শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬

শিগগিরই সাগর-রুনির হত্যা রহস্য উন্মোচন

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যার আট বছর

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার ১২:৪৮ পিএম

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যার আট বছর

ঢাকা : মৃত্যুর আট বছর পেরিয়ে গেলেও সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন গড়াতে পারে নি আদালত পর্যন্ত। সবশেষ সোমবার ৭১বারের মতো পিছিয়ে প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ রাখা হয়েছে ২৩শে মার্চ।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারে সাংবাদিক দম্পতি মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার এবং এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি নিজের ভাড়া বাসায় নির্মমভাবে খুন হন।

পরদিন ভোরে তাদের ক্ষত-বিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওইদিন তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন ঘটনাস্থলে এসে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেপ্তার করার কথা বলেছিলেন।

পরের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালও ক্রমান্বয়ে একইভাবে আশ্বাস দিয়ে গেছেন। সেই আশ্বাসের কেটে গেল ৮ বছর। গত ৮ বছরে মামলাটির তদন্ত কার্যক্রম ৫ বার হাত বদল হয়েছে।

৭১ বারের মতো পেছালো সাগর-রুনি হত্যার প্রতিবেদন : সাংবাদিক দম্পতি সাগর সারোয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়ে আগামী ২৩ মার্চ ধার্য করেছেন আদালত। এ নিয়ে ৭১ বারের মতো প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পেছানো হলো। তদন্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম নির্ধারিত দিনে মামলা প্রতিবেদন দাখিল না করায় নতুন তারিখ ধার্য করা হয়।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি)  ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাস  এই তারিখ ঘোষণা করেন।

এই মামলার আসামিরা হলো- মিন্টু ওরফে বারগিরা মিন্টু ওরফে মামুন, মো. কামরুল হাসান অরুন, বকুল মিয়া, রফিকুল ইসলাম, আবু সাঈদ, এনাম আহাম্মদ ওরফে হুমায়ুন কবির, পলাশ রুদ্র পাল ও তানভীর রহমান। আসামিদের মধ্যে শেষের দুজন জামিনে ও অপর আসামিরা কারাগারে আছেন।

প্রসঙ্গত ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারে সাংবাদিক দম্পতি মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সারওয়ার এবং এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রুনি নিজ ভাড়া বাসায় নির্মমভাবে খুন হন। পরদিন ভোরে তাদের ক্ষত-বিক্ষত লাশ উদ্ধার করা হয়।

শিগগিরই সাগর-রুনির হত্যা রহস্য উন্মোচন : সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনির ঘাতকদের চিহ্নিত করা হয়েছে। খুব শিগগিরই তাদের সামনে এনে এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উম্মোচন করা হবে বলে জানা গেছে।  

অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি সূত্র জানায়, সম্প্রতি একটি সাপ্তাহিক পত্রিকার বেশ কয়েকজন সাংবাদিক ও সিআইডির ডিআইজি ইমতিয়াজ আহম্মেদ সমন্বয়ে ঘঠিত একটি দল সাগর-রুনি হত্যা মামলার তথ্য-উপাত্ত নিয়ে কাজ করে রুনির সাবেক প্রেমিক এবং তার অন্যতম সহযোগীকে ঘাতক হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে।

শনাক্ত হওয়া ওই দুজন অন্য মামলায় গ্রেফতার থাকায় গাজীপুরের একটি মামলায় ‘শ্যোন অ্যারেস্ট’ দেখিয়েছে সিআইডি পুলিশ। হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে আরেকজনকে কঠোর নজরদারিতে রাখা হয়েছে। এমনটাই জানিয়েছেন সিআইডির ডিআইজি ইমতিয়াজ আহমেদের ঘনিষ্ট একজন।  

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে ঢাকার পশ্চিম রাজাবাজারে সাংবাদিক দম্পতি মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার এবং এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি তাদের ভাড়া বাসায় খুন হন।

পরদিন ভোরে তাদের ক্ষত-বিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওই বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি রুনির ভাই নওশের আলী রোমান বাদী হয়ে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন।

এদিকে সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়ে আগামী ২৩ মার্চ (সোমবার) ধার্য করেছেন আদালত। এ নিয়ে ৭১ বারের মতো প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পেছানো হয়েছে।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি)  তদন্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম নির্ধারিত দিনে মামলা প্রতিবেদন দাখিল না করায় ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাস নতুন তারিখ ধার্য করেন।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue