• ঢাকা
  • সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১১ আশ্বিন ১৪২৯

লভ্যাংশ কমেছে যেসব মিউচ্যুয়াল ফান্ডে


আবদুল হাকিম আগস্ট ১৬, ২০২২, ০২:২৭ পিএম
লভ্যাংশ কমেছে যেসব মিউচ্যুয়াল ফান্ডে

ঢাকা: পুঁজিবাজারে ধারাবাহিক ধ্বস এবং চলমান অর্থনৈতিক সংকটের কারণে আয় কমেছে পাবলিক ট্রেড করা অ্যাসেট ম্যানেজারদের মিউচ্যুয়াল ফান্ডের। এজন্য ২০২২ অর্থবছরের জন্য ফান্ডগুলো কম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে।

তালিকাভুক্ত ৩৬টি মিউচুয়াল ফান্ড (MFs)  জুন-জুলাই অর্থবছরের হিসাব ক্লোজ করা ২০ টি ফান্ডের আর্থিক বিবরণী প্রকাশ করে৷ এর মধ্যে ১৬ টি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের আগের চেয়ে কম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে, দুটি একটু বেশি লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও অন্য দুটি আগের বছরের মতো একই হারে লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে।

এদিকে, ২০ টি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে ৯টি তহবিলের ইউনিট প্রতি আয় (EPU) আগের তুলনায় ২০২২ অর্থবছরে আয় কমেছে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চলতি বছরের শুরু থেকেই বাজারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। যা মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোর মুনাফাকে প্রভাবিত করেছে। যার কারণে বিগত বছরের তুলনায় এ বছর ইউনিটহোল্ডারদের জন্য মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলো কম লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

‘২০২০-২১ অর্থবছরে ডিএসইএক্স ইনডেক্স ৫৪.৪৮ শতাংশ পুনরুদ্ধার করেছে, সেখানে বাজারে ফিরেছে মাত্র ৩.৬৮ শতাংশ। যা মার্কেটে আমাদের ডিভিডেন্টের উপরে প্রভাব পড়ে।’ 

এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশের আইনি ও কমপ্লায়েন্স বিভাগের প্রধান মনোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের পোর্টফোলিওর ৮০ শতাংশের বেশি সেকেন্ডারি মার্কেটে বিনিয়োগ করা হয়। তা সত্ত্বেও আমাদের মোট রিটার্ন এবং এনএভি ভিত্তিতে বা মূল্যের ভিত্তিতে উভয়ই বাজারকে ছাড়িয়ে গেছে। 

আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ইউনিট প্রতি আমাদের আয় কম। অক্টোবর থেকে বাজার নিম্নমুখী। আইপিও আয় কম হতে পারে। তবে ছোট তহবিল এটি থেকে উপকৃত হবে।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) এক কমিশনার বলেন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড শেয়ারবাজারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কিন্তু গত ১০ বছরে মিউচ্যুয়াল ফান্ড বিনিয়োগকারীদের প্রত্যাশা পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে।

তিনি বলেন, যদি বাজার পতন হয়, মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলি ভালো করতে পারে না এবং বিনিয়োগকারীদের স্থিতিশীল রিটার্ন দিতে পারে না। 

মূল বোর্ডে তালিকাভুক্ত আইপিওর সংখ্যা আগের বছর ছিল ১৫টি। যা ২০২২ অর্থবছরে কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র ৯ টি, যার কারণে মূলধন লাভ কম হয়েছে। তিনি বলেন, সুদের হার কম হওয়ায় সুদের আয়ও কম হয়েছে।

২০২১ অর্থবছরে দেশের শেয়ারবাজার ভালো থাকায় সমস্ত মিউচ্যুয়াল ফান্ড প্রচুর মুনাফা করেছে এবং এ সময় ভালো লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। ৩০ টি closed-end মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে, ২০টি মিউচ্যুয়াল ফান্ড আগের অর্থবছরে উল্লেখযোগ্য লোকসান থেকে বিগত আর্থিক বছরে লাভে ফিরে এসেছে।

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৩৬টির মধ্যে মোট ২৭টি closed-end মিউচ্যুয়াল ফান্ড দীর্ঘদিন ধরে তাদের অভিহিত মূল্য এবং নেট অ্যাসেট ভ্যালুর (এনএভি) নীচে লেনদেন হয়েছে, যা স্থানীয় এবং পোর্টফোলিও উভয় বিনিয়োগকারীদের হতাশ করেছে।

