শুক্রবার, ২৪ মে, ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

সাইবার অস্ত্র বানাচ্ছে জাপান

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৫ মে ২০১৯, বুধবার ০৩:৫৩ পিএম

সাইবার অস্ত্র বানাচ্ছে জাপান

ঢাকা: নিজেদের প্রতিরক্ষা সক্ষমতা সাইবার অস্ত্র তৈরির দিকে ঝুঁকছে জাপান। দেশটির তৈরি করা সাইবার অস্ত্র ম্যালওয়্যার ঘরানার হতে পারে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম। দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হিসেবে ম্যালওয়ারটি ব্যবহার করা হবে। আর এ ভাইরাস ও ব্যাকডোরবিশিষ্ট ম্যালওয়্যার তৈরি হয়ে গেলে এটিই হবে জাপানের প্রথম কোনো সাইবার অস্ত্র।

বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এক সূত্র জানিয়েছে, চলতি অর্থবছরের শেষ নাগাদ ম্যালওয়্যারটি তৈরির কাজ সম্পন্ন হবে। তবে সরকারি কর্মীরা নয়, বরং বেসরকারি ঠিকাদারের মাধ্যমে ম্যালওয়্যারটি তৈরি করা হচ্ছে।

যদিও এটির সক্ষমতা এবং কোন কোন পরিস্থিতিতে সরকার তা ব্যবহার করবে, সেসব বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই জানানো হয়নি। অবশ্য জাপান সরকার প্রকাশিত এক লেখচিত্র থেকে অনুমান করা হচ্ছে, জাপানি কোনো প্রতিষ্ঠান সাইবার হামলার শিকার হলে এ ম্যালওয়্যার শুধু হামলাকারীর বিরুদ্ধেই প্রয়োগ করা হবে।

রাজধানী টোকিওতে সরকারের একটি সূত্র স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানিয়েছে, তাদের কাছে সাইবার অস্ত্র রয়েছে, এমন একটি তথ্য জানার কারণেই বাইরের শক্তি হামলা করার আগে দ্বিতীয়বার ভাববে। এটিই তাদের কৌশল।

সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে নিজেদের সামরিক বাহিনীকে আরো বর্ধিত ও আধুনিক করে তুলছে জাপান। এ অঞ্চলে চীনের অব্যাহত বর্ধনশীল সামরিক হুমকি মোকাবেলায় অনেক দিন ধরেই এ প্রক্রিয়া শুরু করেছে জাপান। এর অংশ হিসেবেই সাইবার জগতে সেনাবাহিনীর পদচারণা আরো সম্প্রসারণের উদ্যোগ চলছে। যেখানে ২০১৬ সালের জুনে এক ঘোষণায় ন্যাটো জোট বলে, আকাশ, ভূমি ও সমুদ্রের পর সাইবার জগৎই হবে কঠিন যুদ্ধক্ষেত্র।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানিসহ বিশ্বের অনেক দেশই আনুষ্ঠানিকভাবে সাইবার অস্ত্রের মালিকানা দাবি করেছে। তারা এগুলোর উন্নয়নও অব্যাহত রেখেছে। এ তালিকায় জাপানের নামও যুক্ত হলো।

তবে কখনো আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা না দিলেও ইসরাইল, চীন, রাশিয়া, উত্তর কোরিয়া ও ইরানের কাছে সাইবার অস্ত্র রয়েছে। একাধিকবার তারা প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে এ অস্ত্র ব্যবহারও করেছে। সবচেয়ে শক্তিশালী সাইবার অস্ত্র থাকার পরও যুক্তরাষ্ট্র বারবার এসব দেশের আক্রমণের শিকার হয়েছে। ফলে জাপানের এ উদ্যোগ নিয়ে তেমন আগ্রহ দেখাচ্ছেন না বিশেষজ্ঞরা।

তাছাড়া জাপানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন সাইবার নিরাপত্তা বিভাগের প্রধান ইয়োশিতাকা সাকুরাদার প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারণা নিয়েও নানা গুঞ্জন রয়েছে। আর তার বিভাগের অধীনেই চলছে সাইবার অস্ত্র তৈরির কাজ।

এ নিয়ে দ্বিতীয়বার সাইবার অস্ত্র তৈরির উদ্যোগ নিল জাপান। ২০১২ সালে সম্ভাব্য হামলার উৎস খুঁজে বের করে ধ্বংস করার উদ্দেশ্যে ম্যালওয়্যার তৈরির জন্য প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ফুজিতসুকে কাজ দেয় দেশটির সরকার। কিন্তু প্রত্যাশিত ফল না পাওয়ায় তা পরিত্যক্ত হয়।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/এসআই