• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১

এডিসি হারুন কাণ্ডে অবশেষে মুখ খুললেন সানজিদা আফরিন 


নিউজ ডেস্ক সেপ্টেম্বর ১২, ২০২৩, ০৭:০৯ পিএম
এডিসি হারুন কাণ্ডে অবশেষে মুখ খুললেন সানজিদা আফরিন 

পুলিশের বরখাস্ত অতিরিক্ত উপকমিশনার হারুন অর রশীদ ও রাষ্ট্রপতির সহকারী একান্ত সচিব আজিজুল হক মামুনের স্ত্রী পুলিশ কর্মকর্তা সানজিদা আফরিন। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: পুলিশের বরখাস্ত অতিরিক্ত উপকমিশনার হারুন অর রশীদ, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় দুই নেতা এবং রাষ্ট্রপতির সহকারী একান্ত সচিব আজিজুল হক মামুনের মাঝে হওয়া ঘটনা নিয়ে মামুনের স্ত্রী, পুলিশ কর্মকর্তা সানজিদা আফরিন অবশেষে মুখ খুলেছেন। 

তিনি বলেছেন, আমার স্বামীই হারুন স্যারকে প্রথম আঘাত করেছে।

আজিজুল হক মামুনের স্ত্রী সানজিদা আফরিন ৩১তম বিসিএসের পুলিশ কর্মকর্তা। বর্তমানে ডিএমপির একজন অতিরিক্ত উপকমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

একটি গণমাধ্যমের কাছে সেদিনের ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন সানজিদা আফরিন।

সানজিদা বলেন, ‘আমি বেশ কয়েকদিন ধরে সিভিয়ার পেইনে (তীব্র ব্যথায়) ভুগছিলাম। সেদিন (ঘটনার দিন) পেইনটা একটু বেশিই অনুভূত হচ্ছিল। তাই তখন আমার একজন ডাক্তার দরকার ছিল। যেহেতু ইব্রাহিম কার্ডিয়াক স্যারের (হারুন অর রশীদ) জুরিসডিকশনের মধ্যে পড়ে, তাই ডাক্তারের সিরিয়াল পাওয়ার জন্য আমি স্যারের হেল্প চেয়েছিলাম।

‘স্যারকে জানালে তিনি আমাকে বলেছিলেন- ঠিক আছে, আমি আশেপাশে আছি। আমি এসে ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে দিচ্ছি। এরপর স্যার আসলেন। আসার পর একজন ডাক্তার ম্যানেজ হলো। এরপর তিনি কিছু টেস্ট দিলেন। আমি ব্লাড টেস্টের জন্য স্যাম্পল দিলাম। ইকু আর ইসিজিও করানো হলো।’

সানজিদা বলেন, “এই ঘটনার সময় আমি যে রুমে ইটিটি করানো হয়, সেই রুমে ছিলাম। ইটিটি করানোর পনেরো-বিশ মিনিট পর আমি বাইরে একটা গণ্ডগোলের শব্দ শুনি। আমার কানে প্রথম এসেছিল হারুন স্যারের কণ্ঠ- ‘ভাইয়া, আপনি আমার গায়ে হাত দিলেন কেন? আপনি তো আমাকে মারতে পারেন না। আমাকে মারছেন কেন?’

“এরপর হট্টগোলের মধ্যে দেখলাম আমার হাজবেন্ডসহ বেশ কয়েকজন স্যারকে (হারুন অর রশীদ) মারতে মারতে ইটিটি রুমের ভেতরে নিয়ে আসলেন। ওইসময় স্যার নিজের সেফটির জন্য আমি যেখানে দাঁড়ানো ছিলাম সেই রুমের কোনার দিকে দৌড়ে এসে দাঁড়ালেন। ইটিটি রুমে এতগুলো লোক ঢোকার কারণে তখন সেখানে একটা বিশ্রি পরিবেশ তৈরি হয়। তখন আমি চিৎকার করছিলাম।”

