• ঢাকা
  • সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১

ভোটে জিতলে ‘আখের মেশিনের মতন রস নিংড়ি’য়ে টাকা আদায় করবেন মেয়র প্রার্থী!


বরগুনা প্রতিনিধি ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২৪, ০১:৩০ পিএম
ভোটে জিতলে ‘আখের মেশিনের মতন রস নিংড়ি’য়ে টাকা আদায় করবেন মেয়র প্রার্থী!

ছবি : প্রতিনিধি

বরগুনা: আল্লায় যদি জিতায় আর কামিয়াবি করে যারা এখন প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীদের প্রশংসা করতেছে ‘আখের মেশিনের মত নিংড়িয়ে রস বের করে টাকা আদায় করা হবে’ বলে মন্তব্য করেছেন বরগুনার আমতলী পৌরসভা নির্বাচনে এক মেয়র প্রার্থী।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় মেয়র প্রার্থী নাজমুল আহসান নান্নু পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী কার্যালয়ে নেতা-কর্মী ও সমর্থকের নিয়ে নির্বাচনি প্রস্ততি সভায় এ মন্তব্য করেণ। তার বক্তব্যের একটি অংশ সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র নিন্দিত হয়েছে।

ছড়িয়ে পড়া ওই বক্তব্যে মেয়র প্রার্থী নাজমুল আহসান নান্নুকে বলতে শোনা যায়, ‘আমি নির্বাচিত হলে যেসকল ভোটারগণ আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের প্রতিবাদ ও আমার পক্ষে কাজ করবেন তাহাদের ট্রেড লাইসেন্স, বাড়ির প্লান, ওয়ারিশ সার্টিফিকেট সহ সকল কাজ চোখের পলকে করে দিব, আর যারা ঐসকল প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের প্রশংসা করবেন তাহাদেরকে আখের মেশিনে যেভাবে রস বের করে সেইভাবে নিংড়িয়ে নিংড়িয়ে টাকা আদায় করা হবে।’

নাজমুল আহসান নান্নুর এমন বক্তব্য নিয়ে সমালোচনা সৃষ্টি হওয়ার পর অপর মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মতিয়ার রহমান‘ মেয়র প্রার্থী নাজমুল আহসান নান্নুর বিরুদ্ধে প্রতিক বরাদ্দের আগেই নির্বাচনি প্রস্ততি সভার নামে প্রচারণা চালানো ও ওইসব সভায়  উষ্কানীমুলক মন্তব্য করে নির্বাচনি আচরণবিধির ধারা ৫ ও ১৮ ধারা  করছেন। মতিয়ার রহমান অভিযোগ করে বলেন, ‘মেয়র প্রার্থী নাজমুল আহসান নান্নুর ইন্ধনে তার সন্ত্রাসী বাহীনি সরকারি জমি দখল করে স্টল নির্মাণ, পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ও প্রভাষক ধীরাজ কুমার বিশ্বাস সহ আমার একাধিক কর্মী সমর্থকদের মারধর করে নির্বাচনে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছেন। 

এসব ঘটনায় রির্টানিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি। সাধারণ ভোটাররা নান্নু বাহিনীর ভয়ে ভীত সন্ত্রস্ত। এ অবস্থায় নির্বাচনে বিশৃঙ্খল পরিবেশের সৃষ্টি হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। এ বিষয়ে রিটার্র্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়া হবে বলেও জানান বর্তমান মেয়র মতিয়ার রহমান।

অভিযোগের বিষয়ে আমতলী পৌরসভার মেয়র প্রার্থী নাজমুল আহসান নান্নুর মুঠোফোনে কল করলে ‘আমি একটা জনসভার মধ্যে, পরে কথা বলবো বলব’ বলে কল কেটে দেন। পরে একাধিকবার কল করলেও রিসিভ করেননি।

আমতলী পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আবদুল হাইল আল হাদি বলেন, অভিযোগের বিষয়ে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে। 

সোনালীনিউজ/এম/এসআই

Wordbridge School
Link copied!