রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬

শীতার্তদের পাশে দাঁড়ান

সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৮ ডিসেম্বর ২০১৬, রবিবার ১০:২০ এএম

শীতার্তদের পাশে দাঁড়ান

এবারের শীতের প্রথম হিমবাতাস বইতে শুরু করেছে। নগরে এর প্রভাব তেমন না পড়লেও গ্রামের মানুষ শীতে জবুথবু হয়ে পড়েছে। শীতের কারণে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। ঠাকুরগাঁওয়ে তীব্র শীতে চার শিশুর মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। ইতিমধ্যে শীতজনিত রোগ ও নিপা ভাইরাসের বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছেন চিকিৎসকরা। শীতবস্ত্রের অভাবে চরম কষ্টে পড়েছে ছিন্নমূল ও দরিদ্র মানুষ। যদিও শীতে শিশু ও বৃদ্ধরাই বেশি কষ্ট পেয়ে থাকেন। তবে তাদের মধ্যে অনেকে দরিদ্রতার কারণে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে পারছেন না। এই বাস্তবতা সত্যিই নির্মম। চিকিৎসকদের কাছে আমাদের প্রত্যাশা- তারা যেন নিজ দায়িত্বেই শীতার্ত দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ান। আত্মকেন্দ্রিকতার অদৃশ্য দেয়ালভেদ করে সবাইকে শীতার্তদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে হবে। এ ব্যাপারে দেশের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে বড় ধরনের দায়িত্ব পালন করতে হবে।   

ষড়ঋতুর দেশ বাংলাদেশ। বছর ঘুরে শীত আসবে; এটিই প্রকৃতির নিয়ম। তবে শীতের দাপট সবসময় একরকম থাকে না; এতে তারতম্য থাকে। কিন্তু বিশ্বজুড়ে জলবায়ুর পরিবর্তনের ধকল বাংলাদেশকে সইতে হচ্ছে। যার নির্মম খেসারত দিতে দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে। কারণ সঙ্গতির অভাবে শীতের প্রস্তুতি তাদের থাকে না বললেই চলে। ক্ষুধা নিবারণের জন্য অন্ন সংগ্রহের পাশাপাশি তাদের শীতের আবরণের কথাও ভাবতে হয়। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে গত কয়েক দিন ধরে শীতার্ত মানুষের দুঃসহ দিনযাপনের করুণ চিত্র উঠে আসছে। অন্যদিকে ঘন কুয়াশার কারণে যাতায়াতব্যবস্থা প্রবলভাবে ব্যাহত হচ্ছে। বিশেষ করে নৌপথে যাতায়াতে সৃষ্টি হচ্ছে বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতা। এ ছাড়া এ মাসের শেষ দিকে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে দুটি মৃদু অথবা মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। এ দুর্যোগ মোকাবিলায় সংশ্লিষ্টদের এখনই প্রস্তুতি নিতে হবে।  

দেশে সীমিতপরিসরে হলেও দরিদ্রদের জন্য শীতবস্ত্র সংগ্রহের কর্মসূচি চলছে। নিঃসন্দেহে এটি একটি আশাব্যঞ্জক উদ্যোগ। আমরা মনে করি, প্রতিটি সমাজসেবী সংগঠনকে যে কোনো দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণের সক্ষমতা থাকা জরুরি। একটি কম্বল কিংবা একটি ভালোমানের পোশাক একজন শীতার্ত মানুষের জন্য বড় ধরনের সহায়তা, যা কোনো কোনো সময় দরিদ্রদের জীবনও রক্ষা করতে পারে। শীতে জনজীবন সাময়িকভাবে স্থবির হয়ে পড়ে বটে, তবে সচ্ছল ও ধনবানরা যদি দরিদ্রদের পাশে এসে দাঁড়ান, বাড়িয়ে দেন তাদের সহযোগিতার হাত- তবে ক্ষণিকের জন্য হলেও তারা সে স্থবিরতা কাটিয়ে উঠতে পারে। জীবন রাখতে পারে সচল। 

সোনালীনিউজ/ঢাকা/এমটিআই