• ঢাকা
  • শনিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
Sonalinews.com

বিএসইসি বর্তমানে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর ইস্যুতে কাজ করছে


নিজস্ব প্রতিবেদক সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০, ০৭:২৫ পিএম
বিএসইসি বর্তমানে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর ইস্যুতে কাজ করছে

ছবি: প্রতিনিধি

ঢাকা: ইন্সটিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশ (আইসিএসবি) সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) “কর্পোরেট ওয়ার্ল্ডে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর এর ভূমিকা” শীর্ষক সিপিডি সেমিনার ভার্চুয়ালি আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক শিবলি রুবায়াত-উল-ইসলাম, চেয়ারম্যান (সিনিয়র সচিব), বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের কমিশনার ড. মোঃ মিজানুর রহমান। ইনস্টিটিউটের সদ্য প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এবং প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সানাউল্লাহ এফসিএস সিপিডি প্রোগ্রামের সভাপতিত্ব করেন। মোজাফফর আহমেদ এফসিএস, প্রেসিডেন্ট, আইসিএসবি স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন। সিএস নিসার আহমদ, প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট, ইন্সটিটিউট অব কোম্পানির সেক্রেটারি অব ইন্ডিয়া (আইসিএসআই) এবং প্রেকটিসিং কোম্পানি সেক্রেটারি, নেসার অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটস, ভারত এই বিষয়টির মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। মূল প্রবন্ধ এর উপর মনোনীত আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ ইউনুসুর রহমান, চেয়ারম্যান, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড এবং আক্তার মতিন চৌধুরী এফসিএ, এফসিএস, আইসিএসবির কাউন্সিল সদস্য ।

ইনস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট মোজাফফর আহমেদ এফসিএস তার স্বাগত বক্তব্যে সকলকে যোগদানের জন্য ধন্যবাদ জানান এবং আশা করেন যে এই অধিবেশনটির মাধ্যমে সদস্যরা উপকৃত হবেন। তিনি অধ্যাপক শিবলী রুবায়াত-উল-ইসলামকে তার উপস্থিতি জন্য বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান। তিনি প্রত্যাশা করেন যে আইসিএসবি এবং বিএসইসির সহযোগিতা দীর্ঘকাল চলবে। 

তিনি আরও বলেন, এখন আইসিএএসবির অনেক দক্ষ পেশাদার আছেন সুতরাং বিএসইসি গভরনেন্স অডিট শুধুমাত্র চার্টার্ড সেক্রেটারিদের জন্য রাখতে পারে। মূল প্রবন্ধ এর উপস্থাপক সিএস নিসার আহমদ তার উপস্থাপনায় ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর এর বিভিন্ন বিষয়ে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ এবং এশিয়ার গ্লোবাল ট্রেন্ডস সম্পর্কিত ব্যাপারে আলোচনা করেন। 

তিনি মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, বাংলাদেশ ও ভারতের তুলনামূলক বিশ্লেষণ করেন এবং অ্যাংলো মার্কিন মডেল ও জাপানিদের কর্পোরেট প্রশাসনের মডেল নিয়েও আলোচনা করেন। তিনি স্বতন্ত্র পরিচালকদের দায়িত্ব, ভূমিকা ও কার্যাবলি তুলে ধরেন। তিনি ডিরেক্টরস ডাটাবেস তৈরির পরামর্শ দেন। মোঃ ইউনুসুর রহমান মূল প্রবন্ধ উপস্থাপককে তার উপস্থাপনার জন্য ধন্যবাদ জানান। তিনি ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের দায়িত্ব সম্পর্কে মতামত ব্যক্ত করেন। তিনি বাংলাদেশ, ভারত ও মালয়েশিয়ার ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের সম্মানীর তুলনা করে দেখান। তিনি বলেন যে বাংলাদেশে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরের পদটি একটি অলংকারিক পদ এবং সামাজিক গর্ব ও মর্যাদার একটি ব্যাপার। ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের যথাযথ নির্বাচন করা গুরুত্বপূর্ণ এবং বিএসইসি দ্বারা পর্যালোচনা হওয়া দরকার।

আলোচনায় অংশ নিয়ে আক্তার মতিন চৌধুরী এফসিএ, এফসিএস ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের বিভিন্ন ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি নৈতিক আচরণ এবং দীর্ঘমেয়াদী কৌশলগত দৃষ্টিভঙ্গির কথাও উল্লেখ করেছিলেন। সঠিক উদ্দেশ্য অনুযায়ী নিজেকে ঠিক রাখা একজন স্বতন্ত্র পরিচালকের পক্ষে সত্যিকারের চ্যালেঞ্জ। বিএসইসির স্বতন্ত্র পরিচালকদের একটি রেফারেন্স তালিকা তৈরি করতে কিনা।

