• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯

পদবৈষম্য নিরসন : আন্দোলনে যাচ্ছেন সরকারি কর্মচারীরা


নিউজ ডেস্ক সেপ্টেম্বর ২০, ২০২২, ০৯:১৯ এএম
পদবৈষম্য নিরসন : আন্দোলনে যাচ্ছেন সরকারি কর্মচারীরা

ফাইল ছবি

ঢাকা : বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দপ্তরগুলোতে কর্মরত প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী ও সমমান পদগুলো সচিবালয়ের ভেতরের ন্যায় বাইরের দপ্তরগুলোতেও অভিন্ন পদনাম ও স্কেলগ্রেড করার দাবি আড়াই দশকেও বাস্তবায়ন না হওয়ায় ক্ষুব্ধ সরকারি কর্মচারীরা। দাবি আদায়ে গঠিত সংগঠন বাংলাদেশ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদ দাবি জানিয়ে আসছে, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নির্বাহী আদেশে সচিবালয়ের ভেতর ও বাইরে দপ্তরের কর্মচারীদের পদনাম ও স্কেলগ্রেড অভিন্ন করতে হবে। তবে তাদের দাবির সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

এই অবস্থায় আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর শনিবার সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বৈঠকে বসবেন। তাদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে তারা সচিবালয়ের ভেতর ও বাইরের হিসেবে বেতন গ্রেড ও পদবি বৈষম্য শিকার। এমনকি তাদের পদোন্নতি নেই। চাকরিকাল একই পদে থেকে তাদের অবসরে যেতে হয়। সম্প্রতি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে কর্মচারীদের মধ্যে। ওই চিঠিতে দীর্ঘদিনের দাবি পূরণের সুনির্দিষ্ট কোনো ঘোষণা নেই।

গত ১২ সেপ্টেম্বর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব নাঈমা হোসেন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বিভাগের সিনিয়র সচিব ও সচিবদের উদ্দেশে বলা হয়েছে, সংযুক্ত অধিদপ্তর, পরিদপ্তর ও দপ্তরের বিদ্যমান প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী ও সমমান পদসমূহের পদ-পদবি পরিবর্তনের বিষয়ে নিজ নিজ সংস্থার মাধ্যমে যৌক্তিক কারণ উল্লেখসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক মন্ত্রণালয় বা বিভাগে আবেদন করলে মন্ত্রণালয় বা বিভাগ পরীক্ষা-নিরীক্ষাপূর্বক সুপারিশসহ স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে পারে। গত ২৮ জুলাই সরকারি কর্মচারীদের দাবি-দাওয়া পর্যালোচনা সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। 

এ প্রসঙ্গে গতকাল সোমবার বাংলাদেশ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদের মহাসচিব ও ডাক অধিদপ্তরের উচ্চমান সহকারী আবু নাসির খান বলেন, ‘সরকারের উচ্চপর্যায়ের একাধিক কমিটি এ বিষয়ে ইতিবাচক সম্মতি দিলেও অর্থ বিভাগ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগের অভাবে আমরা বঞ্চিত।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত কমিটি গঠন করেছে। সেই কমিটিও এক বছরের বেশি সময় আগে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তারা বৈঠক করেছেন, কিন্তু কাক্সিক্ষত পরিবর্তন আসেনি। ফলে আমরা আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর শনিবার সংগঠনের পক্ষ থেকে ডাক ভবন চত্বরে জরুরি বৈঠকে বসব। এরপর আমাদের পরবর্তী কর্মসূচির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।’

সংগঠনের অতিরিক্ত মহাসচিব বেল্লাল হোসেন বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত বৈঠকের পর একটি চিঠি দিয়েছে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বা বিভাগের সচিবদের। এতে আমাদের দাবি পূরণের সুনির্দিষ্ট ঘোষণা নেই। আমাদের দাবিটি দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা কূটকৌশলে বছরের পর বছর অনিষ্পন্ন রেখেছেন।’ তিনি বলেন, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনের সঙ্গেও তারা সাক্ষাৎ করে নিজেদের দাবির বিষয়ে অবহিত করেছেন। তিনি (প্রতিমন্ত্রী) তাদের যৌক্তিক দাবির সঙ্গে সহমত পোষণ করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

