• ঢাকা
  • বুধবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮

সরকারি চাকুরিজীবীদের পেনশন নিয়ে দুর্দশা


মাসুদ আহমেদ ডিসেম্বর ১, ২০২১, ০৯:২৮ এএম
সরকারি চাকুরিজীবীদের পেনশন নিয়ে দুর্দশা

ফাইল ছবি

ঢাকা : করোনাকালে প্রায় সবাই নানারূপ সঙ্কটে আছেন। যারা পেনশন পান তাদের দুর্দশা অবর্ণনীয়। তারা এখন অবহেলিত বোঝাস্বরূপ বেঁচে আছেন তারা। চিকিৎসাভাতা অপ্রতুল। অথচ বৃদ্ধদের রোগব্যাধি খুব বেশি ও জটিল।

২০১৫ সালের ১ জুলাইয়ের আগে অবসরপ্রাপ্ত পেনশনারদের অবস্থা খুবই করুণ। নিজে অষ্টম গ্রেডভুক্ত সরকারি চাকরিজীবী। ২০০১ সালে অবসরে যাই। গত ১ জুলাই ২০২১ থেকে প্রতি মাসে দুই হাজার ৫০০ টাকা চিকিৎসা ভাতাসহ মূল পেনশন মিলে পাই ১২ হাজার ৬৯৮.৬৬ টাকা। সম গ্রেডভুক্ত যারা ২০১৫ সালের পর অবসরে যাচ্ছেন তারা ২৫ হাজার টাকার ঊর্ধ্বে পাবেন। কারণ পুরনো স্কেলে বেতনভাতা, পেনশন অনেক কম ছিল। ১ জুলাই ২০১৫ এর আগে যারা অবসরে গেছেন তাদের বর্তমান স্কেলের অনুরূপ স্কেলে পেনশন নির্ধারণ বিবেচনা করা হলে এই বৈষম্য দূর হয়।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে জনমানুষের আস্থা ও সমর্থন নিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। তার সরকারের নেতৃত্বে পদ্মা সেতু মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, বঙ্গবন্ধু টানেল, মহেশখালী গভীর সমুদ্র বন্দর, কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উন্নীতকরণসহ একাধিক উন্নয়নমূলক কাজ বাস্তবায়নের পরিকল্পনায় দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে হাঁটছে। শতভাগ বিদ্যুৎ সারা দেশে পৌঁছেছে। মাথাপিছু আয় দুই হাজার ২২৭ ডলারে উন্নীত হয়েছে। উদ্বাস্তু রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার কারণে বিশ্ব গণমাধ্যম শেখ হাসিনাকে ‘মানবতার মা’ আখ্যা দিয়েছে। তিনি বাংলাদেশের জন্য আন্তর্জাতিক সম্মাননা’ এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার’ অর্জন করেছেন। মহামারীর মধ্যেও বাংলাদেশ যে অবিচলভাবে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনে এগিয়ে যাচ্ছে, এ পুরস্কার তারই বিশ্বাসীকৃতী।

গরিব-দুঃখী ও মেহনতি মানুষের জন্য বঙ্গবন্ধুকন্যা রাজনীতি করেন। তার অর্থনৈতিক প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতার ফলে উত্তরবঙ্গ হতে মঙ্গা শব্দটি চিরতরে বিলুপ্ত হয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার ছাড়া কৃষক, মৎস্যজীবী, অসহায় পঙ্গুসহ দলিত, হরিজন ও অনগ্রসর বিশেষ শ্রেণীর মানুষের পাশে কোনো সরকার দাঁড়ায়নি। প্রধানমন্ত্রী বিশেষ শ্রেণীর জন্য ভাতা, পঙ্গুভাতা, বিধবা ভাতাসহ হাজার কোটি টাকার ভাতা প্রদান করেছেন। নেতৃত্বাধীন সরকার ২০২১ সালের মধ্যে ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত ও মধ্যম আয়ের আধুনিক ডিজিটাল বাংলাদেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য পূরণের কাজ করে যাচ্ছে। জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের মেয়ে, শুধু শাসক নই, বাংলাদেশের মানুষের সেবক।

সরকারি চাকরিজীবীদের বর্তমান সরকারের আমলে দফায় দফায় পদোন্নতি, চাকরির বয়স বৃদ্ধি, দুই দফা বেতনভাতা বৃদ্ধি, গাড়ি ও বাড়ির জন্য সুদমুক্ত ব্যাংকঋণ, রেশন বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পেয়েছেন যা আর কোনো সরকারের আমলে সরকারি চাকরিজীবীদের এত সুযোগ সুবিধা জোটেনি। শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবীদের অবসর গ্রহণের তারিখ ১৫ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পর নিয়মিত পেনশনারদের মতো মাসিক পেনশন সুবিধার আওতায় আনা হয়েছে। এ সদিচ্ছা স্মরণীয় সিদ্ধান্ত।

পুরনো স্কেলে বেতনভাতা, পেনশন কম থাকায় বর্তমান স্কেলের হার অনুযায়ী পেনশন পাচ্ছেন না। পুরনো পেনশনারদের সংখ্যা খুব বেশি নয়। বর্তমান স্কেলের অনুরূপ স্কেলে তাদের গ্রেডভিত্তিক পেনশন দেয়ার বিষয়টি বিবেচনার জন্য জনবান্ধব সরকারের কাছে আবেদন জানাচ্ছি।

এই বয়োবৃদ্ধ পুরনো পেনশনারদের প্রতি শ্রদ্ধা, মানবতা, কৃপা ও দয়া প্রদর্শনপূর্বক তাদের অসহায় জীবনের অবসানকল্পে আলোচ্য বিষয়টি বাস্তবায়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মহানুভবতা এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের সদয় দৃষ্টি কামনা করি।

লেখক : মাসুদ আহমেদ, বেলাব, নরসিংদী।

সোনালীনিউজ/এমএএইচ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব ভাবনার প্রতিফলন। সোনালীনিউজ-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে লেখকের এই মতামতের অমিল থাকাটা স্বাভাবিক। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য সোনালীনিউজ কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না। এর দায় সম্পূর্ণই লেখকের।

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System