• ঢাকা
  • শনিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২১, ৯ মাঘ ১৪২৭

করোনা ভ্যাকসিন নিলে যেসব পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে


নিউজ ডেস্ক জানুয়ারি ১১, ২০২১, ০৯:১১ পিএম
করোনা ভ্যাকসিন নিলে যেসব পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে

ফাইল ছবি

ঢাকা: ভারত থেকে ২৫ জানুয়ারির মধ্যে ভ্যাকসিন আসবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম সোমবার (১১ জানুয়ারি) এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।একইসঙ্গে ২৬ জানুয়ারি থেকে টিকার জন্য নিবন্ধন শুরু হবে বলেও জানিয়েছেন ডা. খুরশীদ আলম।ভ্যাকসিন এসে পৌঁছানোর ৭ দিন পর থেকে প্রয়োগ শুরু হবে।

প্রয়োগ শুরুর পর টিকাদান প্রক্রিয়া ছয় ধাপে সম্পন্ন হবে।
১. এনআইডি কার্ডের মাধ্যমে নিবন্ধন। ২. অনলাইন পোর্টাল থেকে ভ্যাকসিন কার্ড সংগ্রহ। ৩. ভ্যাকসিন দেওয়ার তারিখ ও তথ্য পাঠানো হবে। ৪. নির্দিষ্ট তারিখ ও সময়ে প্রথম ডোজ টিকা দেওয়া হবে। ৫. প্রথম ডোজ টিকা দেওয়ার দুই মাসের মধ্যে নির্দিষ্ট তারিখে পরবর্তী ডোজ টিকা দেওয়া হবে। ৬. দুই ডোজ টিকা নেওয়ার পর পোর্টাল থেকে ভ্যাকসিন সনদ দেওয়া হবে।

এদিকে করোনার ভ্যাকসিন নিলে মাথাব্যথা, হালকা জ্বর, যেখানে টিকা দেওয়া হয়েছে সেখানে ব্যথা, মাথা ঝিমঝিম করা বা কারও কারও বমিও হতে পারে। সিভিয়ার যে রিঅ্যাকশন হয় সেটা হচ্ছে শ্বাসকষ্ট হওয়া। সিভিয়ার জ্বরও হতে পারে। তবে এটা সাডেন শক।

সংবাদ সম্মেলনে টিকা বিতরণ কমিটির সদস্য ডা. শামসুল হক এসব কথা জানান।

তবে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকাতে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার হার খুবই কম জানিয়ে ডা. শামসুল হক বলেন, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার হার দুই থেকে তিন শতাংশের মতো। যেকোনও টিকার ক্ষেত্রেই মাইল্ড থেকে মডারেট বা সিভিয়ার সাইড ইফেক্ট হতে পারে। তবে বাংলাদেশে শিশু এবং বড়দেরও যে টিকা দেওয়া হয় সেখানে এনাফাইলিক্সিস বলে একটা কথা রয়েছে। এই এনাফাইলিক্সিস হচ্ছে একটি মারাত্মক প্রতিক্রিয়া—যেটা হতেই পারে। তবে এনাফাইলিক্সিসের আবার বিভিন্ন ধাপ রয়েছে। একটা জিনিস আমরা বলবো, যারা আমাদের টিকা দেবে, টিকাদান কেন্দ্রে যারা থাকবেন, তাদের এই বিষয়গুলো সম্পর্কে অবহিত করা হবে।

তিনি জানান, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কথা ভেবে আমাদের উপজেলা, জেলা এবং কেন্দ্রীয় পর্যায়ে কেন্দ্রভিত্তিক মেডিক্যাল টিম থাকবে এবং কেন্দ্রে প্রয়োজনীয় এবং পর্যাপ্ত ওষুধ এনাফাইলিক্সিসের জন্য মজুত রাখা হবে। যাতে চিকিৎসক দল সেখানে তাৎক্ষণিকভাবে উপস্থিত হতে পারে অথবা উপজেলা হাসপাতালে চলে আসে। উপজেলা হাসপাতালেও যদি এমন দুর্ঘটনা ঘটে সে বিষয়টি ভেবে সেখানে প্রস্তুতি নেওয়া থাকবে।

সোনালীনিউজ/আইএ