অ্যাসেট ম্যানেজার কোম্পানির তথ্য অনুযায়ী, আগের বছরের তুলনায় ২০২২ অর্থবছরে ইউনিট প্রতি ১৯ মিউচুয়াল ফান্ডের আয় কমেছে। এছাড়া ১৬টি ফান্ড কম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে।

তাদের মধ্যে, EBL ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের সর্বোচ্চ আয় ৯২.৭২ শতাংশ কমেছে। সমাপ্ত বছরের জন্য ইউনিটহোল্ডারদের জন্য ৬.৫ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে, যা আগের বছরের ১৩ শতাংশ থেকে কম ছিল।

ফার্স্ট জনতা ব্যাংক মিউচুয়াল ফান্ডের ইপিইউ ৯০.৫৫ শতাংশ কমে ০.২৫ টাকা হয়েছে। তহবিলটি সমাপ্ত বছরের জন্য তার ইউনিটহোল্ডারদের জন্য ৭ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে, যা আগের বছরের ১৩ শতাংশ থেকে কম ছিল।

পপুলার লাইফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইপিইউ ৪৪ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে, যা ২০২২ অর্থবছরের জন্য ৮.৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৭ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে।

এছাড়াও ইপিইউ কমেছে CAPM IBBL ইসলামিক মিউচ্যুয়াল ফান্ড, DBH ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, CAPM BDBL মিউচ্যুয়াল ফান্ড ১, গ্রীন ডেল্টা মিউচ্যুয়াল ফান্ড, SEML লেকচার ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ড, MBL ফাস্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, AIBL ফাস্ট ইসলামিক মিউচ্যুয়াল ফান্ড, এশিয়ান টাইগার সন্ধানী লাইফ গ্রোথ। 
এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ড, ইবিএল এনআরবি মিউচ্যুয়াল ফান্ড, ট্রাস্ট ব্যাংক ১ম মিউচ্যুয়াল ফান্ড, পিএইচপি ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড, এবি ব্যাংক ১ম মিউচ্যুয়াল ফান্ড, আইএফআইসি ব্যাংক ১ম মিউচ্যুয়াল ফান্ড, এক্সিম ব্যাংক ১ম মিউচ্যুয়াল ফান্ড এবং ফার্স্ট বাংলাদেশ ফিক্সড ইনকাম ফান্ড।

এছাড়া, ফিনিক্স ফাইন্যান্স ১ম মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইপিইউ আগের বছরের তুলনায় ২০২২ অর্থবছরে ৫৬.২৫ শতাংশ বেড়েছে। ইউনিটহোল্ডারদের জন্য, তহবিল ব্যবস্থাপক ৫ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছেন, যা ২০২১ অর্থবছরের জন্য ৬ শতাংশ ছিল।

অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে মিউচুয়াল ফান্ডের জনপ্রিয়তার পেছনে ছয়টি কারণ চিহ্নিত করেছেন শেয়ারবাজার বিশেষজ্ঞরা। কারণগুলি হল নিম্ন আর্থিক স্বাক্ষরতা, মিউচুয়াল ফান্ড ইউনিট ক্রয়/বিক্রয় করার সহজ উপায় নেই, নির্দিষ্ট আয় কেন্দ্রীভূত তহবিলের অভাব, সম্পদ এবং খাত বরাদ্দের জন্য কঠোর বিনিয়োগের সীমাবদ্ধতা, প্রচারের অভাব; এবং বিনিয়োগযোগ্য কোম্পানি।

বাংলাদেশে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) এমএফের সম্পদ, যা মাত্র ০.৫৩ শতাংশ, উদীয়মান অর্থনীতির মধ্যে সবচেয়ে কম। অনুপাত ভারতের জন্য ১১ শতাংশ, মালয়েশিয়ায় ৩২ শতাংশ, পাকিস্তানে ১.৫১ শতাংশ, যুক্তরাজ্যে ৭৩ শতাংশ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১১৮ শতাংশ। বিশ্বব্যাপী গড় ৬২ শতাংশ।

যাইহোক, ভারতের ৪৯টি AMC এর বিপরীতে বাংলাদেশে প্রায় ৫০টি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি (AMCs) রয়েছে।

সোনালীনিউজ/এআর

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System