তিনি বলেন, ‘এরপর আমার হাজবেন্ড তার সঙ্গে থাকা লোকজনকে বললেন- এই ভিডিও কর। এরপর সবাই ফোন বের করে ভিডিও করা শুরু করে। যখন তারা ভিডিও শুরু করে, তখন আমি আমার হাজবেন্ড এবং তার সঙ্গে থাকা লোকজনের সঙ্গে চিল্লাচিল্লি শুরু করছিলাম। এরপর যারা ভিডিও করছে আমি তাদের মোবাইল কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করলে তাদের হাতের সঙ্গে লেগে আমার হাতেও আমি সামান্য ব্যথা পাই। কারণ আমি চাচ্ছিলাম না, ওই অবস্থায় কেউ আমার ভিডিও করুক। আর আমার হাজবেন্ডের সঙ্গে যেসব ছেলে ছিল আমি তাদের কাউকে চিনতামও না।

‘ওই অবস্থায় আমার হাজবেন্ড আমার গায়ে হাত তোলে এবং স্যারকে বের করার চেষ্টা করছিলেন। তখন স্যারের কাছে বিষয়টি সেফ মনে হয়নি। এরপর স্যার কিছুক্ষণ অপেক্ষা করছিলেন। তখন হাসপাতালের সিকিউরিটি লোকজনও আসলেন। এর দশ পনেরো মিনিট পর হাসপাতাল থেকে ফোর্স আসলে তারা সেখান থেকে বের হয়ে যায়।’

এসব ঘটনার স্থান কোথায় এবং কয়টার দিকের ঘটনাটি ঘটে?- জানতে চাইলে সানজিদা আফরিন বলেন, ‘আমার ডাক্তার দেখানোর সিরিয়াল ছিল সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে। এরপর সাতটার দিকে স্যার (হারুন অর রশীদ) এসেছিলেন; পরে ডাক্তারও এসেছিলেন। এরপর আমি ডাক্তারের চেম্বারে ঢুকি। ঘটনা ঘটেছে ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালের চারতলার কার্ডিওলজি বিভাগে।’

আপনি অসুস্থ, সেটা আপনার হাজবেন্ড (আজিজুল হক) জানত না?- জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি অসুস্থ, সেটা আমার হাজবেন্ড জানতেন। কিন্তু আমি যে সেদিনই ডাক্তার দেখাতে যাব, সেটা তিনি জানতেন না। এর আগেও বিভিন্ন সময় ডাক্তার দেখানোর কথা ছিল। কিন্তু সামহাউ উনি মিস করে গিয়েছিলেন অথবা বিজি ছিলেন। যেহেতু ছয় সাত দিন ধরে আমার সিভিয়ার টেস্ট পেইন হচ্ছিল… যাইহোক, সবসময় তো পরিস্থিতি একরকম থাকে না যে আমি তার সঙ্গে শেয়ার করব। যেহেতু আমার সিভিয়ার পেইন হচ্ছিল, তাই আমি নিজেই ডাক্তারের কাছে গিয়েছি।’

তারপরও কীভাবে আপনার স্বামী জেনেছেন আপনি হাসপাতালে আছেন- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার হাজবেন্ড কীভাবে জেনেছেন সেটা আমি জানি না।’

আপনার কী মনে হয় তিনি আপনার পেছনে কাউকে দিয়ে নজরদারি করছেন?- জবাবে তিনি বলেন, ‘করতে পারেন। তবে আমি নিশ্চিত নই।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ‘পরকীয়া’র অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘উনি (হারুন অর রশীদ) আমার সিনিয়র কলিগ। এর বাইরে আর কোনো বিষয় নেই।’

সানজিদা বলেন, ‘ওই ঘটনার পর আমার স্বামীর সঙ্গে আমার আর কোনো কথা হয়নি। আমি আমার অফিসেই আছি।’

সূত্র-নিউজবাংলা

আইএ

Wordbridge School
Link copied!