• ঢাকা
  • বুধবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮

অস্বস্তিতে আইভী, আতঙ্কে তৈমূর


নিজস্ব প্রতিবেদক জানুয়ারি ১৪, ২০২২, ০২:৩০ পিএম
অস্বস্তিতে আইভী, আতঙ্কে তৈমূর

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটের প্রচারের শেষ দিন আজ (১৪ জানুয়ারি)। আগামী ১৬ জানুয়ারি নাসিক নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।শেষ দিনের প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা। এই নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী মোট ছয়জন। তারা হলেন– আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, খেলাফত মজলিসের প্রার্থী এবিএম সিরাজুল মামুন, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের প্রার্থী মো. জসিম উদ্দিন, ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মাওলানা মো. মাসুম বিল্লাহ এবং বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির প্রার্থী মো. রাশেল ফেরদৌস। 

নৌকার আইভী এবং হাতি মার্কার তৈমূর আলম খন্দকারের মধ্যে তুমুল লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

এদিকে ভোটের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই দুশ্চিন্তা বাড়ছে মেয়র পদে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী দুই প্রার্থীর শিবিরে। স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী বিএনপি থেকে সদ্য অব্যাহতি পাওয়া তৈমূর আলম খন্দকারের সমর্থকদের মধ্যে বাড়ছে গ্রেফতার আতঙ্ক। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থকদের মূল অস্বস্তি শামীম ওসমান ও তার অনুসারীদের নিয়ে।

সরকার দলীয় মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থক ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের একটি অংশের অভিযোগ, শামীম ওসমানের সমর্থকদের যে অংশটি প্রচারণায় নেমেছে তারা ভেতরে-ভেতরে আইভীর বিপক্ষে আর স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছে। বিভিন্ন জায়গায় শামীম ওসমানের অনুসারীরা গোপনে তৈমূরের পক্ষে ভোট চাচ্ছেন বলে অভিযোগ করছেন তারা। এছাড়া শামীমের সহযোগী জেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ কোনো নেতা আইভীর পক্ষে মাঠে নামেননি বলেও জানান তারা।

আইভীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির দায়িত্বে থাকা নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণার আর মাত্র একদিন বাকি আছে। এখন মাঠে নামলেই কী আর না নামলেই কী। শামীম ওসমানের অনুসারীদের একটা অংশকে প্রচার চালাতে দেখা গেছে। কিন্তু নগর আওয়ামী লীগের অনেক সিনিয়র নেতা (শামীম ওসমান গ্রুপ) মাঠে নেই। তারা যুক্ত না হলেও আমরাই জিতব। প্রচারণায় আমরা তেমন সাড়াই পাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘নির্বাচনী প্রচারে নামার চেয়ে বড় কাজ হচ্ছে দায়িত্ব নেওয়া। একইসঙ্গে সেটা বাস্তবায়ন করা। সেটা করতে আমরা তাদের দেখছি না।’

বৃহস্পতিবার বিকেলে আইভীর পক্ষে নির্বাচনী পথসভা করেন শামীম ওসমানের অনুসারী হিসেবে পরিচিত মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা। নারায়ণগঞ্জ শহরের শহীদ মিনারে আয়োজিত সভায় খোকন সাহা বলেন, ‘নেত্রী (শেখ হাসিনা) আইভীকে মনোনয়ন দিয়েছেন। তিনি আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন তার পক্ষে কাজ করতে। আমরা ঘরে বসে নেই। কাজ করছি, কাজ করাচ্ছি। নেত্রী প্রার্থী নির্বাচনে কোনো ভুল করেননি। আমাদের কিছু নেতা মাঠে নেমেছে দলকে বিতর্কিত করার জন্য।

শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) নাসিকের ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাচনী প্রচারণাকালে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, আমি তো সারাদিন ব্যস্ত। আমি কোনো সহিংসতার সঙ্গে জড়িত না। কখনো কাউকে বলিনি ওকে ধরেন, ওইটা করেন। আমি চাই ভোট কেন্দ্র যেন পরিষ্কার থাকে, কোনো সন্ত্রাসী যেন ঝামেলা লাগাতে না পারে। ভোটাররা যেন ঠিকমতো ভোট দিতে যেতে পারেন। প্রত্যেক নির্বাচনের আগে এমন পরিস্থিতি হতেই পারে। এজন্য প্রশাসন সচেতন, তারা এ বিষয়গুলো দেখভাল করবে। আমি আমার ভোটারদের বলব, তারা উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিতে যাবে।

অন্যদিকে তৈমূর আলম খন্দকারের কর্মী-সমর্থকরা বলছেন, নাসিক নির্বাচনে প্রচারণা শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত তাদের ১৭ নেতাকর্মীকে পুরোনো ও গুরুত্বহীন মামলায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার রাতেও দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এটা স্পষ্টতই নির্বাচন উপলক্ষে পুলিশি হয়রানি। ভোটের আগের দুই দিন গ্রেফতারের পরিমাণ আরও বাড়তে পারে। এ কারণে তারা সবাই আতঙ্কে আছেন।

নারায়ণগঞ্জের বিএনপি নেতাকর্মীরা বলছেন, কেন্দ্র থেকে তৈমূর আলমকে অব্যাহতি দেওয়া হলেও নারায়ণগঞ্জের স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীরা তার নির্বাচনী প্রচারণায় কাজ করে যাচ্ছেন। নির্বাচনের দিন তৈমূরের নির্বাচনী এজেন্ট হিসেবে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্য থেকেই তালিকা করা হচ্ছে। ওই তালিকায় যেসব নেতাকর্মীর নাম রাখা হচ্ছে তাদেরই গ্রেফতার করছে পুলিশ।

তৈমূরের প্রধান নির্বাচন সমন্বয়কারী নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব এ টি এম কামাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘এই মুহূর্তে আমাদের বড় সমস্যা পুলিশের হয়রানি। পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের হয়রানি করছে, গ্রেফতার করেছে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে তল্লাশি করছে। ভয়ে নেতাকর্মীরা বাড়িতে থাকতে পারছেন না। একটা আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করা হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘গতকাল বুধবার রাতেও বন্দর উপজেলায় যুবদলের কর্মী আশরাফ ও আইনজীবী ফোরামের নেতা আলম প্রধানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আরও দুই-তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই মুহূর্তে তাদের নাম মনে নেই।’

মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, ‘ভোটের পরিবেশ ভালোই ছিল। কিন্তু পুলিশ আমার নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে গভীর রাতে হয়রানি করছে। আমার কর্মী-সমর্থকরা যখন প্রচারণা চালাচ্ছে তখন পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে নিয়ে যাচ্ছে।’

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ও বিদেশি দূতাবাসের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তৈমুর বলেন, ‘বিদেশি দূতাবাসে যারা আছেন, তাদের প্রতি অনুরোধ, আপনারা নির্বাচনের দিন মাঠে থাকুন।’

দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনারা নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করুন। পুলিশকে জিজ্ঞাসা করুন, কেন তারা আমার নেতাকর্মী ও সমর্থকদের হয়রানি করছে।’

সোনালীনিউজ/আইএ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System