• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৫ মাঘ ১৪২৮
দেশের অর্থনীতিতে আতঙ্ক

এবার বিশ্বে ‘ওমিক্রন’ ভীতি


বিশেষ প্রতিনিধি নভেম্বর ৩০, ২০২১, ১০:৫৬ এএম
এবার বিশ্বে ‘ওমিক্রন’ ভীতি

ঢাকা : দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধীরে ধীরে নিয়ন্ত্রণে এলেও এবার চোখ রাঙাচ্ছে নয়া ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’। মহামারির এই নতুন ধরনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বজুড়ে। মানুষের শরীরে ওমিক্রন খুব দ্রুত ছড়াতে পারে বলে জানাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

দক্ষিণ আফ্রিকায় উৎপত্তি এই স্ট্রেনটির ভয়াবহতা সম্পর্কে এরই মধ্যে সতর্ক সব দেশ।

এ পরিস্থিতিকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশও। দেশবাসীকে সতর্ক করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বেশ কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ওমিক্রন ঠেকাতে সব বন্দরে সতর্কবার্তা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বর্তমান সময় কোভিডের ডবল ভ্যারিয়েন্ট বেশি চিন্তার কারণ। ব্রিটেন স্ট্রেনের (বি.১.১.৭) পরে এই প্রজাতিই এখন সবচেয়ে বেশি ছোঁয়াচে। তার সঙ্গেই আরো নানা প্রজাতি মাথাচাড়া দিচ্ছে। একাধিক করোনা ভ্যাকসিন দিয়ে তা প্রতিরোধ করার চেষ্টা চলছে। কিন্তু ফের নয়া রূপ-এবার ‘ওমিক্রন’। চরিত্রে বাকি প্রজাতির থেকে বেশ কিছুটা আলাদা। রূপ বদলে সব সময় যে চরিত্রও বদলাবে এমনটা না হওয়াই স্বাভাবিক।

এ ভাবনা যে কেবল দার্শনিক চিন্তাভাবনার তা নয়, বিজ্ঞানের ক্ষেত্রেও একইভাবে প্রযোজ্য। তা সে জেনেটিক্স হোক কিংবা মাইক্রোবায়োলজি। এই যেমন-দক্ষিণ আফ্রিকাতে সদ্য আবিষ্কার হওয়া সার্স-কোভ-২ (করোনাভাইরাসের)-এর একটি ভ্যারিয়েন্ট বা প্রজাতি ‘ওমিক্রন’।

এদিকে ডেল্টা, ডেল্টা প্লাস, ল্যামডার পরে করোনার এ নতুন প্রজাতি নিয়ে উদ্বেগের কথা জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)। ডেল্টার থেকেও সংক্রামক, ঝড়ের গতিতে জিনের গঠন বদলে ফেলতে পারে, সুপার স্প্রেডার এই প্রজাতিকে ‘উদ্বেগজনক’ বা ‘ভ্যারিয়ান্ট অব কনসার্ন’ বলে ঘোষণা করেছে হু। গ্রিক বর্ণমালার ১৫ নম্বর অক্ষর অনুযায়ী বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ভ্যারিয়েন্টকে ‘ওমিক্রন’ নাম দিয়েছে।

গবেষণা প্রতিবেদন বলছে, নতুন এই প্রজাতির জিনোম সিকোয়েন্স বা জিনের গঠন বিন্যাস বের করে এর নাম দেওয়া হয়েছে বি.১.১৫২৯। তাই ভাইরোলজিস্টরা বলছেন ওমিক্রন। দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম করোনার এই মিউট্যান্ট প্রজাতির হদিস মিলেছে। ভাইরোলজিস্টরা জানান, নতুন এই প্রজাতিতে অন্তত ৫০টি মিউটেশন হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। যার মধ্যে স্পাইক প্রোটিনেই (এস) ৩০ বার অ্যামাইনো অ্যাসিডের কোড বদলে গেছে।

ডেল্টা বা ডেল্টা প্লাস প্রজাতির জিনের বিন্যাসে এই নয়া প্রজাতি তৈরি হয়েছে কি না তা জানা যায়নি এখনও। তবে মানুষের শরীরে এই প্রজাতি খুব দ্রুত ছড়াতে পারে বলেই জানাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

জানা গেছে, নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনে আক্রান্তদের শরীরে বিশেষ কোনো উপসর্গ ছাড়াই মৃদু রোগ দেখা দিতে পারে। মৃদু রোগের উপসর্গের সাথে সাথে মাংসপেশির ব্যথা এবং এক অথবা দুদিন পর্যন্ত ক্লান্তির বোধ তৈরি করতে পারে। এতে রোগীর স্বাদ বা গন্ধ চলে যায় না। তবে হালকা কাশি হতে পারে। এর বিশেষ কোনো উপসর্গ নেই। তবে টিকা নেওয়া লোকজনের মাঝে নতুন ধরনটি শনাক্ত হয়নি। টিকা না নেওয়া লোকজনের ক্ষেত্রে পরিস্থিতি ভিন্ন হতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য বলছে, এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের যে কয়েকটি ধরন শনাক্ত হয়েছে; তার মধ্যে ওমিক্রনের ‘রি-ইনফেকশন’ বা পুনরায় সংক্রমণের ক্ষমতা বেশি। অর্থাৎ কেউ একবার এই ধরনে আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠলেও ফের একই ভ্যারিয়েন্টে সংক্রমিত হতে পারেন।

