• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭
Sonalinews.com

তদন্ত কমিটি গঠনের পরে লুজারের শীর্ষে জিকিউ বলপেন


নিজস্ব প্রতিবেদক সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০, ০৪:৩২ পিএম তদন্ত কমিটি গঠনের পরে লুজারের শীর্ষে জিকিউ বলপেন

ফাইল ছবি

ঢাকা: শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত জিকিউ বলপেনের অস্বাভাবিক শেয়ার দর বৃদ্ধির কারন অনুসন্ধানে তদন্ত কমিটি গঠন ও সন্দেহজনক ১০টি বেনিফিশিয়ারি ওনার্স (বিও) হিসাবের লেনদেন বন্ধের (ফ্রিজ) পরে বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দর সর্বোচ্চ শেয়ার দর কমেছে কোম্পানিটির।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) জিকিউ বলপেনের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ২৪০.৩০ টাকায়। বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ার দর দাঁড়ায় ২১৯.৩০ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ২১ টাকা বা ৮.৭৩ শতাংশ কমেছে। এর মাধ্যমে জিকিউ বলপেন ডিএসইর টপটেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে।

বুধবার জিকিউ বলপেনের অস্বাভাবিক শেয়ার দর বৃদ্ধির কারন অনুসন্ধানে তদন্ত কমিটি গঠন করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। একইসঙ্গে সন্দেহজনক ১০টি বেনিফিশিয়ারি ওনার্স (বিও) হিসাবের লেনদেন বন্ধ করে।

লোকসানি জিকিউ বলপেনের গত ৭ জুলাই শেয়ার দর ছিল ৬৬.১০ টাকা। যা বেড়ে ১৬ সেপ্টেম্বর দাড়িঁয়েছে ২৪০.৩০ টাকায়। অর্থাৎ গত ২ মাস কয়েকদিন বেশি সময়ের ব্যবধানে শেয়ারটির দর বেড়েছে ১৭৪.২০ টাকা বা ২৬৪ শতাংশ। তবে এই অস্বাভাবিক দর বৃদ্ধির পেছনে কোন কারন নেই বলে গত ২৪ আগস্ট ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে জানিয়েছে জিকিউ কর্তৃপক্ষ।

দুই সদস্যের তদন্ত কমিটিকে ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে কমিশনের প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। বিএসইসির সহকারী পরিচালক শহীদুল ইসলাম এবং বিও হিসাব ও শেয়ার ধারণকারী প্রতিষ্ঠান সেন্ট্রাল ডিপজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেডের (সিডিবিএল) অ্যাপ্লিকেশন সাপোর্ট বিভাগের প্রধান মঈনুল হকের সমন্বয়ে এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

এ বিষয়ে বিএসইসির নির্বাহি পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) ও মূখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, কোম্পানিটির অস্বাভাবিক দর বৃদ্ধিতে ১০টি বিও হিসাবকে সন্দেহজনক মনে করা হচ্ছে। ওই ১০টি বিও হিসাবে জিকিউ বলপেনের ৩০ লাখ শেয়ার লেনদেন করা হয়েছে। যে কারনে ওই বিওগুলো জব্দ (ফ্রিজ) করা হয়েছে। তদন্ত কার্যক্রম শেষ না হওয়া পর্যন্ত বিওগুলোর সব কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

বৃহস্পতিবার ডিএসইতে টপটেন লুজার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে হাক্কানি পাল্পের ৭.৪২ শতাংশ, মেঘনা পেটের ৭.১৮ শতাংশ, ইনফর্মেশন সার্ভিসেসে নেটওয়ার্কের ৬.১৭ শতাংশ, ফু-ওয়াং সিরামিকের ৫.৬৩ শতাংশ, আরএসআরএম স্টিলের ৫.৪৪ শতাংশ, এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের ৫.০১ শতাংশ, ইমাম বাটনের ৪.৮৯ শতাংশ, ন্যাশনাল ফিড মিলসের ৪.৬২ শতাংশ এবং আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের শেয়ার দর ৪.৫৪ শতাংশ কমেছে।

সোনালীনিউজ/এলএ/এমএএইচ

Side banner