সিপিডি প্রোগ্রামের সভাপতি মোহাম্মদ সানাউল্লাহ এফসিএস এই প্রোগ্রামের সার সংক্ষেপ উপস্থাপন করেন এবং নিম্নোক্ত প্রস্তাবনা পেশ করেনঃ

১. ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের সংখ্যা বিশ্বব্যাপী প্র্যাকটিস এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে কমপক্ষে এক তৃতীয়াংশ বজায় রাখতে হবে;

২. মনোনীত পরিচালকগণকে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর হিসাবে বিবেচনা করা উচিত নয়;

৩. যোগ্যতা, পরিচালক হিসাবে দীর্ঘ অভিজ্ঞতা, ব্যবসায় জ্ঞান এবং নৈতিক নেতৃত্বের ভিত্তিতে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর প্যানেল প্রস্তুত করা দরকার;

৪. ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের ফি এবং সম্মানী পর্যাপ্ত হতে হবে;

৫. ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের পারফরম্যান্স সঠিকভাবে মূল্যায়ন করা দরকার;

৬. ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের ডিক্লারেশন বজায় রাখা হবে;

৭. ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের ধারণাটি তালিকাভুক্ত নয় এমন সংস্থা এবং রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাগুলিতেও অন্তর্ভুক্ত করা দরকার;

৮. ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের বিকাশের জন্য তাদের প্রশিক্ষণ এর অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

পরিচালকদের বিকাশের জন্য আইসিএসবি সর্বদা প্রশিক্ষণ কর্মসূচী আয়োজন করতে আগ্রহী। আইসিএসবি সবসময় বিএসইসির সহযোগিতায় কাজ করতে চায়।

বিশেষ অতিথি ড. মোঃ মিজানুর রহমান বলেন যে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের স্বার্থ পরিচালনা করতে হবে এবং তাদের সমস্যা প্রশমিত করতে হবে। একটি সমস্যা রয়েছে যে বিপুল সংখ্যক শেয়ারহোল্ডারদের কথা ব্যবস্থাপনা পর্ষদ পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে না। কর্পোরেট গভর্নেন্স কোড ভালভাবে সংজ্ঞায়িত না। আমরা যুক্তরাজ্য, জাপান এবং মার্কিন কোডগুলি পর্যালোচনা করে এটি উন্নত করতে কাজ করছি। আমাদের ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের স্বাধীনতা এবং তাদের যোগ্যতা নতুনভাবে সংজ্ঞায়িত করতে হবে। প্রতিটি পরিচালক স্বতন্ত্রভাবে এবং যৌথভাবে দায়বদ্ধ হতে হবে যে কিভাবে পরিচালনা হচ্ছে। বিএসইসি গভীরভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের প্রশিক্ষণ প্রদানের প্রত্যাশায় রয়েছে।

প্রধান অতিথি অধ্যাপক শিবলি রুবায়াত-উল-ইসলাম ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর ইস্যুতে অনুষ্ঠানের আয়োজন করার জন্য ধন্যবাদ জানান। তথ্যনির্ভর উপস্থাপনার জন্য তিনি সিএস নিসার আহমদকেও ধন্যবাদ জানান। 

তিনি বলেন, বিএসইসি বর্তমানে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর ইস্যুতে কাজ করছে। ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরদের ভূমিকা বিস্তৃত এবং গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন যে বাংলাদেশের অনেক সংস্থায় কেবল আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধবদের স্বতন্ত্র পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় এবং তারা তাদের যথাযথ ভূমিকা পালন করছেন না।

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের সাথে কথা বলা আমাদের বিকশিত হওয়ার দিকনির্দেশনা দেয়। প্রাণবন্ত ভার্চুয়াল প্রোগ্রামটি একটি ইন্টারেক্টিভ প্রশ্নোত্তর পর্বের মাধ্যমে শেষ হয়েছিল যেখানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপক অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলেন। 

পরিশেষে, প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট কমিটির মেম্বারসেক্রেটারি জনাব মোঃ নজরুল ইসলাম চৌধুরী এসিএস আইসিএসবির পক্ষ থেকে সবাইকে ধন্যবাদ জানান। দেশের বিভিন্ন তালিকাভুক্ত সংস্থা, কর্পোরেট নেতৃবৃন্দ এবং সরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ইনস্টিটিউটের বিপুল সংখ্যক সদস্য প্রোগ্রামে উপস্থিত ছিলেন।

সোনালীনিউজ/এলএ/এমএএইচ

Side banner