• ঢাকা
  • শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০

ফখরুলের কাছে ‘হিরো’, কাদের বললেন ‘জিরো’


নিজস্ব প্রতিবেদক ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২৩, ০৮:২০ পিএম
ফখরুলের কাছে ‘হিরো’, কাদের বললেন ‘জিরো’

ঢাকা: বগুড়ায় উপনির্বাচনে হেরে যাওয়ায় পরও আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমকে নিয়ে কথা বলেছেন দেশের শীর্ষ রাজনীতিবিদরা। 

হিরো আলমকে নিয়ে শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘হিরো আলম হিরো হয়ে গেছে। কারণ তারা হিরো আলমের কাছেও মাত্র ৮০০ ভোটে জিতেছে। তাও চুরির অভিযোগ আছে। আর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এক ব্যক্তিকে জেতাতে নিজেদের প্রার্থীকে গুম করা হয়েছে। এই হচ্ছে আওয়ামী লীগের বর্তমান পরিস্থিতি।

এর জবাবে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বলেছেন, ‘হিরো আলম হেরে যাওয়ায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘ফখরুল সাহেব বলেছেন, রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে হিরো আলমকে হারানো হয়েছে। হায়রে মায়া! হিরো আলমের জন্য এত দরদ উঠলো ফখরুলের? ফখরুল ভেবেছিলেন হিরো আলম জিতে যাবে। হিরো আলম এখন জিরো হয়ে গেছে। তারা তো নির্বাচন চান নাই। হিরো আলমকে বিএনপি দাঁড় করিয়েছে। জাতীয় সংসদকে ছোট করার জন্য হিরো আলমকে প্রার্থী করেছে বিএনপি। অবশেষে ফখরুলের স্বপ্নভঙ্গ।’

রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ঢাকা বিভাগের সমাবেশে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, ‘এবার আমাদের জাতির অস্তিত্ব রক্ষার আন্দোলন। আমাদের সার্বভৌমত্ব রক্ষার আন্দোলন। সেই লক্ষ্যেই আমরা ১০ দফা ও ২৭ দফা প্রণয়ন করেছি। এর মধ্য দিয়েই দেশের মানুষ প্রমাণ করেছে যে তারা একটি দাবিকে আন্দোলন করছে। সেটা হলো এই অবৈধ ভোটারবিহীন সরকারের পদত্যাগ। আমরা এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা এবার কর্মসূচি শুরু করব ইউনিয়ন পর্যায় থেকে। এরপর উপজেলা, জেলা ও মহানগর পর্যায়ে এই কর্মসূচি পালিত হবে। এরপর আমরা তাদের (সরকার) ক্ষমতা থেকে নামিয়ে জনগণের সরকার গঠন করব।’

বিএনপি মহাসচিব জানান, ঢাকায় যে কয়টি পদযাত্রার কর্মসূচি পালিত হয়েছে তাতে ব্যাপক সাড়া পড়েছে। এ জন্য এবার এই কর্মসূচি তৃণমূল পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছেন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীসহ সবাইকে কর্মসূচি সফল করার আহ্বান জানান।

সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখনো সময় আছে খালেদা জিয়া, রুহুল কবীর রিজভী, খন্দকার আবু আশফাকসহ সব নেতাকর্মীর মুক্তি দিন। নেতাকর্মীদের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। আন্দোলনের মাধ্যমেই ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটানো হবে। এরপরে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে। আমরা ধীরে ধীরে এগিয়ে চলছি।’

অন্যদিকে কামরাঙ্গীরচর সরকারি হাসপাতাল মাঠে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, নৈরাজ্য অপরাজনীতি ও দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের আয়োজিত শান্তি সমাবেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ফখরুল সাহেব, পাকিস্তান আমল তো ভালো, এখন পাকিস্তানের কী অবস্থা? বাংলাদেশের ছয়মাস আমদানি করার রিজার্ভ আছে। পাকিস্তানে তিন সপ্তাহের রিজার্ভও নেই। আজ ক্ষুধায় পাকিস্তান কাঁপছে। সেই পাকিস্তান আপনার ভালো লাগে। বাংলাদেশ থাকবে। এ বাংলাদেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়াবে। কিন্তু আপনারা যদি ক্ষমতায় যান, বাংলাদেশ আজকের পাকিস্তান হবে। ফখরুল সাহেবের পেয়ারে পাকিস্তান বাংলাদেশকে বানাবে, আমরা সেটা হতে দেবো না।’

সোনালীনিউজ/আইএ

Wordbridge School
Link copied!