শনিবার, ২০ জুলাই, ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

জানালেন রংপুর সিটি মেয়র

রংপুরের পল্লী নিবাসে দাফন করার ওছিয়ত করেছেন এরশাদ

জেলা প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার ১০:২৭ পিএম

রংপুরের পল্লী নিবাসে দাফন করার ওছিয়ত করেছেন এরশাদ

রংপুর: চিকিৎধীন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সুস্থতা কামনা করে তিনি মারা গেলে তার ওছিয়তকৃত রংপুরের পল্লী নিবাসেই তাকে সমাহিত করার দাবি জানিয়েছেন রংপুর বিভাগের জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা। এজন্য অসুস্থ হওয়ার আগে তিনি একটি সমাধি কাম কমপ্লেক্স’র ডিজাইনও করেছিলেন।

সোমবার সন্ধায় রংপুর মহানগরীর সেন্ট্রাল রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় পার্টির রংপুর বিভাগ, জেলা, মহানগরসহ সহযোগি ও অঙ্গ সংগঠন এবং রংপুর বাসির পক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানানো হয়। 

সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানিয়ে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ও সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। 

রংপুর সিটি মেয়র বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান রংপুরের কৃতি সন্তান, বাংলাদেশের সফল সাবেক রাষ্ট্রপতি, আধুনিক উন্নত বাংলাদেশের রুপকার, সারা বিশ্বের রাজনীতির অহংকার এবং আমাদের রাজনৈতিক পিতা। আমরা মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে তার সুস্থতা এবং দীর্ঘায়ু কামনা করছি।
 
সংবাদ সম্মেলনে মেয়র বলেন, প্রকৃতির নির্ধারিত নিয়মে তিনি পৃথিবী থেকে চলে গেলে আমাদের রাজনৈতিক পিতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এমপি মহোদয়কে তার ওছিয়তকৃত স্থান পল্লী নিবাসেই করতে হবে। কারন হিসেবে তিনি বলেন, আমরা ঢাকায় খোলা স্পেসে তাকে সমাহিত করার জন্য সরকারের কাছে প্রস্তাব দিয়েছি। কিন্তু তার কোন সদুত্তর পাওয়া যায় নি। আমরা এরশাদের দেয়া জাতীয় তিন নেতার মাজারের পাশে অথবা সংসদ ভবনের পাশে আসাদ গেট এলাকায় মশিউর রহমান যাদু মিয়ার কবরের পাশে জায়গার জন্য সরকারকে বলেছি। কিন্তু সে ব্যপারে আমাদের কোন আশ্বাস দেয়া হয়নি। মোহাম্মদপুর কবরস্থানে সেই এলাকার মেয়র মাত্র একটি কবরের জায়গা দেয়ার জন্য রাজি হয়েছেন। এরশাদকে সেখানে সমাহিত করার কোন প্রশ্নই উঠে না। ক্যান্টনমেন্টে এরশাদকে সমাহিত করা হলে আমরা জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা তার কবরও জেয়ারত করতে পারবো না। সেকারণে তার সমাধি রংপুরের মাটিতে তার নিজের গড়া পল্লী নিবাসেই দিতে হবে।

তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, অসুস্থ হওয়ার কিছুদিন আগে তিনি পার্টির বিভিন্ন স্তরের নেতাদের সাথে আলাপচারিতায় তার অন্তিম সমাধি রংপুরের পল্লী নিবাসে করার জন্য ওছিয়ত করে যান। সেজন্য তিনি একটি একটি সমাধি কাম কমপ্লেক্স নির্মানের জন্য ডিজাইন প্লানিংও করেছিলেন। কিন্তু অসুস্থ্ হওয়ার কারণে সেই প্লানিং তিনি জনসমুখে বলে যেতে পারেন নি। সেকারণে আমরা জাতীয় পার্টি রংপুর বিভাগ, জেলা, মহানগরসহ সহযোগি ও অঙ্গ সংগঠন এবং রংপুর বিভাগ বাসির পক্ষ থেকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এমপির সমাধি তাঁর ওছিয়তকৃত স্থানে করার আকুল আবেদন জানাচ্ছি। চেয়ারম্যানের সমাধিকে আকড়ে ধরেই আমরা তার জীবন দর্শন বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।

দাবি মানা না হলে কিভাবে তা আদায় করবেন সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, ঢাকায় খোলা স্পেসে আমাদের দাবিকৃত জায়গা ছাড়া অন্য কোন জায়গায় আমরা এরশাদের সমাধি হতে দেবো না। তা হলে যেভাবেই হোক রংপুরে সমাহিত করার ব্যবস্থা করা হবে। এজন্য যা যা করা দরকার তাই করা হবে।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা জাতীয় পার্টির সহ সভাপতি আজমল হোসেন লেবু, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও রংপুর জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজি আব্দুর রাজ্জাক, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য ও জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাফিউল ইসলাম শাফী,  কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক মুনশী আব্দুল বারী, মহানগর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন, সাংগঠনিক জাহিদুল ইসলাম, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা সদস্য সচিব আলহাজ্ব মাসুদার রহমান মিলন, জেলা যুব সংহতির সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান নাজিম, মহানগর ছাত্র সমাজের সভাপতি ইয়াসির আরাফাত, জেলা ছাত্রসমাজের আহবায়ক আশরাফুল আলম জবা, যুগ্ম-আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার আল আমিন সুমন, সোবহান মজিদ বিদ্যুত্ , সদস্য সচিব আসলাম খান প্রমুখ।

সোনানীনিউজ/এমএএইচ