আন্দোলন কর্মসূচি প্রসঙ্গে বেল্লাল হোসেন বলেন, ‘আড়াই দশকের বেশি সময় ধরে হবে হচ্ছে করেও আজ পর্যন্ত কাক্সিক্ষত সিদ্ধান্ত আসেনি। তাই আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের কথা ভাবছি। সংগঠনের অন্য নেতাকর্মীরা কর্মবিরতির মতো কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত।’

নিজেদের বঞ্চনার কথা উল্লেখ করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কার্যালয়ের উচ্চমান সহকারী লুৎফর রহমান জানান, সচিবালয়ের কর্মচারীদের পদনাম পরিবর্তন ও বেতন গ্রেড উন্নীত করা হয়েছিল ১৯৯৫ সালে। এরই ধারাবাহিকতায় জাতীয় সংসদ, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, হাইকোর্ট, সুপ্রিমকোর্ট, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী ও সহকারী পদে কর্মরত কর্মচারীদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি মাঠ প্রশাসনের অর্থাৎ বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে কর্মরত কর্মচারীদের পদনামও পরিবর্তন করা হয়েছে। কিন্তু অধিদপ্তর-দপ্তরে কর্মরতদের ক্ষেত্রে তা বাস্তবায়ন হয়নি। তাদের একই পদে থেকে অবসরে যেতে হয়। পদোন্নতির সুযোগ নেই। এ নিয়ে বিভিন্ন অধিদপ্তর ও দপ্তরে প্রায় সাড়ে বারো হাজার কর্মচারীর মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে।

এসব কর্মচারীর দাবি প্রসঙ্গে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বিধি অনুবিভাগ) আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন বলেন, ‘একটি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আরেকটি মন্ত্রণালয়ের দপ্তরের সাংগঠনিক কাঠামো এক নয়। ওদের দাবি ছিল কমন একটি আদেশে সারাদেশে অধিদপ্তর দপ্তরের সবার পদ পরিবর্তন করা এটি সম্ভব নয়। দেখা গেছে, কোনো দপ্তরের ম্যানেজিরিয়াল পোস্ট আছে, আবার কোথাও নেই। এ জন্য ঢালাওভাবে পদের নাম স্কেল পরিবর্তন করা যাবে না। আমরা (মন্ত্রণালয়) বলছি, এ জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বা বিভাগ কর্মচারীদের দাবি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে পদের নাম কী হতে পারে এ ধরনের সুপারিশসহ প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে।’

সংশ্লিষ্ট বিভাগের এমন বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বঞ্চিত কর্মচারীরা বলেন, বিভিন্ন দপ্তর, বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন, পাবালিক সার্ভিস কমিশন, সুপ্রিমকোটের কর্মচারীরা ইতোমধ্যে এই দাবি পূরণ করে নিয়েছেন, সংশ্লিষ্ট বিভাগের নির্বাহী আদেশে। তা হলে আমাদের দাবি কেন যৌক্তিক নয়। এমনকি, এখন পদবি পরিবর্তন হলেও আমাদের বেতন বাড়বে না। আমাদের পদগুলোতে পরবর্তী সময় যারা নতুন নিয়োগ পাবেন, তারা সেই সুযোগটা পাবেন। কারণ যে পদবির দাবি করছি, সেই পদবির বেতন আমরা এখনি পাচ্ছি। শুধু সামাজিক মর্যাদার জন্য এ যৌক্তিক দাবি করছি।

উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালে সচিবালয়ে কাজ করা বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী ও বাজেট পরীক্ষকদের ‘প্রশাসনিক কর্মকর্তা’ হিসেবে পদনাম পরিবর্তন করে বেতন গ্রেড উন্নীত করা হয়। একই সঙ্গে সচিবালয়ের ‘সাঁটলিপিকার’দের পদনাম পরিবর্তন করে ‘ব্যক্তিগত কর্মকর্তা’ করা হয়। এর পর ২০০৯ সালে একই সুবিধা আদায় করে নেন পিএসসির কর্মচারীরা। ২০১৭ সালে একই সুবিধা পান সুপ্রিমকোর্টের কর্মচারীরা। চলতি বছর কর্মবিরতির আন্দোলনের মাধ্যমে একই ধরনের সুবিধা আদায় করে নিয়েছেন মাঠপ্রশাসনের কর্মচারীরা। সূত্র : আমাদের সময়।

সোনালীনিউজ/এমএএইচ

Wordbridge School
Sonali IT Pharmacy Managment System