• ঢাকা
  • বুধবার, ২৯ জুন, ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯

নীলফামারীতে পেট্রোল-অকটেন সংকটে তিন ফিলিং স্টেশন বন্ধ


নীলফামারী প্রতিনিধি মে ৮, ২০২২, ০৭:০৩ পিএম
নীলফামারীতে পেট্রোল-অকটেন সংকটে তিন ফিলিং স্টেশন বন্ধ

নীলফামারী : নীলফামারীতে ফিলিং স্টেশনগুলোতে পেট্রোল ও অকটেন সংকট দেখা দিয়েছে। দু’একটি পাম্পে অকটেন পাওয়া গেলেও কোথাও পেট্রোল পাওয়া যাচ্ছে না। ঈদের আগের দিন থেকে এই অবস্থা চলছে বলে জানা গেছে। পেট্রোল ও অকটেন না থাকায় ডোমারের ৩টি ফিলিং স্টেশন বন্ধ রাখা হয়েছে। 

রোববার (৮ মে) সকালে ডোমার উপজেলার ৪টি ফিলিং স্টেশনের মধ্যে ৩টিতে দেখা যায়, অকটেন, পেট্রোল ও ডিজেল না থাকার অজুহাতে তেল প্রদান মেশিনগুলো কালো কাপড়ে ঢাকা। তাতে তেল নেই লেখা সংবলিত সাইনবোর্ড লাগিয়ে দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। 

খানাবাড়ীর ম্যাক্স পেট্রোলিয়ামের ম্যানেজার উজ্জ্বল হোসেন ও হংসরাজ এলাকার নন্দিতা ফিলিং স্টেশনের ম্যানেজার সুকুমার চন্দ্র রায় জানান, পার্বতীপুর ডিপো থেকে চাহিদামত তেল সরবরাহ করছে না। ফলে ফিলিং স্টেশন বন্ধ রয়েছে।
 
এছাড়া জেলা শহরের রাজা ফিলিং স্টেশন, সামসুল ফিলিং স্টেশন, রশিদা ফিলিং স্টেশনসহ কয়েকটি পাম্পের সামনে লেখা হয়েছে তেল নেই। তেল নিতে এসে যানবাহন মালিকরা ফিরে যাচ্ছেন।

জেলা সদরের বনবিভাগ এলাকায় রশিদা ফিলিং স্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে, পেট্রোল ও অকটেন না থাকায় মোটরসাইকেল চালকদের ফিরে যেতে হচ্ছে। পাম্পের গায়ে লিখে দেওয়া হচ্ছে তেল না থাকার নোটিশ। এই ফিলিং স্টেশনের কর্মচারী আব্দুর রহিম জানান, আজ রাতে শুধুমাত্র অকটেন আসার সম্ভাবনা রয়েছে। আর ৩ থেকে ৪ দিনের মধ্যে পেট্রোল আসতে পারে।

রশিদা ফিলিং স্টেশনের ব্যবস্থাপক মো. শহিদুল্লাহ জানান, ঈদের কয়েকদিন আগেই পেট্রোল সংকট চরমে পৌঁছেছে। মানুষকে দিতে পারছি না। ঈদের কিছু দিন আগে ১৪ হাজার লিটার অকটেন এসেছিল, সেগুলো দিয়ে কোনো রকমে কয়েকদিন চালিয়েছি। যার কারণে তেল না থাকায় পাম্পের গায়ে তেল নেই লিখে দিতে হয়েছে।

সোনালীনিউজ/এজি/এনএন

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System