• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ৩০ মে, ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

চলতি মাসে একদিনও বিশুদ্ধ বাতাস পায়নি রাজধানীবাসী


নিজস্ব প্রতিবেদক জানুয়ারি ২৯, ২০২৩, ০৯:১২ পিএম
চলতি মাসে একদিনও বিশুদ্ধ বাতাস পায়নি রাজধানীবাসী

ফাইল ছবি

ঢাকা: চলতি মাসে একদিনও বিশুদ্ধ বাতাস পায়নি রাজধানী ঢাকার বাসিন্দারা। প্রতিদিনই দূষণে বিশ্বে প্রথম সারিতে অবস্থান ছিলো ঢাকা নগরীর। এরই ধারাবাহিকতায় রোববার (২৯ জানুয়ারি) দূষিত শহর ছিল ঢাকা। 

ওয়ার্ল্ড এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স প্রজেক্টের (একিউআইসিএন) তথ্যমতে, প্রধানত নভেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত ঢাকায় বায়ুদূষণ বেশি থাকে। বছরের বাকি সাত মাস শহরটির বায়ু তুলনামূলক নিরাপদ।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী ২০২০ সালের নভেম্বরে ঢাকায় দৈনিক বায়ুদূষণের মাত্রা ছিল গড়ে ১৬৩ দশমিক ২২ পিএম২.৫। পরের মাসে তা আরও বেড়ে দাঁড়ায় ২৩১ দশমিক ৬৭। ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে রাজধানীতে বায়ুদূষণের মাত্রা ছিল আগের কয়েক মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। ওই মাসে দৈনিক গড় বায়ুদূষণ দাঁড়িয়েছিল ২৬১ দশমিক ৫৪ পিএম২.৫। ওই বছরের ফেব্রুয়ারিতে দূষণের পরিমাণ ছিল ২৩৯ দশমিক ৬৪ এবং মার্চে ২১১ দশমিক ৪১।

সেই তুলনায় পরের মাসগুলোতে ঢাকার বায়ু তুলনামূলক স্বাস্থ্যকর দেখা যায় এবং এই দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি প্রতি বছরই ঘটছে।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, ঢাকা শহরে বড় নির্মাণ এবং ক্রমাগত যানবাহন চলাচলের এলাকায় বায়ুদূষণের মাত্রা সবচেয়ে বেশি। ঢাকায় বায়ুদূষণ এয়ার কোয়ালিটি নির্দেশিকা থেকে গড়ে ১৫০ শতাংশ বেশি। বায়ুদূষণের দিক থেকে পরের অবস্থানে বৃহত্তর ঢাকার ইটভাটার পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলো। সেখানে সহনীয় মাত্রার চেয়ে ১৩৬ শতাংশ বেশি বাযুদূষণ হচ্ছে।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বায়ুদূষণ পরিমাপকারী সংস্থা আইকিউ এয়ারের হিসাবে, উল্লেখিত সময় ঢাকায় বাতাসের মান ছিল ২১৩, যা ‘খুব অস্বাস্থ্যকর’ হিসেবে বিবেচিত হয়। মূলত গত ৩০ ডিসেম্বরের পর থেকেই শহরটির বাতাস অস্বাস্থ্যকর।
এর মধ্যে গত ২৬ জানুয়ারি ঢাকার বাতাস ছিল সবচেয়ে বেশি দূষিত। সেদিন এ অঞ্চলের বাতাসে পিএম২.৫-এর মাত্রা ছিল ২৬৩ দশমিক ১ এবং বাতাসের মান ছিল ৩১৩।

একিউআই সূচক অনুসারে, বায়ুদূষণের মাত্রা ০ থেকে ৫০ পিএম২.৫ হলে সেটি ভালো, ৫১ থেকে ১০০ হলে তা সহনীয়, ১০১ থেকে ১৫০ বিশেষ শ্রেণির জন্য অস্বাস্থ্যকর, ১৫১ থেকে ২০০ হলে সবার জন্য অস্বাস্থ্যকর, ২০১ থেকে ৩০০ খুবই অস্বাস্থ্যকর এবং ৩০০-এর বেশি হলে তা মানবস্বাস্থ্যের জন্য বিপজ্জনক বলে বিবেচিত হয়।

আইকিউ এয়ারের পূর্বাভাস বলছে, আগামী ছয়দিনও ঢাকায় বাতাসের মানে কোনো উন্নতির সম্ভাবনা নেই। অর্থাৎ আগামী সপ্তাহেও এ শহরের বায়ু থাকবে অস্বাস্থ্যকর।

গত নভেম্বরে বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, দেশে উচ্চমাত্রার বায়ুদূষণের কারণে প্রতি বছর মারা যাচ্ছেন প্রায় ৮০ হাজার মানুষ। একই সঙ্গে মোট দেশজ উৎপাদন-জিডিপির ক্ষতি হচ্ছে ৩ দশমিক ৯ থেকে ৪ দশমিক ৪ শতাংশ। বায়ুদূষণে উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়ছে শ্বাসকষ্ট, কাশি, শ্বাসনালীর সংক্রমণ এবং বিষণ্নতার ঝুঁকি। অন্যান্য স্বাস্থ্যগত হুমকি বাড়ার কারণে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশু, বয়স্ক এবং সহজাত রোগে আক্রান্তরা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছেন। এদের মধ্যে ডায়াবেটিস, হৃদরোগ বা শ্বাসযন্ত্রের রোগে আক্রান্তরা অধিক ঝুঁকিপূর্ণ।

সোনালীনিউজ/এসআই/আইএ

Wordbridge School
Link copied!