• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২১ মে, ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বকেয়া বেতনের দাবিতে পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষ


আবু সুফিয়ান, নারায়ণগঞ্জ  এপ্রিল ২১, ২০২৪, ০৪:২২ পিএম
বকেয়া বেতনের দাবিতে পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষ

নারায়ণগঞ্জ: বকেয়া বেতনের দাবিতে ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে নারায়ণগঞ্জের বিসিক এলাকায় অবস্থিত ক্রোনী গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান অবন্তী কালার টেক্স লিমিটেডের কয়েক হাজার পোশাক শ্রমিক৷ পুলিশ শ্রমিকদের অবরোধে বাঁধা দিলে এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে পোশাক শ্রমিকদের সংঘর্ষ হয়।

রোববার (২১ এপ্রিল) সকাল নয়টা থেকে ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়কে সিমেন্টের তৈরি বৈদ্যুতিক খুঁটি, বাঁশ এবং কাঠের চৌকি ফেলে রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ শুরু করে ঐ কারখানায় কর্মরত শ্রমিকরা৷ অবরোধের ফলে সড়কটির দুই দিকে অন্তত ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ যানজট দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে ৷

সড়কের উভয় পাশে দীর্ঘ যানজট দেখা দিলে সেখানে শিল্প পুলিশ সহ ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের সতর্ক উপস্থিতি ছিল। দুপুর ১২টার পর পর্যন্ত যানজট যখন তীব্র আকার ধারণ করে তখন শিল্প পুলিশ পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ নিতে চেষ্টা করে। শুরু থেকেই পুলিশের পক্ষ থেকে শ্রমিকদেরকে সড়ক থেকে সরে যেতে বলা হয়েছিল। এরপর দুপুর ১২:৩০ মিনিটে পুলিশ শ্রমিকদেরকে সড়ক থেকে সরে যেতে বাধ্য করে এবং এ সময় ফাঁকা ফায়ারের শব্দ শোনা যায়। পরিস্থিতির সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিতে পুলিশ শ্রমিকদের লক্ষ্য করে রাবার বুলেট এবং গ্যাস নিক্ষেপ করে। এক পর্যায়ে শ্রমিকরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাথর নিক্ষেপ করে। কিন্তু পুলিশের কাছে শ্রমিকরা পিছু হটতে বাধ্য হয়। 

এদিকে ক্রোনী গ্রুপের একাধিক কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে, কারখানা নতুন করে আবার তিন দিন বন্ধ ঘোষণা করছে৷ এমন খবরে শ্রমিকরা তাদের পাওনা টাকা নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েন। তারেক নামের একজন ওভারলোক অপারেটর জানান, গত ৮ এপ্রিল দুপুর পর্যন্ত কাজের পর ঈদুল ফিতরের ছুটি দিয়ে কারখানা বন্ধ ঘোষণা করা হয়৷ তিনি আরো জানান, ঈদের আগে বোনাস পেলেও মার্চের বেতন এখন পর্যন্ত বকেয়া আছে৷ এদিকে এপ্রিল মাস প্রায় শেষের দিকে। 

দুলাল নামের আরেক জন শ্রমিক তার আঞ্চলিক ভাষায় বলেন, "হামরা গরিব মানুষ চাকরি করি খাই, বেতন পাইলে এই টাকা দিয়্যা ঘর ভাড়া দেই, ছাওয়া - পোয়ার খরচ দেওয়া নাগে, বাজার করা নাগে, চাউল কেনা নাগে, বাড়িত (গ্রামের বাড়িতে) বাপ-মার কাছে টাকা দেওয়া নাগে। হামার মালিক আসলাম সানি প্রতিমাসই বেতন নিয়ে নানান রকম নাটক করে, প্রতি মাসেই হামাক কিস্তিতে টাকা পরিশোধ করে। আমাদের বেতন দেয় দুই-তিনবারে, ওভার টাইমের টাকা দেয় আবার দুই বারে। এভাবে তো আমাদের সংসার চলে না।"

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন পোশাক শ্রমিক বলেন, প্রতি মাসের বেতন ঠিকমত না পেলে সংসার ঠিকমতো চালানো যায় না। এভাবেই আমাদের মালিক প্রতিমাসেই কিস্তিতে টাকা দেয় যার কারণে আমরা প্রতি মাসের ঘর ভাড়া ঠিক ভাবে পরিশোধ করতে পারি না। আমার নিজের ঘর ভাড়া বাকি আছে তিন মাসের। ঈদের আগে আমাদের এই মালিক বোনাসের টাকা দিলেও বকেয়া বেতন পরিশোধ করে নাই। যার কারনে ঈদের ছুটিতে টিকিট কেটেও বাড়িতে যাইতে পারি নাই। তিনি আরো বলেন, স্টাফদের এক মাসের বেতন-বোনাসের টাকা পরিশোধ করলেও আমরা শ্রমিকদের মালিক ঈদের আগে পাওনা টাকা দেয় নাই। গত ৮ তারিখ ঈদের ছুটিতে কারখানা বন্ধের দিন আমাদেরকে বলা হয়েছিল তোমরা চলে যাও তোমাদের বেতন তোমাদের মোবাইলে দেওয়া হবে। কিন্তু আমাদেরকে বেতন দেয় নাই।

ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তছলিম উদ্দিন সোনালীনিউজকে জানান, ক্রোনী গ্রুপের পোশাক শ্রমিকরা গত মার্চের বকেয়া বেতনের দাবিতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন৷ আমরা শ্রমিকদের কে শান্ত করার চেষ্টা করছি। সঙ্গে কথা বলে আমরা বিষয়টি নিয়ে কাজ করছি।

ক্রোনী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ এইস আসলাম সানি সোনালীনিউজকে বলেন, "আমরা আগামী বুধবারের মধ্যে শ্রমিকদের পাওনা টাকা পরিশোধ করে দেব।" এদিকে প্রতিমাসে বকেয়া বেতনের টাকা পরিশোধ নিয়ে এ এইস আসলাম সানি জানান, "ঠিকমতো শিপমেন্ট না হওয়ার কারণে বেতন নিয়ে সমস্যা হয়েছে। ঈদের আগে বোনাস দেওয়া হয়েছে, বকেয়া বেতনও দিয়ে দেওয়া হবে।"

এমএস

Wordbridge School
Link copied!