• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন, ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮
abc constructions

ঢাকার মতোই বিশৃঙ্খল হওয়ার শঙ্কা পূর্বাচলে


নিজস্ব প্রতিবেদক জুন ১০, ২০২১, ০১:০৮ পিএম
ঢাকার মতোই বিশৃঙ্খল হওয়ার শঙ্কা পূর্বাচলে

ঢাকা : ঢাকা থেকে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাপ সরাতে পূর্বাচলকে ‘একটি আদর্শ’ শহর হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিল সরকার। কিন্তু বাস্তবায়নের ধীরগতি ও প্রকল্পের নকশায় বারবার পরিবর্তন আনার ফলে পূর্বাচল শেষ পর্যন্ত অপরিকল্পিত রাজধানীরই একটি বর্ধিত অংশে পরিণত হবে বলে আশঙ্কা করছেন নগর পরিকল্পনাবিদরা।

তারা বলছেন, প্রাথমিকভাবে প্রকল্প এলাকার ভেতরে এবং এর আশেপাশের জায়গায় জনসংখ্যা যা থাকবে বলে ধরা হয়েছিল, কাজ শেষে তা তিনগুণ বেড়ে যাবে।

১৯৯৫ সালে ঢাকার দক্ষিণে প্রায় ছয় হাজার ২২৭ একর জায়গায় পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পের কাজ শুরু করে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। গাজীপুরের কালীগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের মাঝে অবস্থিত এ প্রকল্পের পূর্বে শীতলক্ষ্যা নদী এবং পশ্চিমে বালু নদী। বিভিন্ন আকারের ২৫ হাজার প্লটে প্রায় ১০ লাখ মানুষের বসবাসের স্থান তৈরির জন্য প্রকল্পটি নকশা করা হয়েছিল।

তবে সরকারের অনুমোদন পেতেই পূর্বাচল প্রকল্পের ১০ বছর লেগে যায়। শুরুতে এর ব্যয় ধরা হয় তিন হাজার ৩১২ কোটি টাকা। ২০১০ সালে প্রাথমিক সময়সীমা শেষ হওয়ার পর, বিভিন্ন বিষয় যুক্ত হয়ে এই ব্যয় তিনগুণেরও বেশি বেড়ে বর্তমানে ১০ হাজার ৩২৯ কোটিতে দাঁড়িয়েছে।

এখন পর্যন্ত প্রকল্পটির নকশা পাঁচবার সংশোধিত হয়েছে। মেয়াদও বেড়েছে কয়েক দফায়। ২০২৫ সালের মধ্যে এর কাজ শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

শুরুতে পূর্বাচলকে শুধু একটি আবাসিক শহর হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা থাকলেও, পরে খেলার মাঠসহ অন্যান্য নাগরিক সুবিধা সরিয়ে সেখানে অনেকগুলো বাণিজ্যিক ভবন যুক্ত করা হয়।

এ ছাড়া প্রকল্প এলাকার আশেপাশে থাকা প্রাইভেট হাউজিংগুলোরও চাপে থাকবে পূর্বাচল নতুন শহর।

সম্প্রতি প্রকল্প এলাকায় দেখা যায়, শ্রমিকরা নতুন নির্মিত একটি রাস্তা ভেঙে প্রসারিত করার কাজ করছে। রাস্তার দুপাশে ১০০ ফিটের খাল খননের কাজও সমানতালে চলছে। ফলে প্রকল্প এলাকার সবুজ পরিবেশ এখন ধুলায় ধূসরিত।

এছাড়া ৩০০ ফিট হিসেবে পরিচিত এলাকাটি ঢাকাবাসীর বেড়ানোর একটি জনপ্রিয় জায়গায় পরিণত হয়েছে।

রাজউকের বিশদ অঞ্চল পরিকল্পনার (ড্যাপ) প্রকল্প পরিচালক মো. আশরাফুল ইসলাম জানান, ইমারত নির্মাণ বিধিমালা-২০০৮ অনুসারে, পূর্বাচল প্রকল্পের ভেতর বসবাস করা মানুষের সংখ্যা প্রায় ২৭ লাখের মতো হয়ে যাবে। কিন্তু এ প্রকল্পের নকশা মাত্র ১০ লাখ মানুষের কথা মাথায় রেখে করায় ইতোমধ্যে নির্মিত বা নির্মাণাধীন সুযোগ-সুবিধার ওপর বিশাল চাপ পড়বে।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের মহাসচিব আদিল মোহাম্মদ খান বলেন, ‘বাস্তবায়নে দেরি এবং কোনো যথাযথ মূল্যায়ন না করেই শুধুমাত্র আবাসিক এলাকায় বাণিজ্যিক জোন অন্তর্ভুক্ত হওয়ার কারণে পূর্বাচল একটি পরিকল্পিত শহর হয়ে উঠতে ব্যর্থ হবে।’

তিনি বলেন, ‘নতুন শহর বলা হলেও, ঢাকা শহরের একটি অপরিকল্পিত বর্ধিত অংশ হিসেবে গড়ে উঠছে পূর্বাচল।’

রাজউকের প্রকল্প পরিচালক ও প্রধান প্রকৌশলী উজ্জ্বল মল্লিক বলেন, ‘এখন পর্যন্ত প্রকল্পটির ৭০ শতাংশ ফিজিক্যাল ও ৬৫ শতাংশ ফাইন্যান্সিয়াল অগ্রগতি হয়েছে। পুরো প্রকল্প ২০২৫ সালের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করছি আমরা।’

সোনালীনিউজ/এমটিআই

 

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School