• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯

কর্মকর্তা সংকটে ভুগছে যে মন্ত্রণালয়


নিজস্ব প্রতিবেদক সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২২, ০৭:৫৭ পিএম
কর্মকর্তা সংকটে ভুগছে যে মন্ত্রণালয়

ঢাকা: শূন্য পদে পদায়নের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবের কাছে গত ৮ মে আধা সরকারি পত্র দিয়েছিলেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি। প্রতিমন্ত্রীর এই চিঠির ৪ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনও ৮টি পদ শুন্য রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে এবার জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনকে আধা সরকারি পত্র দিয়েছেন তিনি। সংশ্লিষ্ট সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। 

গত ১১ সেপ্টেম্বর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনের কাছে লেখা চিঠিতে বলা হয়, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়, অধিনস্ত দপ্তর/সংস্থা ও বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে নিন্মবর্ণিত কর্মকর্তার পদ দীর্ঘদিন ধরে শুন্য রয়েছে। ফলে মন্ত্রণালয়, দপ্তর/সংস্থা ও বিভিন্ন প্রকল্পে সমূহের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রীর পাঠানো তালিকায় দেখা যায়, জাতীয় মহিলা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) গত ৭ সেপ্টেম্বর পিআরএলও চলে যান। কিন্তু এখন পর্যন্ত সেই পদে কাউকে নিয়োগ দিতে পারেনি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

তৃণমূল পর্যায়ে অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নে নারী উদ্যোক্তাদের বিকাশ সাধন প্রকল্পের পরিচালক পদটি গত ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে শূন্য রয়েছে। কিশোর-কিশোরী ক্লাব স্থাপন প্রকল্পের পরিচালকের পদটি গত ৪ মার্চ থেকে শূন্য রয়েছে। সমাজ ভিত্তিক সমন্বিত শিশু-যত্ন কেন্দ্রের মাধ্যমে শিশুদের প্রারম্ভিক বিকাশ ও সুরক্ষা এবং সাতার সুবিধা প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক (যুগ্নসচিব) পদটি শুন্য রয়েছে। নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কল্পে মাল্টিসেক্টরাল প্রোগ্রামের প্রকল্প পরিচালক (যুগ্নসচিব) পদটি গত বছরের ১ জানুয়ারী থেকে শুন্য রয়েছে। ডিএনএ অধিদফতরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ও পরিচালক  (উপসচিব) পদে গত ২০২০ সালের ৯ আগস্ট গেজেট হলেও এখন পর্যন্ত কোনো কর্মকর্তাকে পদায়ন করা হয়নি। বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে দায়িত্ব পালনের জন্য উপসচিবের একটি পদ শূন্য রয়েছে। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের ইনভেস্টমেন্ট কমপোনেন্ট ফর ভালনারেবল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এর উপ প্রকল্প পরিচালক (উপ-সচিব) পদটি গত ২০১৯ সালের ১লা জুলাই প্রকল্পটি চালু হলেও অধ্যাবধি কর্মকর্তা পদায়ন করা হয় নাই।

‘এমতাবস্থায়  মন্ত্রণালয়, দপ্তর/সংস্থা ও বিভিন্ন প্রকল্পে সমূহের স্বাভাবিক কার্যক্রমকে গতিশীল করার লক্ষ্যে শুন্যপদসমূহ পুরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করছি। এ বিষয়ে আপনার ব্যক্তিগত সহযোগিতা প্রত্যাশা করছি।’

এর আগে গত ৮ মে সিনিয়র সচিব কে এম আলী আজমের কাছে লেখা চিঠিতে বলা হয়, ‘মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়, অধীনস্থ দফতর/সংস্থা ও বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে দুই মাস থেকে দুই বছরের অধিক সময় পর্যন্ত কর্মকর্তাদের পদ খালি রয়েছে। তার মধ্যে ১, ২, ৩, ৪ ও ১০ নম্বর ক্রমিকে বর্ণিত পদে কর্মকর্তা পদায়ন করা হলেও অদ্যাবধি কোনো কর্মকর্তা যোগদান করেননি। এ ছাড়া ৫, ৬, ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ক্রমিকভুক্ত পদে কোনো কর্মকর্তা পদায়ন করা হয়নি বিধায় মন্ত্রণালয়, দফতর/সংস্থা ও বিভিন্ন প্রকল্পের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।’

‘এমতাবস্থায় মন্ত্রণালয়, দফতর/সংস্থা ও বিভিন্ন প্রকল্পের উন্নয়নকার্যক্রমকে গতিশীল করার লক্ষ্যে শূন্যপদগুলো পূরণসহ পদায়নকৃত কর্মকর্তাদের অবিলম্বে তাদের কর্মস্থল থেকে স্ট্যান্ডরিলিজ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করছি।’

উল্লেখ্য, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বর্তমানে নির্ধারিত পদের চেয়ে দুই থেকে তিন গুণ কর্মকর্তা কাজ করছেন। বর্তমানে অতিরিক্ত সচিবের ২১২টি পদে কর্মরত রয়েছেন ৪৩৯ জন, যুগ্মসচিবের ৪১১ পদে ৭১৭ জন, উপসচিবের ১ হাজার ৩২৪টি পদে কর্মরত আছেন ১ হাজার ৬৩৭ জন। এর পরও কর্মকর্তা সংকটে ভুগছে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

সোনালীনিউজ/এসআই/আইএ

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System