহণ করেছে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি)নব নিযুক্ত কমিশনাররা।

গত মে মাসে দায়িত্ব নেয়ার পর আইন ও বিধি-বিধান পরিপালন না হওয়ায় বেশকিছু কোম্পানির আইপিও আবেদন বাতিল করে দিয়েছে নতুন কমিশন। অন্যদিকে ভালো ও প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দিচ্ছে। আইপিওর ক্ষেত্রে আইন পরিপালনের বিষয়ে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন কমিশনাররা।

আর্থিক প্রতিবেদনে ভুল তথ্য ও সিকিউরিটিজ আইন পরিপারন না করার কারনে শেয়ারবাজারে আসার অপেক্ষায় থাকা সাতটি কোম্পানির আইপিও আবেদন বাতিল করেছে নতুন কমিশন।

গত জুন মাস থেকে বাতিল করা সাতটি কোম্পানি হলো- ইনফিনিটি টেকনোলজি ইন্টারন্যাশনাল, বি ব্রাদার্স গার্মেন্টস,বিডি পেইন্টস, বেকা গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইল, এসএফ টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রিজ,আল ফারুক ব্যাগস এবং জেএমআই হসপিটাল রিক্যুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেড।

ইনফিনিটি টেকনোলজি:

ইনফিনিটি টেকনোলজি ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড পুঁজিবাজারে ৩ কোটি শেয়ার ছেড়ে ৩০ কোটি টাকা তুলতে চেয়েছিলো। এই টাকা দিয়ে অবকাঠামো এবং সফ্টওয়্যার উন্নয়নে ব্যয় করার কথা ছিলো।

কোম্পানিটি  পূর্বে উত্তেোলিত মূলধনের ব্যবহার সম্পর্কে নিরীক্ষকদের অডিট সনদ জমা দেয়নি। এরমাধ্যমে কোম্পানিটি  সংস্থাটি পাবলিক ইস্যু বিধি ২০১৫ লঙ্ঘন করেছে। এরফলে কমিশন কোম্পানিটির আইপিও আবেদন বাতিল করেছে।

ইনফিনিটি টেকনোলজি ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড ১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। কোম্পানিটি বৃহৎ ডাটাবেস ম্যানেজমেন্ট সলিউশন, বিশেষত আর্থিক প্রতিষ্ঠানে আইটি সেবা প্রদানকারী একটি শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান। এছাড়াও কোম্পানিটি স্থানীয়ভাবে এবং বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন ধরণের প্রকৌশলগত এবং অ্যাপ্লিকেশনের কাজ করে। ইনফিনিটি টেকনোলজির ইস্যু ম্যানেজার ছিলো আইআইডিএফসি ক্যাপিটাল।

বি ব্রাদার্স গার্মেন্টস:

প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ৫০ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চেয়েছিল বি ব্রাদার্স গার্মেন্টস লিমিটেড।সিকিউরিটিজ আইন লঙ্ঘন এবং তার আর্থিক বিবরণীতে বাড়তি দেখানো, শেয়ার মানি ডিপোজিটের টাকা একটি পৃথক ব্যাংক হিসাবে রাখার কথা থাকলেও সেটি না করে বিভিন্ন ব্যাংক হিসাবে রেখেছে। এর ফলে কোম্পানিটি আইপিও আবেদন বাতিল করেছে বিএসইসি।

কমিশন পর্যবেক্ষণ করে দেখেছে, টেক্সট লাইন ও স্পোর্টসওয়্যার এই দুই ইউনিট থেকে কোম্পানিটির মোট আয়ের ৬৭ শতাংশ আয় আসে। ভবিষ্যতে যদি কোন একটি ইউনিটের ক্রয়াদেশ বাতিল হয় তাহলে কোম্পানিটি সমস্যায় পড়বে। ৩০ জুন, ২০১৬ পর্যন্ত কোম্পানির নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণীতে কেবলমাত্র একজন পরিচালক স্বাক্ষর করেছেন, যা কোম্পানি আইন ১৯৯৪ লঙ্ঘন হয়েছে।

