• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২১, ২ বৈশাখ ১৪২৮
abc constructions

প্রয়োজনে কঠোর হওয়ার হুঁশিয়ারি পুলিশের


নিজস্ব প্রতিবেদক এপ্রিল ৭, ২০২১, ১১:১২ পিএম
প্রয়োজনে কঠোর হওয়ার হুঁশিয়ারি পুলিশের

ঢাকা : করোনা সংক্রমণ রোধে এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণার দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে অন্য সরকারি সংস্থার মতো মাঠে ছিল পুলিশ। পাশাপাশি নিজেদের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে সতর্কতা অবলম্বন করে তারা।

তবে জনগণ স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি নির্দেশনা না মানলে প্রয়োজনে কঠোর হওয়ার হুঁশিয়ারিও দেন পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তারা।

গত বছর করোনা সংক্রমণ রোধে সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে পুলিশের ভূমিকা দৃষ্টি কেড়েছিল দেশ-বিদেশে। মানবিক পুলিশ হিসেবে সাধারণ মানুষের মনে ঠাঁই করে নিয়েছিলেন পুলিশ সদস্যরা। এই কাজ করতে গিয়ে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। প্রাণও দিতে হয়েছিল অনেক পুলিশ সদস্যকে। গত বছরের অভিজ্ঞতার আলোকে এবার নিজেদের স্বাস্থ্যঝুঁকির বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করছে পুলিশ।

এদিকে সোমবার লকডাউনের প্রথম দিন সকাল থেকে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে চেকপোস্ট বসিয়ে ও টহল দিয়ে সচেতনতা গড়ে তুলতে রাজধানীতে কাজ করে পুলিশ। বিভিন্ন জায়গায় অস্থায়ী চেকপোস্ট বসিয়ে ও টহল টিমের মাধ্যমে ডিএমপির বিভিন্ন থানার পুলিশ সদস্যরা গাড়ি থামিয়ে কাগজপত্র চেক করেন। অকারণে যারা গাড়ি নিয়ে বের হন তাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেন তারা। তবে সেই সংখ্যাও ছিল কম।

বিনা প্রয়োজনে যারা ঘর থেকে বের হয়েছেন তাদেরও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে এবং মাস্ক পরিধান ছাড়া যারা রাস্তায় যারা বের হয়েছেন তাদেরও গতকাল নিষেধাজ্ঞার নিয়ম মেনে চলার জন্য অনুরোধ করেছেন পুলিশ সদস্যরা।

দক্ষিণখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিকদার মোহাম্মদ শামীম বলেন, আইজিপি ও ডিএমপি কমিশনারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পুলিশ সদস্যদের স্বাস্থ্যবিধি পালনের যে নির্দেশ দিয়েছেন কঠোরভাবে তা পালন করছেন পুলিশ সদস্যরা। মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করছে পুলিশ। জনসাধারণকেও এ বিষয়গুলো পালনে জন্য উদ্বুদ্ধ করছেন তারা।

দিকে করোনার সংক্রণ রোধে সরকার ঘোষিত কঠোর স্বাস্থ্যবিধি ও বিধিনিষেধ অনেক এলাকায় মানা হচ্ছে না। এ ক্ষেত্রে পুলিশের অবস্থানও ঢিলেঢালা দেখা যায়।

এ ছাড়া  রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার  অলিগলিতে আগের মতো দোকানপাটসহ সবকিছু খোলা ছিল।

এ ব্যাপারে পুলিশ জানিয়েছে, লকডাউনের প্রথম দিন হওয়ায় তারা নগরবাসীকে নিয়ম মেনে চলার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। এর পরও যদি মানুষ আইন না মেনে চলেন, তাহলে পুলিশ কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

সার্বিক বিষয়ে ডিএমপির অতিরিক্ত উপকমিশনার (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স) ইফতেখায়রুল ইসলাম বলেন, গত বছর সারা বিশ্বের মতো বাংলদেশেও করোনার অভিজ্ঞতা ছিল প্রথম। তাই অনেক কিছুই ছিল আমাদের জন্য নতুন।

তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণ থেকে নিজেদের রক্ষার পাশাপাশি পুলিশ তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্বও পালন করে যাচ্ছে। প্যাট্রল মুভমেন্ট, চেকপোস্ট স্থাপনসহ সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে পুলিশ। ফলে ঢাকার বাইরে থেকে কোনো ধরনের যানবাহন ঢাকায় প্রবেশ করতে পারেনি।

পাড়া-মহল্লার চায়ের দোকানসহ বিভিন্ন স্থানে অযথাই মানুষের আড্ডার বিষয়ে পুলিশের তেমন কোনো ভূমিকা দেখা যায়নি-এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সরকারি প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত নাগরিকরা মাস্ক পরিধান করে বাইরে বের হতে পারবে বলে উল্লেখ আছে। পুলিশ সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ীই কাজ করে যাচ্ছে।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School