সোমবার, ১৭ জুন, ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬

স্তন ক্যানসার সচেতনতা মাস

লজ্জাই কাল হচ্ছে স্তন ক্যানসারের

স্বাস্থ্য ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০১৮, বৃহস্পতিবার ০৮:০৯ পিএম

লজ্জাই কাল হচ্ছে স্তন ক্যানসারের

ঢাকা : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, প্রতি বছর বিশ্বজুড়ে ১৫ লক্ষাধিক নারী স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে থাকেন এবং প্রতি লাখে ১৫ জন মারা যান। বাংলাদেশে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে (ক্যানসার রেজিস্ট্রি) স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত নারীর সংখ্যা সেভাবে রেকর্ড করা হয় না।

তবে স্তন ক্যানসার চিকিৎসা এবং এ বিষয়ে সচেতনতার কাজে সম্পৃক্ত চিকিৎসকদের মতে, প্রতি বছর প্রায় ১৮ হাজার নারী নতুন করে স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছেন। আর মৃত্যুমুখে পতিত হচ্ছেন ৮ হাজারের বেশি নারী। নারীরা অতিরিক্ত ঝুঁকিতে থাকলেও, পুরুষরাও স্তন ক্যানসারের ঝুঁকিমুক্ত নন। স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার সুনির্দিষ্ট কোনো কারণ নেই। তবে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি প্রতিরোধ করা সম্ভব।

বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়ানো, চর্বি ও আমিষযুক্ত খাবার কম খাওয়া, শাকসবজি, ফলমূল বেশি খাওয়া, কায়িক পরিশ্রম করা, যারা কায়িক পরিশ্রম করেন না তারা ব্যায়াম করলে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি কমে। যাদের মোটা হওয়ার প্রবণতা রয়েছে, তাদেরও স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি বেশি।

স্তন ক্যানসার : লজ্জাই কাল হচ্ছে

কেবল সচেতনতার অভাবেই দেশে স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত নারীর সংখ্যা বাড়ছে। যখন স্তনে ক্যানসার শনাক্ত হয়, তখন আর রোগীর চিকিৎসা নেওয়ার সময় থাকে না। অথচ নিজে সচেতন হয়ে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে এ রোগ ৯০ শতাংশ নিরাময় করা সম্ভব।

বিশেষজ্ঞরা জানান, প্রাথমিক পর্যায়ে এ রোগ শনাক্ত করার সময় হচ্ছে, মেয়েদের মাসিকের পরের সাতদিন নিজে নিজেই স্তনে কোনো চাকা আছে কি-না তা দেখে নিতে হবে। আর প্রথম অবস্থায় এ রোগ শনাক্ত হলে অল্প চিকিৎসায় বা ছোট অস্ত্রোপচারে রোগী সুস্থ হতে পারেন। সেক্ষেত্রে স্তন পুরো ফেলে দিতে হয় না।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থার তথ্যমতে, বাংলাদেশে প্রতি বছর ১০০ নারীর মধ্যে ১২ জন স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছেন। এর অন্যতম কারণ সচেতনতার অভাব এবং সময়মতো চিকিৎসাসেবা না পাওয়া। চিকিৎসকরা মনে করেন, ধর্মীয় গোঁড়ামি, লজ্জা, ভয় এসব কারণে নারীরা শরীরের অসুস্থতা কিংবা ভিন্ন লক্ষণ দেখা গেলেও চিকিৎসকের পরামর্শ নেন না। আর এই গাফিলতির পরিণতি হয় মৃত্যু।

তাই নারীদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করতে বিশ্ব স্তন ক্যানসার সচেতনতা দিবসে এই কর্মসূচির আয়োজন করে বেসরকারি সংস্থা দ্যা ব্লু স্কাই চ্যারিটেবল ফাউন্ডেশন।

প্রতি বছর অনেক নারী স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছেন; যেখানে ৩৮ শতাংশ স্তন ক্যানসার প্রতিরোধ করা যায় কেবল প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে। আসুন, পরিবারের প্রিয় মানুষটির এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সবাই জেনে রাখি। সামান্য সচেতনতাই বাঁচিয়ে দিতে পারে আমাদের আপনজনকে। পরিবারের নারী সদস্যদের সহায়তা ছাড়া আমাদের একটা দিন কল্পনা করাই দায়।

কিন্তু তারা নিজেদের খোঁজ রাখারই সুযোগ পান না। ভয়ংকর কোনো ব্যাধি তাদের শরীরে বাসা বাঁধছে কি-না, সে ব্যাপারে তারা উদাসীন। তাই আমাদের উচিত তাদের প্রতি খেয়াল রাখা। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হন ৪০-৪৯ বছর বয়সী নারীরা। গড় বয়স ৪৬ দশমিক ৮৬ বছর। পশ্চিমা নারীদের তুলনায় কম বয়সে স্তন ক্যানসার আক্রান্ত হন বাংলাদেশের নারীরা।

যুগান্তকারী পরিবর্তনের আভাস

ক্যামব্রিজ ইনস্টিটিউটের একদল গবেষক জানিয়েছেন, ব্রেস্ট ক্যানসার আক্রান্ত নারীদের শরীরের একটি বিশেষ জিন আবিষ্কার করা সম্ভব হয়েছে। এটি ব্রেস্ট ক্যানসার চিকিৎসায় যুগান্তকারী পরিবর্তন নিয়ে আসতে পারে। তাদের মতে,  জিন গবেষণার উত্তরোত্তর উন্নতি ব্রেস্ট ক্যানসারের চিকিৎসায় যুগান্তকারী পরিবর্তন নিয়ে আসবে।

গবেষণায় অংশ নেওয়া সব নারীই ব্রেস্ট ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। যুক্তরাজ্যের ক্যামব্রিজ ইনস্টিটিউটের ক্যানসার গবেষণা বিভাগের প্রধান প্রফেসর ডা. কার্লোস ক্যালডাস বলেন, শরীরে জন্মানো টিউমার গবেষণা করে আমরা কিছু বারকোড জানতে পেরেছি। আর এর মাধ্যমে ক্যানসার কোষের ধরনে কোনো পরিবর্তন আসছে কি-না তা জানা যাবে। এখন আমরা জানতে পারি কীভাবে শরীরের কোষগুলো কাজ করে।

এ ছাড়া এই গবেষণার ফলে আমরা জানতে পারছি, কোন ওষুধটি শরীরে সবচেয়ে বেশি কার্যকর হচ্ছে।

ক্যানসারের পূর্ণ চিকিৎসা সম্ভব

সীমিত সামর্থ্য নিয়েও আমাদের দেশে এখন ক্যানসারের পূর্ণ চিকিৎসা সম্ভব। বাংলাদেশ ক্যানসার ইনস্টিটিউটসহ সরকারি বেসরকারি সব জায়গাতেই স্তন ক্যানসারের চিকিৎসা চলছে। সরকারিভাবে স্তন ক্যানসার নিরাময়ের খরচ পঞ্চাশ থেকে ষাট হাজার টাকা। অনেকে আবার বিনামূল্যে বা স্বল্প মূল্যে চিকিৎসার সুবিধাও পেয়ে থাকেন।

বেসরকারি সুবিধায় এ খরচ দাঁড়ায় সাধারণ মানের হাসপাতালে দুই থেকে তিন লাখ আর ব্যয়বহুলগুলোতে পাঁচ থেকে দশ লাখ টাকা বা কখনো কখনো তার চেয়েও বেশি। সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান, রয়টার্স, বিবিসি

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue