রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

৬ বলে ৬ ছক্কা হাঁকিয়ে রেকর্ডের পাতায় কার্টার

ক্রীড়া ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৫ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার ০৪:২৪ পিএম

৬ বলে ৬ ছক্কা হাঁকিয়ে রেকর্ডের পাতায় কার্টার

ঢাকা: টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সৌজন্যে এখন বলে বলে ছক্কা দেখাটা নতুন কিছু নয়। এই বিপিএলেই তো মোস্তাফিজুর রহমানের টানা চার বলে চারটি ছক্কা মেরেছিলেন কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের তখনকার অধিনায়ক দাসুন শানাকা। চার বলে চার ছক্কা বা তিন বলে তিন ছক্কা হরহামেশাই দেখা যায়। কিন্তু ছয় বলে ছয় ছক্কা মারার ঘটনা ক্রিকেট ইতিহাসেই হাতে গোনা কয়েকটি।

ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি স্যার গারফিল্ড সোবার্স ছয় বলে ছয় ছক্কা মারার রেকর্ড গড়েছিলেন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে। সেটাই ছিল ছয় বলে ছয় ছক্কা মারার প্রথম ঘটনা। একই কাজ মুম্বাইয়ের হয়ে করেছিলেন বর্তমান ভারতীয় কোচ রবি শাস্ত্রী। এরপর যুবরাজ সিং, হার্শেল গিবস, হজরতউল্লাহ জাজাই, অ্যালেক্স হেলস, রস হোয়াইটলিরাও ছয় বলে ছয় ছক্কা মেরেছেন। রোববার (৫ জানুয়ারি) সেই তালিকায় নতুন সংযোজন নিউজিল্যান্ডের তরুণ ব্যাটসম্যান লিও কার্টার।

নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া টুর্নামেন্ট ড্রিম ইলেভেন সুপার স্ম্যাশে ছয় ছক্কার ঘটনা ঘটেছে। রোববার মুখোমুখি হয়েছিল ক্যান্টারবুরি কিংস ও নর্দার্ন নাইটস। আগে ব্যাট করে ২০ ওভারে ২১৯ রান তোলে নাইটস। এরপর ব্যাট করতে নামে লিও কার্টারের দল ক্যান্টারবুরি। জয়ের জন্য শেষ পাঁচ ওভারে দলটির লাগত ৩০ বলে ৬৪ রান। 

এমন পরিস্থিতিতে বল করতে আসেন আন্তন দেভচিচ। এই বাঁহাতি স্পিনারকে উড়িয়ে সবগুলো বলকেই সীমানা ছাড়া করলেন কার্টার। হয়ে গেল টানা ছয় বলে ছয় ছক্কা। এরপর শেষ চার ওভারে দরকার পড়ে ২৪ বলে ২৮ রান। এই রান তুলতে কোনো বেগই পেতে হয়নি ক্যান্টারবুরিকে। ৭ বল হাতে রেখেই জয় পেয়ে যায় দলটি। এই জয় ছাপিয়ে এখন আলোচনার কেন্দ্রে লিও কার্টার। তাঁর ছয় বলে ছয় ছক্কাই ক্যান্টারবুরিকে জয় এনে দিয়েছে। একই সঙ্গে ছয় বলে ছয় ছক্কা মারাদের সংক্ষিপ্ত তালিকাতেও ঢুকে পড়েছেন তিনি। 

কার্টারের আগে টি-টোয়েন্টিতে তিন জন ছয় বলে ছয় ছক্কা মারতে পেরেছিলেন। ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইংলিশ পেসার স্টুয়ার্ট ব্রডকে টানা ছয় বলে ছয় ছক্কা মেরেছিলেন ভারতের যুবরাজ সিং। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে যুবরাজই প্রথম যিনি এই কীর্তি গড়েন। উস্টারশায়ারের হয়ে ইয়র্কশায়ারের কার্ল ক্রেভারের ছয় বলে ছয় ছক্কা মেরেছিলেন রস হোয়াইটলি। আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগে (এপিএল)  আবদুল্লাহ মাজারির ছয় বলে ছয় ছক্কা মেরেছিলেন হযরেতউল্লাহ জাজাই। আর হার্শেল গিবস ছয় বলে ছয় ছক্কা মেরেছিলেন ২০০৭ ওয়ানডে বিশ্বকাপে, নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে। 

সোনালীনিউজ/আরআইবি/এমএএইচ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue