• ঢাকা
  • সোমবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২১, ৬ বৈশাখ ১৪২৮
abc constructions
নারী দিবসে সিলভানা কাদেরের ঘোষণা

বাংলাদেশিদের চিকিৎসায় ৯০ কোটির ফান্ড সংগ্রহ


নিজস্ব প্রতিবেদক মার্চ ৮, ২০২১, ০৫:১০ পিএম
বাংলাদেশিদের চিকিৎসায় ৯০ কোটির ফান্ড সংগ্রহ

সংগৃহীত ছবি

ঢাকা: দেশের মানুষের চিকিৎসার জন্য ৯০ কোটি টাকার ফান্ড সংগ্রহের কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নারী উদ্যোক্তা সিলভানা কাদের সিনহা। চিকিৎসা বিষয়ক স্টার্টআপ কোম্পানি প্রভা হেলথ’র এই প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও আন্তর্জাতিক নারী দিবসে দারুণ এ ঘোষণা দিলেন।

আন্তর্জাতিক আইন বিষয়ে সফল ক্যারিয়ার গড়ার পরেও বাংলাদেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা দেখে ২০১৮ সালে প্রভা হেলথ গড়েন সিলভানা। টেলিমেডিসিন সেবার পাশাপাশি কোম্পানিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে প্রায় দেড় লাখ বাংলাদেশিকে চিকিৎসা দিচ্ছে।

২০০৮ সালে বারাক ওবামার নির্বাচনী প্রচারে কাজ করা সিলভানা ২০১১ সালে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে এসে মায়ের চিকিৎসা নিয়ে বিপাকে পড়েন। দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি হাসপাতালে তার মায়ের ভুল চিকিৎসা হয়!

সেই দিনগুলোর কথা স্মরণ করে সিলভানা প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট টেকক্রাঞ্চকে সোমবার বলেন, ‘মায়ের অসুস্থতার সময় দেখেছি, বাংলাদেশে ভালো চিকিৎসা পাওয়ার অর্থই নেই। তখন মনে হয়েছে, দেশটি বিভিন্ন খাতে এত উন্নতি করলেও ৪০ মিলিয়ন মধ্যবিত্ত ভালো চিকিৎসা পাচ্ছে না।’

যুক্তরাষ্ট্রে জন্ম এবং সেখানেই বেড়ে ওঠা সিলভানার। ২০১৫ সালে বাংলাদেশে চলে আসেন প্রভা নিয়ে কাজ করতে। এদিন জানালেন ১০.৬ মিলিয়ন ডলারের ফান্ডের কথা।

প্রভা হেলথের দাবি, বাংলাদেশে কাজ শুরুর পর থেকে প্রতি বছর তাদের কর্মপরিধি তিনগুণ করে বেড়েছে। গত বছর কভিডের সময় তারা বাড়ি-বাড়ি গিয়ে ৭৫ হাজার করোনা টেস্ট করিয়েছে।

প্রোভায় বিনিয়োগ করা অ্যাঞ্জেল ইনভেস্টরদের (যারা স্টার্টআপে বিনিয়োগ করে) মধ্যে বিখ্যাত সব নাম রয়েছে। তাদের মধ্যে অন্যতম যুক্তরাষ্ট্রের অবসরপ্রাপ্ত আর্মি জেনারেল ডেভিড এইচ. পেট্রিয়াস, ওয়েলভিলের নির্বাহী প্রতিষ্ঠাতা এস্টার ডাইসন, সিঙ্গাপুরের ড. জেরেমি লিম।

ঢাকায় প্রভার একটি মেডিকেল সেন্টারের পাশাপাশি ৪০টি ক্লিনিকে তাদের নেটওয়ার্ক আছে। ঢাকায় তারা আরও ক্লিনিক চালু করতে চায়।

যেভাবে প্রভা হেলথের পরিকল্পনা: সিলভানার সব আত্মীয় বাংলাদেশে থাকায় মাঝেমাঝে এদেশে বেড়াতে আসতেন তিনি। একবার এসে তার মা অসুস্থ হয়ে পড়েন।

ফিউচার স্টার্টআপকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ২০১৮ সালে সিলভানা বলেন, ‘বাংলাদেশে বড় একটি হাসপাতালে মাকে ভর্তি করাই। তারা ক্যানসারের কথা জানায়। একটা অপারেশনে তিনি প্রায় মারাই যাচ্ছিলেন! কিন্তু থাইল্যান্ডের চিকিৎসকেরা পরে ক্যানসারের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেন।’

‘আমার মায়ের ভাগ্য ভালো যে দেশটির ব্যয়বহুল একটি হাসপাতালে চিকিৎসা পেয়েছেন। তখনই আমার মনে হয় এদেশের অনেক মানুষ ভালো চিকিৎসা পাচ্ছেন না। এরপর দেশটিতে কাজ করার ভাবনা আসে আমার মনে।’

সোনালীনিউজ/এমএইচ

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School

প্রবাসে বাংলা বিভাগের আরো খবর