শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৪ আশ্বিন ১৪২৭

হলিউডে ফিরছেন মেগান মার্কেল

বিনোদন ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার ০২:২১ পিএম

হলিউডে ফিরছেন মেগান মার্কেল

ঢাকা : তার প্রথম পরিচয় ছিল তিনি হলিউডের একজন নামি অভিনেত্রী। কিন্তু ব্রিটিশ রাজবধূ হওয়ার পর অভিনয়কে এক অর্থে গুডবাই জানিয়েছিলেন তিনি। এবার আবারো হলিউডের রুপালি পর্দায় ফিরছেন অভিনেত্রী ও ব্রিটিশ রাজবধূ মেগান মার্কেল।

সম্প্রতি প্রিন্স হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগান মার্কেল ব্রিটিশ রাজপরিবারের সিনিয়র সদস্য হিসেবে দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। এর পরপরই জানা গেল, ডিজনির সঙ্গে ইতোমধ্যে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন অভিনেত্রী মেগান।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল ও মিরর জানায়, কানাডায় স্বামী হ্যারি ও সন্তান আর্চিকে নিয়ে ছয় সপ্তাহের দীর্ঘ ছুটি কাটাতে যাওয়ার আগে ডিজনিতে কণ্ঠ দিয়েছেন মেগান। এ থেকে প্রাপ্ত অর্থ হাতিদের সুরক্ষায় তিনি খরচ করবেন বলে জানানো হয়েছে। রাজবধূ হওয়ার আগে হলিউডে অভিনেত্রী হিসেবে দারুণ জনপ্রিয় ছিলেন মেগান। তবে রাজপরিবারের অংশ হয়ে যাওয়ার শর্ত হিসেবে অভিনয় ছাড়তে হয় তাকে। এখন ডিজনির সঙ্গে মেগানের নতুন এ চুক্তি তার অভিনয়ে ফেরার ইঙ্গিত হিসেবেই বিবেচনা করা হচ্ছে। মেগান মূলত একজন মার্কিন অভিনেত্রী ও মানবাধিকার কর্মী। ২০১১ সালে তিনি গোয়েন্দাভিত্তিক নাটক স্যুটস-এ জেইন চরিত্রে অভিনয় করে বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা পান।

এছাড়াও কল্পবিজ্ঞানভিত্তিক ‘ফ্রিংগি’ নাটকে অ্যামি জোসাপ বেশ আলোচিত হয়। এ নাটকে অভিনয় করেই নজর কাড়েন ব্রিটিশ রাজপুত্র হ্যারির। একপর্যায়ে ২০১৭ সালে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তারা। এসময় তিনি অভিনয় জীবন থেকে অবসর নিয়ে নিজেকে মানবিক কাজে নিয়োজিত করার ঘোষণা দেন। সম্প্রতি মেগান মার্কেল কানাডার ভ্যাঙ্কুভারে নারী আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

সম্প্রতি ব্রিটিশ রাজপরিবার ছেড়ে বেরিয়ে গেছেন প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মার্কেল। এরই মধ্যে ঘোষণা এসেছে, রাজকীয় পদবিও আর ব্যবহার করবেন না তারা। এমনকি রাজপরিবারের হয়ে দায়িত্ব পালনের জন্য যে অর্থ পেতেন, সেটাও বন্ধ। দাতব্য সংস্থা ‘এলিফ্যান্ট উইদাউট বর্ডার’- এ অনুদান দেওয়ার বিনিময়ে ডিজনির একটি প্রকল্পে মেগানকে কাজ দেওয়ার মাত্র মাসখানেক আগেই এ ঘটনা ঘটে।

তবে হ্যারি-মেগানের এভাবে রাজপরিবার ছেড়ে যাওয়া সবাই যে ভালো চোখে দেখছেন, তা কিন্তু নয়। গত সপ্তাহে কানাডিয়ান লেখক ও ভাষ্যকর মার্ক স্টেইন এটিকে রাজপরিবারের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ‘অধঃপতন’ বলে মন্তব্য করেন। যদিও অসংখ্য ভক্ত-সমর্থক স্বাবলম্বী হয়ে ওঠার চেষ্টা করায় হ্যারি-মেগানের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। বাজফিডের সাংবাদিক মারিসা জি মুলার লিখেছেন, ‘তার (মেগান) জন্য হ্যারির ভালোবাসা অগ্রাহ্য করার মতো নয় (সে) সঙ্গী হিসেবে যতটা সহায়ক হতে হয়, ঠিক তেমনই।’

তবে সম্প্রতি মেগান ও হ্যারি রাজপরিবার থেকে সরে দাঁড়ানোর যে ঘোষণা দিয়েছিলেন, সেখানে ‘স্বাধীনভাবে অর্থ উপার্জন’র বিষয়টিও বলা হয়েছে। অভিনয়ে মেগানের ফেরাও তার একটি মাধ্যম হতে পারে বলে মনে করছেন বোদ্ধারা।

সোনালীনিউজ/এমটিআই