• ঢাকা
  • বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০

আত্মসমর্পণ ছাড়া কোনো উপায় নেই হেলেনার 


নিজস্ব প্রতিবেদক  মার্চ ২১, ২০২৩, ১০:১৫ এএম
আত্মসমর্পণ ছাড়া কোনো উপায় নেই হেলেনার 

ঢাকা: রাজধানীর পল্লবী থানায় করা প্রতারণা মামলায় আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত আলোচিত ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে দুই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আইনের বিধান অনুযায়ী, এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করতে চাইলে তাকে আত্মসমর্পণ করতে হবে।

সোমবার (২০ মার্চ) ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট এই রায় ঘোষণা করেন। আসামিদের উপস্থিতিতে বিচারক রায় ঘোষণা করলেও সেখানে উপস্থিত ছিলেন না হেলেনা জাহাঙ্গীর।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী প্রশান্ত কুমার কর্মকার বলেন, যেকোনো ফৌজদারি মামলার আসামি সাজাপ্রাপ্ত হলে তাকে আদালতের কাছে সমর্পণ করতে হবে। আইনের আওতায় তাকে আসতে হবে। পালিয়ে থাকার কোনো সুযোগ নেই।

রায়ে সংক্ষুব্ধ হলে আপিল করে প্রতিকার চাইতে পারবে। কিন্তু আত্মসমর্পণ না করে কোনো ধরনের প্রতিকার চাওয়ার সুযোগ নেই। এ কারণে জামিন চাইতে হলে বা আপিল করতে হলে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আত্মসমর্পণ করতেই হবে।

রায়ে সংক্ষুব্ধ হলে আসামি আপিল করে জামিন চাইতে পারেন —এর বিকল্প কোনো পথ নেই জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খাদেমুল ইসলাম বলেন, ফৌজদারি মামলার নিয়ম হচ্ছে আসামিকে আইনের আওতায় থাকতে হবে। আদালতের সম্মুখে আসতে হবে। আত্মসমর্পণ করে জামিন চাইতে হবে। রায়ে সংক্ষুব্ধ হলে আপিল করে প্রতিকার চাইতে পারবে। কিন্তু আত্মসমর্পণ না করে কোনো ধরনের প্রতিকার চাওয়ার সুযোগ নেই। এ কারণে জামিন চাইতে হলে বা আপিল করতে হলে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আত্মসমর্পণ করতেই হবে।

২০২১ সালের ২ আগস্ট রাতে পল্লবী থানায় জয়যাত্রা টেলিভিশনের ভোলা জেলা প্রতিনিধি আবদুর রহমান তুহিন প্রতারণার অভিযোগে মামলাটি করেন।

মামলায় তিনি অভিযোগ করেন, জয়যাত্রা টিভির স্থানীয় সংবাদদাতা হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার জন্য তার কাছ থেকে ৫৪ হাজার টাকা নেন হেলেনা জাহাঙ্গীর। প্রতিবেদক হিসেবে তিনি কয়েক মাস কাজ করলেও কোনো বেতন পাননি। অন্যদিকে তার কাছ থেকে প্রতিমাসে তিন হাজার টাকা নেয় টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ।

মামলাটিতে হেলেনা জাহাঙ্গীর ছাড়াও অন্য আসামিরা হলেন— জয়যাত্রা টিভির জেনারেল ম্যানেজার হাজেরা, প্রধান বার্তা সম্পাদক কামরুজ্জামান আরিফ, কো-অর্ডিনেটর সানাউল্ল্যাহ নূরী ও স্টাফ রিপোর্টার মাহফুজ শাহরিয়ার।

২০২১ সালের ২১ নভেম্বর আদালতে হেলেনাসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলার চার্জশিট দাখিল করেন অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) পরিদর্শক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহিনুর ইসলাম। ২০২২ সালের ১৮ এপ্রিল মামলায় হেলেনা জাহাঙ্গীরসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। এর আগে, আদালত মামলার বাদসহ রাষ্ট্রপক্ষের ১৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করেন।

গত মঙ্গলবার (১৪ মার্চ) রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন রায় ঘোষণার জন্য ২০ মার্চ (সোমবার) দিন ধার্য করেন। 

সোনালীনিউজ/এম

Wordbridge School
Link copied!