• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২১, ৮ মাঘ ১৪২৭

একদিনে নতুন ডেঙ্গু আক্রান্ত ২১ জন, হাসপাতালে ৮৮


নিজস্ব প্রতিবেদক নভেম্বর ২৫, ২০২০, ০৪:৪১ পিএম
একদিনে নতুন ডেঙ্গু আক্রান্ত ২১ জন, হাসপাতালে ৮৮

ঢাকা: এডিশ মশাবাহিত ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২২ জন দেশের বিভিন্ন হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হয়েছেন। দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গ রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ৮৮ জনে।

 বুধবার (২৫ নভেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র মতে, নতুন ২২ ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর মধ্যে ঢাকার হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হয়েছেন ২১ জন। আর ঢাকার বাইরে একজন রোগী ভর্তি হয়েছেন। এছাড়া বর্তমান চিকিৎসাধীন ৮৮ ডেঙ্গু রোগীর মধ্যে ৮৩ জন ঢাকাতে এবং বাকি ৭ জন দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। 

সরকারি প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরে এখন পর্যন্ত এক হাজার ৬৭ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৯৭৩ জন ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) ডেঙ্গু সন্দেহে এখন পর্যন্ত ছয়টি মৃত্যুর তথ্য প্রেরিত হয়েছে। আইইডিসিআর দুটি ঘটনার পর্যালোচনা সমাপ্ত করে একটি মৃত্যু ডেঙ্গুজনিত বলে নিশ্চিত করেছে।

গত বছর দেশে ডেঙ্গুর ভয়াবহ প্রাদুর্ভাব দেখা দেয় এবং সরকারি পরিসংখ্যান অনুসারে মশাবাহিত এ রোগে তখন ১৭৯ জন মারা যান।

ডেঙ্গু ছড়ায় এডিস মশার কারণে। ডেঙ্গু জ্বরের জীবাণুবাহী মশা কোনো ব্যক্তিকে কামড়ালে সেই ব্যক্তি চার থেকে ছয় দিনের মধ্যে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন। এবার এ আক্রান্ত ব্যক্তিকে কোনো জীবাণুবিহীন এডিস মশা কামড়ালে সেই মশাটিও ডেঙ্গু জ্বরের জীবাণুবাহী মশায় পরিণত হয়। এভাবে একজন থেকে অন্যজনে মশার মাধ্যমে ডেঙ্গু ছড়িয়ে থাকে।

ডেঙ্গুতে সাধারণত তীব্র জ্বর এবং সেই সঙ্গে শরীরে প্রচণ্ড ব্যথা হয়। জ্বর ১০৫ ডিগ্রি ফারেনহাইট পর্যন্ত হয়। শরীরে বিশেষ করে হাড়, কোমর, পিঠসহ অস্থিসন্ধি ও মাংসপেশিতে তীব্র ব্যথা হয়। এ ছাড়া মাথাব্যথা ও চোখের পেছনে ব্যথা হয়। গায়ে রেশ হতে পারে। এর সাথে বমি বমি ভাব হতে পারে।

সোনালীনিউজ/এমএইচ