• ঢাকা
  • রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’!


নিজস্ব প্রতিবেদক ডিসেম্বর ৪, ২০২৩, ০৭:০২ পিএম
ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’!

ফাইল ছবি

ঢাকা: ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটার গতিতে আগাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’। যত সময় যাচ্ছে ততই শক্তিশালী হয়ে উঠছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উত্তাল হয়ে উঠেছে বঙ্গোপসাগর। একইসাথে উপকূলীয় এলাকায় আঘাত হানতেও শুরু করে দিয়েছে ঘূর্ণিঝড়টি। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, ‘মিগজাউম’ যেদিক দিয়ে যাবে সব তছনছ করে দিয়ে যাবে।

ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, তামিলনাড়ু রাজ্যের চেন্নাই ও পুদুচেরি উপকূলীয় এলাকার উপর দিয়ে স্থলভাগে আঘাত হেনেছে ‘মিগজাউম’। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে চেন্নাইয়ে প্রচণ্ড বৃষ্টিপাত হচ্ছে। ঝড়ের প্রভাবে শহরের মধ্যে নির্মাণাধীন একটি প্রাচীর পড়ে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। প্লাবিত হয়েছে চেন্নাই বিমানবন্ধরের রানওয়ে।

আবহাওয়াবিদদের ধারণা, অন্ধ্রপ্রদেশের নেল্লোর এবং মাছলিপত্তনমের মাঝামাঝি ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানবে। এ কারণে এসব অঞ্চলের স্কুল-কলেজ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের বাড়ি থেকে কাজ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। একইসঙ্গে ৬ ডিসেম্বর রাজ্যের শতাধিক ট্রেন বাতিল করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। জেলেদের সমুদ্রে যেতেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড় আঘাত না হানলেও কিছুটা প্রভাব পড়বে। এর ফলে আগামী মঙ্গলবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত সারাদেশে কমবেশি বৃষ্টি হবে। আর ভারী বৃষ্টিপাত হবে দেশের উপকূলীয় অঞ্চলগুলোতে। তুলনামূলক কম বৃষ্টি হবে উত্তরাঞ্চলে। তবে দেশের সব সমুদ্রবন্দরকে দূরবর্তী দুই নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। একইসঙ্গে উপকূল ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব ধরনের মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

বিশেষ এক বিজ্ঞপ্তিতে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’ আরও শক্তিশালী হতে পারে। এটি বর্তমানে উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তার কাছাকাছি এলাকায় অবস্থান করছে। ঘূর্ণিঝড়টি সকাল ৬টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫৪৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৩৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫০৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিলো। এটি আরও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘণিভূত হতে পারে।

২০২৩ সালে উত্তর ভারত মহাসাগরে অষ্টম পূর্ণাঙ্গ ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’। গত ১৮ বছরের মধ্যে চলতি বছরেই সর্বোচ্চ ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হয়েছে। আর এই ঘূর্ণিঝড় মৌসুম শেষ হতে আরও এক মাস বাকি রয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, ২০২৩ সালে গত ৫০ বছরের রেকর্ড ভাঙবে।

ওয়াইএ

Wordbridge School
Link copied!