• ঢাকা
  • শনিবার, ১৯ জুন, ২০২১, ৫ আষাঢ় ১৪২৮
abc constructions
৬ মন কয়েন বিক্রি

ক্ষুদ্র সবজি ব্যবসায়ী খবির এখন লাখপতি


মাগুরা প্রতিনিধি অক্টোবর ২৯, ২০২০, ০৪:২৭ পিএম
ক্ষুদ্র সবজি ব্যবসায়ী খবির এখন লাখপতি

ছবি: সংগৃহীত

মাগুরা : মাগুরার মহম্মদপুরের ক্ষুদ্র সবজি ব্যবসায়ী খবির এখন লাখপতি। গলার কাঁটা কয়েনই হলো গলার মালা। ঢাকার ব্যবসায়ী মিকা ফার্মা কেয়ার লিমিটেড এর কর্ণধার নিয়ামুল কবির টিপু খবিরের সেই ছয় মন ওজনের ৬০ হাজার টাকার ধাতব মুদ্রা (কয়েন) এর বিনিময়ে এক লক্ষ টাকা দিয়েছেন। 

বুধবার (২৮ অক্টোবর) বিকালে খবিরের মহম্মপুরের বাড়িতে গিয়ে এ টাকা দেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মহম্মদপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামানন্দ পাল, স্থানীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি বিপ্লব রেজা বিকো, সাধারণ সম্পাদক মাহামুদুন নবী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। 

খবির জানান, গত ১০ বছরে ক্রেতার কাছ থেকে নেওয়া ১-২ টাকার কয়েন জমে এখন প্রায় ৬০ হাজার টাকা। ক্রেতার কাছ থেকে মুদ্রাগুলো নিলেও তার কাছ থেকে এখন আর কেউ নিচ্ছিল না। ফলে বিভিন্ন অঙ্কের এই ৬ মণ ওজনের মুদ্রা নিয়ে বিপাকে পড়েছিলাম। সবজির দাম হিসেবে এসব মুদ্রা নিলেও বুঝতে পারেননি এক রকম অচল হয়ে এসব জমে যাবে। আমি যেভাবে মানুষের পাশে দাড়িয়েছি ঠিক সেই ভাবে গণমাধ্যমের মাধ্যমে নিয়ামুল কবির টিপু আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন। এতে আমি খুবই খুশি।

খবিরের বাড়ি মহম্মদপুর উপজেলা সদরের জাঙ্গালিয়া গ্রামে। গত ২৫ বছর ধরে সবজির ব্যবসা করেন। এখন সেই গলার কাঁটা কয়েনই যে তার গলার মালা হওয়ায় খুশিতে উদ্বেলিত। যতদিন বেঁচে থাকবেন ততদিন মানুষের উপকার করবেন।

খবিরের স্ত্রী জানান, ব্যবসার পুঁজির তিনের দু’ভাগই এই কয়েনের মধ্যে আটকে ছিল। দুই ছেলে-মেয়ে স্বামীসহ চার সদস্যের পরিবার নিয়ে যে কষ্টে ছিলাম তার কিছুটা হলেও লাঘব হবে এই টাকার বিনিময়ে।

মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামানন্দ পাল বলেন, এভাবে নিয়ামুল করিমের মতো  প্রতিটি মানুষ মানুষের পাশে দাঁড়ালে এদেশ সামনে এগিয়ে যাবে।

সোনালীনিউজ/এমএএইচ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School