• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন, ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮
abc constructions

বৈষম্যমুক্ত পে-স্কেল দাবি নিম্ন গ্রেডের কর্মচারীদের


নিজস্ব প্রতিবেদক মে ১১, ২০২১, ১২:৫২ পিএম
বৈষম্যমুক্ত পে-স্কেল দাবি নিম্ন গ্রেডের কর্মচারীদের

ঢাকা: অতীতের পে-স্কেলগুলো পর্যালোচনা করলে দেখা যায় অতীতে প্রদত্ত পে-স্কেলের তুলনায় বর্তমানে প্রদত্ত পে-স্কেলে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়। কিন্তু ২০১৫ সালের পে-স্কেলে কর্মকর্তাদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি পেলেও কর্মচারিদের চরমভাবে ঠকানো হয়েছে।

আগে টাইমস্কেল ছিল তিনটি। যা নিম্নপদস্থ কর্মচারিরা চাকরিজীবনের ৮, ১২, ১৫ বছর পূর্তিতে পেতেন। এতে নিম্নপদস্থ কর্মচারিরা পদোন্নতি বঞ্চিত থাকলেও আর্থিকভাবে লাভবান হতেন। টাইমস্কেলে উচ্চ ধাপে ফিক্সেশনের পাশাপাশি বাড়তি একটা ইনক্রিমন্ট সুবিধা পাওয়া যেত। বর্তমান পে-স্কেলে তিনটি টাইমস্কেল প্রথা বিলুপ্ত করে ১০ ও ১৬ বছরে দুইটি উচ্চতর গ্রেড কার্যকর করা হয়েছে যা কর্মচারিদের সাথে তামাশা ছাড়া আর কিছুই নয়। ১০ ও ১৬ বছর পদোন্নতিবিহীন চাকরি করার পর একজন কর্মচারির বেতন বাড়ে সর্বনিম্ন ১০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩৫০ টাকা। 

ফেসবুক থেকে নেয়া

অন্যদিকে ১১-২০ গ্রেডের নিম্নপদস্থ কর্মচারিদের মত কর্মকর্তাদের একটি বড় অংশকে ১০ ও ১৬ উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তির জন্য চাতক পাখির মত অপেক্ষা করতে হয় না। কারণ বেশিরভাগ কর্মকর্তাদের নিয়মতান্ত্রিকভাবে পদোন্নতি হয়। অনেক ক্ষেত্রে পদ না থাকলেও উপরের শ্রেণির কর্মকর্তাদের পদোন্নতি হয়। আর বেতন ও পদোন্নতি ছাড়াও কর্মকর্তাদের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার ব্যাপারে সকলেই অবগত আছেন।

১১-২০ গ্রেডের সুবিধা বঞ্চিত কর্মচারিদের দীর্ঘ দিনের দাবী একটি বৈষম্যমুক্ত পে-স্কেল প্রদানের জন্য সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সবিনয় অনুরোধ জানাচ্ছি। কারণ বর্তমান উর্ধ্বমুখী বাজারে কর্মকর্তাদের পরিবারের দৈনন্দিন ব্যয় নির্বাহ করা কষ্টসাধ্য না হলেও কর্মচারিদের অবস্থা শোচনীয়।

সোনালীনিউজ/আইএ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School