• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২১, ১২ মাঘ ১৪২৭

কে এই গোল্ডেন মনির


নিজস্ব প্রতিবেদক নভেম্বর ২১, ২০২০, ০১:১৩ পিএম
কে এই গোল্ডেন মনির

গোল্ডেন মনির

ঢাকা : রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় শুক্রবার রাত থেকে অভিযান চালিয়ে গোল্ডেন মনিরকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। এসময় তার ছয় তলা বাসায় অভিযান পরিচালনা করে অবৈধ অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ মাদকসহ গোল্ডেন মনিরকে গ্রেফতার করা হয়। কে এই গোল্ডেন মনির? এই নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। গোল্ডেন মনির হল বিএনপির সাবেক নেতা এবং একসময়ে মহানগর বিএনপি'র যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল কাইয়ুমের প্রধান সহযোগী হিসেবে ছিলেন। 

সাম্প্রতিক সময়ে দেশে অশান্তি এবং নাশকতা সৃষ্টির জন্য বিএনপি'র যারা অর্থায়ন করছিলেন এবং তৎপর ছিলেন তাদের মধ্যে গোল্ডেন মনির অন্যতম। তারেকের সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল বলে জানা গেছে। গোল্ডেন মনিরের উত্থান ঘটে লুৎফুজ্জামান বাবর যখন স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী হয় তখন। সেসময় লুৎফুজ্জামান বাবরের মূল ব্যবসা ছিল চোরাচালান। সে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হওয়ার পর চোরাচালান সিন্ডিকেটের দায়িত্ব মনিরকে দেয়া হয়। এখান থেকেই গোল্ডেন মনির ফুলে-ফেঁপে ওঠেন এবং বিএনপি-জায়ামাত জোট সরকারের আমলে তিনি বিপুল বিত্তের মালিক হন।

বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতাচুত্য হওয়ার পর আওয়ামী লীগের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করেছিলেন গোল্ডেন মনির, কিন্তু সে চেষ্টা সফল হয়নি। তবে বিএনপিকে অর্থায়ন করা, বিভিন্ন নাশকতা তৎপরতা করা এবং অবৈধঅস্ত্র সরবরাহ করা, মাদক ব্যবসা ইত্যাদি নানা অভিযোগে অভিযুক্ত এই বিএনপি নেতা। গোল্ডেন মনির অবাধেই সব কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছিলেন। 

আইন-প্রয়োগকারী সংস্থা সূত্রে জানা গেছে, তাদের কাছে খবর ছিল যে, বিভিন্ন নাশকতার ঘটনায় গোল্ডেন মনিরের হাত রয়েছে এবং এ প্রেক্ষিতেই তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এদিকে শনিবার (২১ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব মুখপাত্র লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ জানান, গোল্ডেন মনিরের বাসা থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, কয়েক রাউন্ডগুলি, বিদেশি মদ এবং প্রায় দশটি দেশের বৈদেশিক মুদ্রা উদ্ধার করা হয়। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় নয় লাখ টাকা। এছাড়া ৬শ’ ভরি স্বর্ণালঙ্কার (আট কেজি), নগদ এককোটি ৯ লাখ টাকা জব্দ করা হয়েছে।

আশিক বিল্লাহ আরো জানান, অভিযানে তার কাছ থেকে তিন কোটি টাকা মূল্যের দুটি অনুমোদনহীন বিলাসবহুল গাড়ি এবং অটো কার সিলেকশন শো-রুম থেকে তিনটি গাড়ি জব্দ করা হয়েছে। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত আমরা ঢাকায় মনিরের ২শ’ প্লটের সন্ধান পেয়েছি।

এছাড়া একাধিক বাড়ি আছে বলে জানতে পেরেছি। রাজউক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগসাজশ করে সে রাজউকের সিল জাল করে অনেক প্লট হাতিয়ে নিয়েছে। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে একটি মামলাও চলমান আছে।

গোল্ডেন মনির মূলত একজন হুন্ডি ব্যবসায়ী ও স্বর্ণ চোরাকারবারি বলে র‌্যাব জানতে পেরেছে। পাশাপাশি সে জমির দালালি করে। বিভিন্ন দেশ থেকে ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে সে দেশে স্বর্ণ আমদানি করে। ঢাকার নতুন বাজারে তার একটি গাড়ির শো রুম আছে। মূলত এই শো রুমের আড়ালেই সব অপকর্ম করে।

র‌্যাব জানিয়েছে, তার বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে, অস্ত্র ও মাদক আইনে মোট তিনটি মামলা করা হবে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে তদন্ত করার জন্য, দুদক, বিআরটিএ সিআইডি ও এনবিআরের কাছে চিঠি দেবে র‌্যাব।

সোনালীনিউজ/এএস