• ঢাকা
  • শনিবার, ২৫ জুন, ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯

ডায়াবেটিস আছে বলে কী আম খাবেন না


স্বাস্থ্য ডেস্ক মে ২৩, ২০২২, ১২:৩৯ পিএম
ডায়াবেটিস আছে বলে কী আম খাবেন না

ফলের রাজা আম। ফাইল ছবি

ঢাকা : গ্রীষ্মকালীন ফলের মধ্যে স্বাদ ও পুষ্টিতে আম সব থেকে এগিয়ে। আর এ কারণেই ফলের রাজা আম। আমের মিষ্টি ঘ্রাণ ও স্বাদ নিতে অনেকেই সারা বছর গ্রীষ্মের অপেক্ষায় থাকে। হিমসাগর, ল্যাংড়া, আম্রপালি— বাজার ছেয়ে যায় নানা স্বাদের আমে।

স্বাদের যত্ন নেওয়ার পাশাপাশি আম শরীর ভাল রাখতেও দারুণ সাহায্য করে। আমে রয়েছে ভরপুর ভিটামিন সি। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতেও আম অত্যন্ত কার্যকর।

পুষ্টিবিদেরা বলেন, মৌসুমি এ ফলের পুষ্টি সব বয়সী মানুষের জন্যই প্রয়োজন। এমনকি ডায়াবেটিস রোগীদেরও আমের পুষ্টিগুণ থেকে দূরে থাকার প্রয়োজন নেই।

আমে প্রচুর ভিটামিন ও মিনারেল পাওয়া যায়। এক কাপ কাটা আমে ৯৯ ক্যালোরি, ১.৪ গ্রাম প্রোটিন, ২.৬ গ্রাম ফাইবার, ৬৭ শতাংশ ভিটামিন সি, ২৫ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ২২.৫ গ্রাম চিনি, ১৮ শতাংশ ফোলেট, ১০ শতাংশ ভিটামিন ই এবং ১০ শতাংশ ভিটামিন এ রয়েছে। এছাড়া ক্যালসিয়াম, জিঙ্ক, আয়রন ও ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে।

তবে যারা ডায়াবেটিসের সমস্যায় ভুগছেন, তারা আম খেতে পারবেন কি না, তা নিয়ে রয়েছে দ্বন্দ্ব। এর কারণ মূলত আমে শর্করার পরিমাণ অনেকটাই বেশি। তবে পুষ্টিবিদরা বলছেন, ডায়াবেটিস রোগীরাও আম খেতে পারেন।

সেক্ষেত্রে আম খাওয়ার নির্দিষ্ট কয়েকটি উপায় মেনে চলতে হবে। সেই উপায় মেনে চললে ডায়াবেটিস রোগীর পাশাপাশি যারা রোগা হতে চাইছেন, তারাও অনায়াসে খেতে পারেন আম।

ডায়াবেটিস রোগীরা যেভাবে আম খাবেন : আমের খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিন। তারপর আমের ওই টুকরোগুলো কিছুক্ষণ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। প্রায় এক ঘণ্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখার পর তা পিষে নিয়ে শেক বানিয়ে তারপর খান। এভাবে আম খেলে রক্তে শকর্রার পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা কম।

এছাড়া আম খেয়েও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইলে একোথে অনেক আম খাওয়া এড়িয়ে চলুন। অনেকেই একদিনে অনেকটা আম খেয়ে সেই ভারসাম্য বজায় রাখতে পরের কয়েক দিন আম থেকে দূরে থাকেন।

পুষ্টিবিদরা বলছেন, এতে সমস্যা বাড়বে বই কমবে না। তার চেয়ে একসাথে অনেক আম না খেয়ে রোজ অল্প অল্প করে আম খেতে পারেন। তবে পরিমাণে কিন্তু খুবই অল্প হতে হবে। বড় এক টুকরো বা ছোট ছোট দু’টুকরো আম খেতে পারেন। রক্তে শর্করার পরিমাণ বজায় রাখতে আম খাওয়ার ক্ষেত্রে এটুকু নিয়ম মেনে চললেই ভাল।

আবার মিষ্টি আমে গোলমরিচ বা লেবুর রস মিশিয়ে জুস করে খেলে ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভালো। এছাড়া আমের সাথে আরো কিছু ফল, যেমন আনারস বা নাশপাতি মিশিয়ে খেলে সরাসরি আমের মিষ্টির প্রভাব পড়বে না।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System