আন্তর্জাতিক মহামারিবিদ ও জীবাণু বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, কয়েকবার রূপান্তরের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার কারণে ওমিক্রন ধরনটি টিকাপ্রতিরোধী হওয়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। অর্থাৎ করোনা টিকার ডোজ সম্পূর্ণ করা ব্যক্তিরাও এ ধরনটির দ্বারা সহজেই আক্রান্ত হতে পারেন।

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন, অতিসংক্রামক এই ধরন শনাক্তের জেরে আবারো ধাক্কা লেগেছে বিশ্ব অর্থনীতিতে। ধস নেমেছে বিশ্বের বড় বড় পুঁজিবাজারে। ২৯ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়া বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে। জ্বালানি তেলের দাম এক ধাক্কায় ৬৮ ডলারে নেমে এসেছে।

ওমিক্রন নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে বাংলাদেশেও। আবার কি বন্ধ হয়ে যাবে সবকিছু? থমকে যাবে পৃথিবী? আমদানি-রপ্তানিতে যে গতি ফিরে এসেছিল, তা কি থমকে দাঁড়াবে, ওলটপালট হয়ে সব হিসাবনিকাশ? এ সব চিন্তায় কপালে ভাঁজ পড়েছে সরকার, ব্যবসায়ী-শিল্পপতি ও অর্থনিতিবিদদের। তবে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রমের বিষয়টি সরকার পর্যবেক্ষণ করছে বলেও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

ওমিক্রন ঠেকাতে করণীয় নির্ধারণে সফর বাতিল করে দেশে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। জাতীয় পরামর্শক কমিটির সঙ্গে জরুরি বৈঠকও ডেকেছেন তিনি। গতকাল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো খুদে বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়েছে। বৈঠকটি আগামী মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা বলা হয়েছে।

খুদে বার্তাটিতে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের গুরুত্ব অনুধাবন করে এবং এ বিষয়ে জরুরি নির্দেশনা ও করণীয় ঠিক করতে সুইজারল্যান্ডের সরকারি সফর বাতিল করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি মাঝ পথ দুবাই থেকে শনিবার রাত ১১টায় দেশে ফিরেছেন। বৈঠক শেষে মিডিয়া ব্রিফ করে স্বাস্থ্য খাতের প্রস্তুতির তথ্য দেশবাসীকে জানাবেন বলে খুদে বার্তায় বলেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

অন্যদিকে ‘ওমিক্রন’ দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে যেসব দেশে সংক্রমিত হয়েছে সেসব দেশ থেকে যাত্রী আগমন বন্ধের সুপারিশ করেছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। গতকাল রোববার কমিটির ৪৮তম সভায় আলোচনা শেষে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় বলা হয়, করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ওমিক্রনকে ‘ভ্যারিয়েন্ট অব কনসার্ন’ হিসেবে ঘোষণা করেছে।

এর বিস্তার রোধে এশিয়া, ইউরোপ ও আমেরিকার অনেক দেশ দক্ষিণ আফ্রিকাসহ আফ্রিকা অঞ্চলের কয়েকটি দেশ (জিম্বাবুয়ে, নামিবিয়া, বোতসোয়ানা, সোয়াজিল্যান্ড) থেকে যাত্রী আগমনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে (প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ ফ্লাইটসহ)।

এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশেও এসব দেশ এবং যেসব দেশে ওমিক্রনের সংক্রমণ ছড়িয়েছে সেসব দেশ থেকে যাত্রী আগমন বন্ধের সুপারিশ করা হচ্ছে। কোনো ব্যক্তির এসব দেশে ভ্রমণের সাম্প্রতিক (বিগত ১৪ দিনে) ইতিহাস থাকলে তাকে বাংলাদেশে ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। কোভিড-১৯ পরীক্ষায় পজিটিভ হলে তাকে আইসোলেশনে রাখার সুপারিশ করা হচ্ছে।

এছাড়া প্রতিটি পোর্ট অব এন্ট্রি (স্থল, নৌ, বিমান ও রেলপথ) স্ক্রিনিংয়ের ব্যবস্থা করে পরীক্ষা ও সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা আরও কঠোরভাবে পালন করা (স্কুল-কলেজসহ), চিকিৎসা ব্যবস্থা শক্তিশালী করা ও বিভিন্ন (রাজনৈতিক, সামাজিক, ধর্মীয়) সমাবেশে জনসমাগম সীমিত করা এবং কোভিড-১৯ এর পরীক্ষায় জনগণকে উৎসাহিত করতে বিনামূল্যে পরীক্ষা করারও সুপারিশ করা হয়।

অন্যদিকে গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে, ওমিক্রন নিয়ে দেশের সব বন্দরে সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) মো. নাজমুল ইসলাম বলেন, আমরাও এ বিষয়ে সতর্ক আছি। বন্দরগুলোয় নিরাপত্তা জোরদার করার জন্য বলা হয়েছে।

তিনি জানান, গত মঙ্গলবার দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার নতুন একটি ধরন শনাক্ত হয়। দক্ষিণ আফ্রিকা ছাড়াও বতসোয়ানা, ইসরায়েল, হংকং, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য, জার্মানি ও ইতালিতেও নতুন এ ধরনের সন্ধান মিলেছে।

ডব্লিউএইচও করোনার নতুন ধরনটিকে ‘উদ্বেগজনক’ বলে আখ্যায়িত করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, করোনার আগের সব ধরনের চেয়ে এটি অনেক বেশি সংক্রামক। তবে ওমিক্রন করোনার অন্য ধরনের তুলনায় কম নাকি বেশি মারাত্মক, তা এখনো নিশ্চিত হতে পারেননি বিশেষজ্ঞরা।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

Haque Milk Chocolate Digestive Biscuit
Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System