জেএমআই হসপিটাল রিক্যুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং:

জেএমআই হসপিটাল রিক্যুইজিট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেড বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে পুঁজিবজারে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে ৭৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চেয়েছিলো। সিকিউরিটিজ আইন লংঘন ও আর্থিক প্রতিবেদনে অসংগতি থাকায় কোম্পানির আইপিও আবেদন বাতিল করেছে বিএসইসি।

কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড ও জনতা ক্যাপিটাল অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।জেএমআই হসপিটাল রিক্যুইজিট ম্যানুফেক্চারিং লিমিটেড বুক বিল্ডিং পদ্ধতির আইপিওর মাধ্যমে বাজার থেকে ৭৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করার জন্য গত বছরের ২০ অক্টোবর রোড শো করে। এর পর বিএসইসিতে আবেদন করে।

জেএমআই হসপিটাল রিক্যুইজিট ম্যানুফেক্চারিং লিমিটেডের ৮১ কোটি টাকার প্লেসমেন্ট শেয়ার নিয়েছে আইসিবি। এর জন্য প্রিমিয়াম দেওয়ার সাথে সাথে ১১ শতাংশ রিটার্নের নিশ্চয়তা সংক্রান্ত একটি চুক্তি রয়েছে আইসিবি। আইসিবির সহযোগী প্রতিষ্ঠান আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড তার ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে আজ করছে। যা আইন লংঘন।

বিডি পেইন্টস:

বিডি পেইন্টস প্রাথ‌মিক গণ প্রস্তা‌ব (আইপিও) ১০ টাকা ইস্যু মূল্যে ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে পুঁজিবাজার থেকে ২০ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চেয়েছিলো। উত্তোলন করা অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম, নির্মাণ কাজ, অন্যান্য সিভিল ওয়ার্ক এবং আইপিওর খরচ বাবাদ ব্যয় করার কথা ছিলো। আর্থিক প্রতিবেদনে অংসগতি থাকায় কোম্পানির আইপিও আবেদন বাতিল করেছে বিএসইসি।

বেকা গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইল:

পুঁজিবাজার থেকে ৩৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চেয়েছিলো বেকা গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইল লিমিটেড। কোম্পানিটির আর্থিক প্রতিবেদনে অসংগতি পাওয়ায় আবেদন বাতিল করেছে কমিশন। কমিশন আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখে তারা কোম্পানির সম্পদ এবং আয় অতিরিক্ত দেখিয়েছে। কোম্পারিটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে শাহজালাল ইক্যুইটি ম্যানজেমেন্ট এবং বিডি ফাইন্যান্স ক্যাপিটাল হোল্ডিংস লিমিটেড।

এসএফ টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রিজ:

এসএফ টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড পুঁজিবাজার থেকে ১৮ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চেয়েছিলো। কোম্পানিটি অতিরিক্ত মুনাফা দেখিয়ে আর্থিক প্রতিবেদন তৈরি করেছে বলে দাবি বিএসইসির কর্মকর্তাদের। একারনে কোম্পানিটির আইপিও আবেদন বাতিল হয়েছে বলে জানা গেছে।

আল-ফারুক ব্যাগস:

আল ফারুক ব্যাগস ইন্ডাস্ট্রিজ তাদের আইপিও প্রসপেক্টাসে একই নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান আর্টিসানকে দিয়ে আর্থিক প্রতিবেদন নিরীক্ষা করার পাশাপাশি করপোরেট গভর্ন্যান্স কোড পরিপালনসংক্রান্ত সনদ প্রত্যয়ন করেছে। অথচ সিকিউরিটিজ আইনানুসারে আর্থিক প্রতিবেদন নিরীক্ষাকারী প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে করপোরেট গভর্ন্যান্স কোড পরিপালনসংক্রান্ত সনদ প্রত্যয়নের সুযোগ নেই। এ কারণে কোম্পানিটির আইপিও আবেদন বাতিলের পাশাপাশি কোম্পানিটিকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

সোনালীনিউজ/এলএ/এমএএইচ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue