• ঢাকা
  • সোমবার, ২১ জুন, ২০২১, ৮ আষাঢ় ১৪২৮
abc constructions

খালেদা জিয়ার ঈদ করার কথা ছিল কারাগারে


নিজস্ব প্রতিবেদক মে ১৫, ২০২১, ০৩:০০ পিএম
খালেদা জিয়ার ঈদ করার কথা ছিল কারাগারে

ফাইল ছবি

ঢাকা: হাসপাতালে নয়, খালেদা জিয়ার কারাগারে ঈদ করার কথা ছিল বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ৷

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার তো হাসপাতালে না, কারাগারে ঈদ উদযাপন করার কথা ছিল৷ কারণ তিনি তো দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহানুভবতা দেখিয়ে কারাগার থেকে মুক্তি দিয়েছেন শাস্তি স্থগিত রেখেছেন। এর জন্য বিএনপির উচিত আমাদের নেত্রীকে ধন্যবাদ দেওয়া। 

শনিবার (১৫ মে) সকালে নিজ বাসভবনে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের তিনি এ কথা বলেন।

শুক্রবার ঈদের দিন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারত করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘একদিকে ভয়াবহ করোনা, অন্যদিকে, ফ্যাসিবাদী সরকারের অত্যাচার-নির্যাতনের কারণে ঈদ উদযাপিত হচ্ছে অত্যন্ত কষ্টের মধ্যে, দুঃসময়ের মধ্যে। ’

এ বিষয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘পবিত্র ঈদের দিনও বিএনপি এবং বিএনপি মহাসচিব হীন রাজনৈতিক বক্তব্য থেকে বেরিয়ে আসতে পারেননি। পবিত্র ঈদের দিনও তিনি বিষোদগারের রাজনীতিটা অব্যাহত রেখেছেন। অত্যন্ত ঈদের দিনে বিষোদগারের, দোষারোপের রাজনীতি থেকে বিরত থাকা উচিত ছিল। তাও করেছেন আবার জিয়াউর রহমানের তথাকথিত কবরে গিয়ে। ঈদের দিনে তারা জিয়াউর রহমানের কবরে যান। নিজের আত্মীয়স্বজন, মুরব্বিদের কবরে যান, কিনা জানি না। সেখানেই বক্তব্য দিয়েছেন, বিষোদগারের রাজনীতিটা করেছেন।’

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে সরকারের সঠিক নীতির কারণে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, নেপালের দিকে তাকিয়ে দেখুন, সেখানকার তুলনায় বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই ভালো। এমনকি পাকিস্তানের থেকেও ভালো। জীবন ও জীবিকার সঠিক সমন্বয় করে সরকার যে নীতি নিয়েছে, তাতে করোনাও নিয়ন্ত্রণে আছে, মানুষের মধ্যে হাহাকারও নেই। সরকার প্রত্যেকের মোবাইল ফোনে প্রণোদনার অর্থ দিয়ে দিচ্ছে৷ কেউ আশা করেনি, দাবিও করেনি। এমনকি বিএনপি বা অন্য কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকেও মোবাইল ফোনে টাকা পাঠানোর দাবি ছিল না। এখানে অন্য কিছু হওয়ার সুযোগই নাই। মির্জা ফখরুল সাহেবরা এসব বুঝেও না বোঝার ভান করেন। কারণ, তাদের দোষারোপের রাজনীতিটা তো করতে হবে।

মির্জা ফখরুলের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, তিনি বলেছেন, ‘১২ বছর ধরে তাদের ঈদ নেই। তারা আসলে হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। কারণ, খালেদা জিয়ার যে মিথ্যা জন্মদিন এতো পালন করেছেন, তা তো ফাঁস হয়ে গেছে করোনা টেস্টের রিপোর্টে। এজন্য তারা হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছেন। গত ১২ বছরে বাংলাদেশের মানুষ যে আনন্দ-উল্লাসে ঈদ উদযাপন করেছে, তা অভাবনীয়।

সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আমাদের সরকার চেষ্টা করেছে, মানুষ যাতে স্ব স্ব স্থানে থেকে ঈদ উদযাপন করে। এরপরও বিপুল সংখ্যক মানুষ বাড়িতে গেছেন। অনেকে স্বাস্থ্যবিধি মানেননি। ফিরে আসার সময়ও যদি তারা স্বাস্থ্যবিধি না মানে, তাহলে এর একটি বিরূপ প্রভাব থাকবে। জনগণের কাছে আমার অনুরোধ, ঈদে বাড়ি যাওয়ার জন্য যে হুড়োহুড়ি আমরা করেছি, সেটি যেন ফিরে আসার সময় না করি। কারণ, নিজের, নিজের পরিবার ও সর্বপরি দেশের সুরক্ষার জন্য এটি অত্যন্ত প্রয়োজন।

সোনালীনিউজ/আইএ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School