• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১

শামীমের ফিফটিতে রংপুরের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ


ক্রীড়া ডেস্ক  ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২৪, ০৮:৩২ পিএম
শামীমের ফিফটিতে রংপুরের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ

ঢাকা: ৭৭ রানের মধ্যেই ৭ উইকেট হারিয়ে একশ রানের নিচে অলআউট হওয়ার শঙ্কায় পড়েছিল রংপুর রাইডার্স। বিপদের মুখে ব্যাট হাতে দাঁড়িয়ে গেলেন চলমান বিপিএলে ফর্মের বাইরে থাকা শামীম হোসেন পাটোয়ারি। ঝোড়ো ফিফটি করে ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে এনে দিলেন ১৪৯ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ।

মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে টস জিতে রংপুরকে প্রথমে ব্যাটিংয়ে পাঠান তামিম ইকবাল। শুরু থেকেই সাকিবের দলকে চাপে রাখে বরিশাল। ১৮ রানের মধ্যেই শেখ মেহেদী হাসান, সাকিব ও রনি তালুকদারকে ফিরিয়ে দেন বরিশালের বোলাররা। এর মধ্যে মেহেদী ও সাকিবকে সাইফউদ্দিন ও রনিকে ফেরান মেয়ার্স। 

চতুর্থ উইকেটে প্রাথমিক ধাক্কা সামলে নেওয়ার চেষ্টা করেন রংপুরের দুই বিদেশি ব্যাটার জেমস নিশাম ও নিকোলাস পুরান। মেহেদী হাসান মিরাজের করা নবম ওভারের শেষ বলে ৩০ রানের জুটি গড়ার পর ফেরেন ৩ রান করা পুরান। তার পরের ওভারের প্রথম বলেই নিশামকে ফেরান জেমস ফুলার। 

পঞ্চাশের আগেই ৫ উইকেট হারিয়ে হাপিত্যেশ করা রংপুর আরও ২ উইকেট হারায় ৭৭ রানের মধ্যেই। পরের দুই উইকেটও ফুলারের শিকার। দল যখন একশর নিচে অলআউট হওয়ার শঙ্কায়, তখন দুর্দান্ত এক জুটি গড়ে শামীম হোসেন পাটায়ারি ও আবু হায়দার রনি রংপুরের সম্মান তো বাঁচানই, এনে দেন চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ। ৩৪ বলে অপরাজিত ৭২ রানের জুটি গড়েন এই দুজন। যার মধ্যে রনির অবদান মাত্র ১২ রান। 

শেষ পর্যন্ত ৫৯ রানে অপরাজিত ছিলেন শামীম। ২৪ বলের ইনিংসটি তিনি সাজান সমান ৫টি চার ও ছক্কায়। নিজের ফিফটি পূরণ করেন মাত্র ২০ বলে। আর দল সেই ৭ উইকেট হারিয়েই পৌঁছায় ১৪৯ রানে। 

৪ ওভারে একাই ৫৩ রান দেন ওবেড ম্যাককয়। দারুণ বল করা জেমস ফুলার ৪ ওভারে মাত্র ২৫ রান দিয়ে নেন ৩ উইকেট। সমান ওভারে ২৭ রান দেওয়া সাইফউদ্দিনের শিকার ২ উইকেট। ২ ওভারে মাত্র ৯ রান দিয়ে এক উইকেট নেন মেহেদী হাসান মিরাজ। সমান ওভারে সমান রান দিলেও কোনো উইকেট পাননি তাইজুল ইসলাম। ৪ ওভারে মাত্র ২২ রান দিয়ে ১ উইকেট নিয়ে সফল মেয়ার্সও। 

এমএস

Wordbridge School
Link copied!